২৫তম তারাবিতে যা পড়া হবে আজ

প্রকাশ : ৩০ মে ২০১৯, ১৬:৫৯ | অনলাইন সংস্করণ

  আল ফাতাহ মামুন

ছবি: সংগৃহীত

আজ ২৫তম তারাবিতে সূরা মুজাদালাহ থেকে শুরু করে সূরা সুরা তাহরিম পর্যন্ত পড়া হবে। পারা হিসেবে আজ পড়া হবে ২৮তম পারা। পাঠকদের জন্য আজকের তারাবিতে পঠিত অংশের মূলবিষয়বস্তু তুলে ধরা হল। এ পারার সব সূরাই নাজিল হয়েছে মদীনায়। 

৫৮. সূরা মুজাদালাহ : ১-২২

সূরা মুজাদালাহ নাজিল হয়েছে মদীনায়। এর আয়াত সংখ্যা ২২ এবং রুকু সংখ্যা ৩। 

প্রথম থেকে তৃতীয় তথা শেষ রুকু, ১ থেকে ২২ নম্বর আয়াত। সূরা শুরু হয়েছে জিহারের বিধান ও ভয়াবহতা বর্ণনা করে। এরপর মুনাফিকদের আচরণের তীব্র সমালোচনা করা হয়েছে এবং মোমিনদের জন্য মজলিসের আদব বর্ণনা করা হয়েছে। সূরা শেষ হয়েছে আখেরাতে বিশ্বাসীদের উচ্ছসিত প্রশংসা করে। 

৫৯. সূরা হাশর : ১-২৪

২৪ আয়াত বিশিষ্ট সূরা হাশরের রুকু সংখ্যা ৩। পূর্বের সূরার মত এ সূরাও পবিত্র মদীনা নগরীতে নাজিল হয়েছে। 

প্রথম থেকে তৃতীয় তথা শেষ রুকু, ১ থেকে ২৪ নম্বর আয়াত। সত্য অস্বীকারকারীদের পরিণতি দুনিয়া ও আখেরাতে কত কঠিন তা বলে শুরু হয়েছে এ সূরা। সূরার বড় অংশে সমরনীতির আলোচনা রয়েছে। সূরা শেষ হয়েছে মোমিনদের উদ্দেশ্যে উপদেশ বাণী দিয়ে। 

৬০. সূরা মুমতাহিনা : ১-১৩

সূরা মুমতাহিনা নাজিল হয়েছে মদীনায়। আয়াত সংখ্যা ১৩, রুকু ২টি। 

প্রথম ও দ্বিতীয় রুকু, ১ থেকে ১৩ নম্বর আয়াত। আল্লাহ এবং মোমিনদের শত্রুকে যেন কোনো মোমিন বন্ধু মনে করে তা কঠোরভাবে বলে সূরা শুরু হয়েছে। পূর্ববর্তী নবীদের আলোচনার মাধ্যমে বোঝানোর চেষ্টা করা হয়েছে। এ বিষয়টিই সূরা মুমতাহিনার মূলপ্রতিপাদ্য। 

৬১. সূরা সফ : ১-১৪

মদীনায় অবতীর্ণ সূরা সফের আয়াত সংখ্যা ১৪, রুকু ২টি। 

প্রথম ও দ্বিতীয় রুকু, ১ থেকে ১৪ নম্বর আয়াত। মুখের কথা ও কাজের সঙ্গে মিল না থাকা আল্লাহর দৃষ্টিতে অত্যন্ত মন্দ কাজ- এ বলে সূরা শুরু হয়েছে। তারপর মোমিনদের ইমান আমলে সালেহের জন্য উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। এর জন্য লোভনীয় অফার দেয়া হয়েছে আল্লাহর পক্ষ থেকে। 

৬২. সূরা জুমা : ১-১১

মদীনায় অবতীর্ণ সূরা জুমার আয়াত ১১টি এবং রুকু ২টি। 

প্রথম ও দ্বিতীয় রুকু, ১ থেকে ১১ নম্বর আয়াত। সূরার শুরুতে রাসুলে (সা.) মাহাত্ম্য বর্ণনা করা হয়েছে। তাওরাতে রাসুল বিষয়ে আলোচনা এসেছে- তা সত্বেও কাফেররা হজরতকে মানছে না- এর তীব্র নিন্দা করা হয়েছে। সূরা শেষ হয়েছে জুমার বিধাবলী বর্ণনা করে। 

৬৩. সূরা মোনাফিকুন : ১-১১

মদীনায় নাজিল হয়েছে সূরাটি। এর আয়াত সংখ্যা ১১ এবং রুকু সংখ্যা ২। 

প্রথম ও দ্বিতীয় রুকু, ১ থেকে ১১ নম্বর আয়াত। প্রথম রুকুতে মোনাফিকদের ব্যাপারে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তাদের কথা যাচাই বাচাই না করে গ্রহণ করতে নিষেধ করা হয়েছে। তাদের আচরণ ও প্রকৃতি সম্পর্কেও বলা হয়েছে। শেষ আয়াতে মোমিনদের জন্য সংক্ষেপে গুরুত্বপূর্ণ নসিহত করা হয়েছে। 

৬৪. সূরা তাগাবুন : ১-১৮

২ রুকু বিশিষ্ট এ সূরাটিও নাজিল হয়েছে মদীনায়। এর আয়াত সংখ্যা ১৮।

প্রথম ও শেষ রুকু, ১ থেকে ১৮ নম্বর আয়াত। মহান আল্লাহর সৃষ্টি নৈপুন্যের বর্ণনা দিয়ে সূরার শুরু হয়েছে। যারা সত্য অস্বীকার করে তাদের ভ্রান্ত ধারণার অপনোদন করা হয়েছে। শেষ রুকুতে মোমিনদের জন্য হেদায়াতি নসিহত পেশ করা হয়েছে।  

৬৫. সূরা তালাক : ১-১২

১২ আয়াত বিশিষ্ট সূরা তালাক নাজিল হয়েছে পবিত্র মদীনায়। এর রুকু মোট ২টি। 

প্রথম ও দ্বিতীয় রুকু, ১ থেকে ১২ নম্বর আয়াত। প্রথম রুকুতে তালাকের বিধান বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। শেষ রুকুতে আল্লাহর বিধান অস্বীকারকারীদের পরিণতি কী বলা হয়েছে। পূর্ববর্তীদের উদাহর পেশ করে মোমিনদের জন্য উপদেশের খোরাক রেখেছে। 

৬৬. সূরা তাহরিম : ১-১২

সূরা তাহরিম। নাজিল হয়েছে মদীনায়। আয়াত সংখ্যা ১২। রুকু ২টি। এ সূরা পাঠের মাধ্যমেই শেষ হবে আজকের সালাতুত তারাবি। 

প্রথম ও দ্বিতীয় রুকু, ১ থেকে ১২ নম্বর আয়াত। এ সূরার প্রথম রুকু রাসুল (সা.) এর পারিবারিক একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে নাজিল হয়েছে। এখানে ওই ঘটনার আলোচনা এসেছে এবং উদ্ভুত পরিস্থির সুন্দর সমাধান পেশ করা হয়েছে। শেষ রুকুতে তাওবার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে মানুষকে। নবীজীকে বলা হয়েছে মোনাফিকদের ব্যাপারে সতর্ক থাকার জন্য। সত্য বিশ্বাসীদের জন্য পূর্ববর্তীদের ইতিহাস সংক্ষেপে উল্লেখ করে সূরা শেষ করা হয়েছে।