স্বামী থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিয়ের বিধান কী?
jugantor
স্বামী থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিয়ের বিধান কী?

  অনলাইন ডেস্ক  

০৫ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪০:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

স্বামী থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিয়ের বিধান কী?

প্রশ্ন: স্বামী থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিয়ের বিধান কী? যদি স্বামীর কাছে ফিরতে চায় অথবা ফিরিয়ে আনা হয় তাহলে করণীয় কী?

উত্তর: স্বামী থাকা অবস্থায় অন্য কারও বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হওয়া ও স্বামী আছে এমন নারীকে বিয়ে করা, উভয়ই হারাম ও নাজায়েজ। এমন কাজ থেকে বিরত থাকা সবার ওপর ফরজ। কেননা এমন করাটা শরীয়তে ব্যাভিচার বলে গণ্য হয়।

আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেছেন, (তোমাদের জন্য হারাম করা হয়েছে) সকল সধবা নারী তবে যারা তোমাদের মালিকানাধীন হয়ে গেছে (তাদের কথা ভিন্ন)। (এসব বিধান) আল্লাহতায়ালা তোমাদের ওপর ফরজ করেছেন (সুরা নিসা-২৪)।

এখন কথা হলো দ্বিতীয় বিয়ের কারণে প্রথম বিয়ের সম্পর্ক হারাম হয়ে যাবেনা। কেননা প্রথম বিয়েটা ছিল হালাল আর দ্বিতীয় বিয়েটা হলো হারাম। হারাম বিষয় কখনো হালাল বিষয়ের মধ্যে প্রভাব ফেলতে পারে না।

যদি ফিরিয়ে আনা হয় অথবা ফিরে আসতে চায় এবং মহিলার দ্বিতীয় স্বামী (শাব্দিক অর্থে) প্রথম বিয়ে বিষয়ক জানা না থাকে তাহলে ইদ্দত পালন তথা তিন হায়েজ (মাসিক) শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করা থেকে বিরত থাকবে। আর যদি দ্বিতীয় স্বামী প্রথম বিয়ে বিষয়ক জেনেও বিয়ে করে তাহলে ইদ্দত পালন করতে হবে না।

তথ্যসূত্র: তাফসীরে ইবনে কাছীর ১/৫৮৩, তাফসীরে রুহুল মাআনি ৪/৪-৫, সুনানে বায়হাকী- ১৪২৭৭, মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়েবাহ-১৭১৬৩, তুহফাতুল ফুকাহা ২/১১৩, বাদায়িউসসানায়ে ২/৫৪৮, ফতোয়ায়ে হিন্দিয়াহ ১/২৮০, ফতোয়ায়ে কাযীখান ১/২২১, ফতোয়ায়ে শামী ৫/১৯৭।

উত্তর দিয়েছেন- মুফতি আবু বকর রিশাদ, শিক্ষক- জামিয়া আরাবিয়া দারুল উলূম হোসাইনিয়া মীরওয়ারিশপুর, বেগমগঞ্জ, নোয়াখালী।

স্বামী থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিয়ের বিধান কী?

 অনলাইন ডেস্ক 
০৫ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
স্বামী থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিয়ের বিধান কী?
ফাইল ছবি

প্রশ্ন: স্বামী থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় বিয়ের বিধান কী? যদি স্বামীর কাছে ফিরতে চায় অথবা ফিরিয়ে আনা হয় তাহলে করণীয় কী? 

উত্তর: স্বামী থাকা অবস্থায় অন্য কারও বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হওয়া ও স্বামী আছে এমন নারীকে বিয়ে করা, উভয়ই হারাম ও নাজায়েজ। এমন কাজ থেকে বিরত থাকা সবার ওপর ফরজ। কেননা এমন করাটা শরীয়তে ব্যাভিচার বলে গণ্য হয়।  

আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেছেন, (তোমাদের জন্য হারাম করা হয়েছে) সকল সধবা নারী তবে যারা তোমাদের মালিকানাধীন হয়ে গেছে (তাদের কথা ভিন্ন)। (এসব বিধান) আল্লাহতায়ালা তোমাদের ওপর ফরজ করেছেন (সুরা নিসা-২৪)।

এখন কথা হলো দ্বিতীয় বিয়ের কারণে প্রথম বিয়ের সম্পর্ক হারাম হয়ে যাবে না। কেননা প্রথম বিয়েটা ছিল হালাল আর দ্বিতীয় বিয়েটা হলো হারাম। হারাম বিষয় কখনো হালাল বিষয়ের মধ্যে প্রভাব ফেলতে পারে না। 

যদি ফিরিয়ে আনা হয় অথবা ফিরে আসতে চায় এবং মহিলার দ্বিতীয় স্বামী (শাব্দিক অর্থে) প্রথম বিয়ে বিষয়ক জানা না থাকে তাহলে ইদ্দত পালন তথা তিন হায়েজ (মাসিক) শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করা থেকে বিরত থাকবে। আর যদি দ্বিতীয় স্বামী প্রথম বিয়ে বিষয়ক জেনেও বিয়ে করে তাহলে ইদ্দত পালন করতে হবে না।

তথ্যসূত্র: তাফসীরে ইবনে কাছীর ১/৫৮৩, তাফসীরে রুহুল মাআনি ৪/৪-৫, সুনানে বায়হাকী- ১৪২৭৭, মুসান্নাফ ইবনে আবি শায়েবাহ-১৭১৬৩, তুহফাতুল ফুকাহা ২/১১৩, বাদায়িউসসানায়ে ২/৫৪৮, ফতোয়ায়ে হিন্দিয়াহ ১/২৮০, ফতোয়ায়ে কাযীখান ১/২২১, ফতোয়ায়ে শামী ৫/১৯৭।

উত্তর দিয়েছেন- মুফতি আবু বকর রিশাদ, শিক্ষক- জামিয়া আরাবিয়া দারুল উলূম হোসাইনিয়া মীরওয়ারিশপুর, বেগমগঞ্জ, নোয়াখালী।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন