যে সূরা পাঠ করলে কখনই দরিদ্রতা স্পর্শ করবে না
jugantor
যে সূরা পাঠ করলে কখনই দরিদ্রতা স্পর্শ করবে না

  ইসলাম ও জীবন ডেস্ক  

২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৯:৪৭:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

যে সূরা পাঠ করলে কখনই দরিদ্রতা স্পর্শ করবে না

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) যখন অন্তিম রোগশয্যায় শায়িত ছিলেন, তখন হজরত ওসমান (রা.) তাকে দেখতে যান।

এসময় তিনি জিজ্ঞেস করেন-

হজরত ওসমান: আপনার অসুখটা কি?
হজরত ইবনে মাসউদ: আমার পাপসমূহই আমার অসুখ।

হজরত ওসমান: আপনার বাসনা কি?
হজরত ইবনে মাসউদ: আমার পালনকর্তার রহমত কামনা করি।

হজরত ওসমান: আমি আপনার জন্যে কোন চিকিৎসক ডাকব কি?
হজরত ইবনে মাসউদ: চিকিৎসকই আমাকে রোগাক্রান্ত করেছেন।

হজরত ওসমান: আমি আপনার জন্যে সরকারী বায়তুল মাল থেকে কোন উপঢৌকন পাঠিয়ে দেব কি?

হজরত ইবনে মাসউদ: এর কোন প্রয়োজন নেই।

হজরত ওসমান: উপঢৌকন গ্রহণ করুন তা আপনার পর আপনার কন্যাদের উপকারে আসবে।

হজরত ইবনে মাসউদ: আপনি চিন্তা করছেন যে, আমার কন্যারা দারিদ্র ও উপবাসে পতিত হবে। কিন্তু আমি এমন চিন্তা করি না। কারণ, আমি কন্যাদেরকে জোর নির্দেশ দিয়ে রেখেছি যে, তারা যেন প্রতিরাত্রে সূরা ওয়াকিয়াপাঠ করে।

আমি রাসুলুল্লাহকে (সা.) বলতে শুনেছি, ‘যে ব্যক্তি প্রতি রাতে সূরা ওয়াকিয়াপাঠ করবে, সে কখনও উপবাস করবে না।’

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি প্রতি রাতে সূরা ওয়াকিয়াতেলাওয়াত করবে তাকে কখনো দরিদ্রতা স্পর্শ করবে না।

হজরত ইবনে মাসউদ (রা.) তার মেয়েদেরকে প্রত্যেক রাতে এ সূরা তেলাওয়াত করার আদেশ করতেন। (বাইহাকি: শুআবুল ঈমান-২৪৯৮)

যে সূরা পাঠ করলে কখনই দরিদ্রতা স্পর্শ করবে না

 ইসলাম ও জীবন ডেস্ক 
২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৭:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
যে সূরা পাঠ করলে কখনই দরিদ্রতা স্পর্শ করবে না
ছবি: সংগৃহীত

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) যখন অন্তিম রোগশয্যায় শায়িত ছিলেন, তখন হজরত ওসমান (রা.) তাকে দেখতে যান।

এসময় তিনি জিজ্ঞেস করেন- 

হজরত ওসমান: আপনার অসুখটা কি?
হজরত ইবনে মাসউদ: আমার পাপসমূহই আমার অসুখ।

হজরত ওসমান: আপনার বাসনা কি?
হজরত ইবনে মাসউদ: আমার পালনকর্তার রহমত কামনা করি।

হজরত ওসমান: আমি আপনার জন্যে কোন চিকিৎসক ডাকব কি?
হজরত ইবনে মাসউদ: চিকিৎসকই আমাকে রোগাক্রান্ত করেছেন। 

হজরত ওসমান: আমি আপনার জন্যে সরকারী বায়তুল মাল থেকে কোন উপঢৌকন পাঠিয়ে দেব কি?

হজরত ইবনে মাসউদ: এর কোন প্রয়োজন নেই। 

হজরত ওসমান: উপঢৌকন গ্রহণ করুন তা আপনার পর আপনার কন্যাদের উপকারে আসবে।

হজরত ইবনে মাসউদ: আপনি চিন্তা করছেন যে, আমার কন্যারা দারিদ্র ও উপবাসে পতিত হবে। কিন্তু আমি এমন চিন্তা করি না। কারণ, আমি কন্যাদেরকে জোর নির্দেশ দিয়ে রেখেছি যে, তারা যেন প্রতিরাত্রে সূরা ওয়াকিয়া পাঠ করে।

আমি রাসুলুল্লাহকে (সা.) বলতে শুনেছি, ‘যে ব্যক্তি প্রতি রাতে সূরা ওয়াকিয়া পাঠ করবে, সে কখনও উপবাস করবে না।’

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যে ব্যক্তি প্রতি রাতে সূরা ওয়াকিয়া তেলাওয়াত করবে তাকে কখনো দরিদ্রতা স্পর্শ করবে না। 

হজরত ইবনে মাসউদ (রা.) তার মেয়েদেরকে প্রত্যেক রাতে এ সূরা তেলাওয়াত করার আদেশ করতেন। (বাইহাকি: শুআবুল ঈমান-২৪৯৮)