মুসলিম তরুণরা মোবাইলের অপব্যবহার করছে: আল্লামা আশহাদ রশিদী
jugantor
মুসলিম তরুণরা মোবাইলের অপব্যবহার করছে: আল্লামা আশহাদ রশিদী

  যুগান্তর ডেস্ক  

৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:২০:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতের শাহী মুরাদাবাদ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল আওলাদে রাসুল আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদী। ফাইল ছবি

বর্তমান সময়ে তথ্য প্রযুক্তির উৎকর্ষতার ফলে মুসলিম তরুণরাও ব্যাপকভাবে বিপথগামী হচ্ছেন। বিশেষ করে নৈতিকতার চরম অবক্ষয় ঘটছে মোবাইল ব্যবহার করে।

এ বিষয়ে উপমহাদেশের প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন ও ভারতের শাহী মুরাদাবাদ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল আওলাদে রাসূল আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদী বলেন, আমাদের মুসলিম তরুণরা এখন মোবাইলের প্রচুর অপব্যবহার করছে। তাদের মাঝে মোবাইলে আসক্তি দেখা দিয়েছে। আমাদের অনেকেই এখন নামাজ ছেড়ে মোবাইলে সময় ব্যয় করছেন। মোবাইল দিয়ে আমরা যে, কত যে গুনাহ করি তার হিসাব মিলানো ভার। মোবাইল দিয়ে চোখের গুনাহ হচ্ছে, কানের গুনাহ হচ্ছে। মুসল্লি ভাইয়েরা আমার! আমার রব সব দেখেন। হিসাবও নেবেন।

রাজধানীর উত্তরায় জামিয়াতুন নুর জামে মসজিদে খুতবায় তিনি এসব কথা বলেন। গত ১৯ নভেম্বর জুমার খুতবা দেন বাংলাদেশ সফররত ভারতের শাহী মুরাদাবাদ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল আওলাদে রাসুল আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদী।

তিনি বলেন, নামাজের ব্যাপারে আমরা এতটাই উদাসীন যে, অনেকেই আমরা এমন আছি যারা শুধু জুমার নামাজটা পড়ি। আবার অনেকেই এমন আছি, যারা দুই বা তিন ওয়াক্ত নামাজ পড়ি। আহা! কতটা কষ্টের কথা। আমরা যারা এমন করি তারা কেবল নিজের মনের বা কুপ্রবৃত্তির পূজা করি, আল্লাহর ইবাদত কখনোই করিনা।

জুমার খুতবায় আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদী বলেন, লোকমান হাকিমের (রহ.) নাম ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা রয়েছে। মহাসত্যের মানদণ্ডে উত্তীর্ণ আমাদের সর্বশ্রেষ্ঠ আসমানী কিতাব পবিত্র কুরআনুল কারীমেও এই মহা মনীষীর নাম উল্লেখ আছে। এমনকি উল্লেখ আছে তার উপদেশও। যা তিনি নিজের ছেলের উদ্দেশ্যে করেছিলেন।

তখনকার মানুষ লোকমান হাকিমের (রহ.) উপদেশ শুনতে দূর-দূরান্ত থেকে আসতো এবং ভিড় জমাতো।

নিজ সন্তানকে উদ্দেশ্য করে যে নসিহত তিনি করেছিলেন তা আল্লাহর কাছে এতটাই পছন্দ হয়েছে যে, মহান আল্লাহতায়ালা তা কুরআনুল কারীমে নাজিল করেন। মনে রাখবেন এই নসিহত কেবল সেকালের লোকদের জন্য না, তা সর্বযুগে সর্বশ্রেণীর লোকদের জন্য। আর আমি সেখান থেকে চারটি নসিহত আপনাদেরকে শোনাব ইনশাআল্লাহ।

‘হে আমার সন্তান! কোন বস্তু যদি সরিষার দানা পরিমাণও হয় অতঃপর তা যদি পাথরের ভেতর অথবা আকাশে কিংবা ভূ-গর্ভেও (লুকায়িত) থাকে, তবে আল্লাহ তা (কিয়ামতের দিন হিসাব নিকাশের জন্য) উপস্থিত করবেন। কারণ, আল্লাহ গুপ্ত বিষয় জানেন, সবকিছুর খবর রাখেন।’ (সূরা লোকমান, আয়াত: ১৬)

সুতরাং মনে রাখবেন! আপনি যত ছোট গুনাহ যত গোপনেই করেন না কেন, আল্লাহতায়ালা তার হিসাব নিবেন। তিনি সর্বদ্রষ্টা। তাই আমাদের কর্তব্য হল, গুনাহের ব্যাপারে আল্লাহকে ভয় করা। যদি না করি আমরা, তাহলে বুঝে নিবেন আমরা কোনদিন মানুষই হতে পারিনি। আমরা পশুর চেয়েও নিকৃষ্ট।

►আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদীর বক্তব্য দেখতে ক্লিক করুন

মুসলিম তরুণরা মোবাইলের অপব্যবহার করছে: আল্লামা আশহাদ রশিদী

 যুগান্তর ডেস্ক 
৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:২০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ভারতের শাহী মুরাদাবাদ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল আওলাদে রাসুল আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদী। ফাইল ছবি
ভারতের শাহী মুরাদাবাদ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল আওলাদে রাসুল আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদী। ফাইল ছবি

বর্তমান সময়ে তথ্য প্রযুক্তির উৎকর্ষতার ফলে মুসলিম তরুণরাও ব্যাপকভাবে বিপথগামী হচ্ছেন। বিশেষ করে নৈতিকতার চরম অবক্ষয় ঘটছে মোবাইল ব্যবহার করে। 

এ বিষয়ে উপমহাদেশের প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন ও ভারতের শাহী মুরাদাবাদ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল আওলাদে রাসূল আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদী বলেন, আমাদের মুসলিম তরুণরা এখন মোবাইলের প্রচুর অপব্যবহার করছে। তাদের মাঝে মোবাইলে আসক্তি দেখা দিয়েছে। আমাদের অনেকেই এখন নামাজ ছেড়ে মোবাইলে সময় ব্যয় করছেন। মোবাইল দিয়ে আমরা যে, কত যে গুনাহ করি তার হিসাব মিলানো ভার। মোবাইল দিয়ে চোখের গুনাহ হচ্ছে, কানের গুনাহ হচ্ছে। মুসল্লি ভাইয়েরা আমার! আমার রব সব দেখেন। হিসাবও নেবেন।

রাজধানীর উত্তরায় জামিয়াতুন নুর জামে মসজিদে খুতবায় তিনি এসব কথা বলেন। গত ১৯ নভেম্বর জুমার খুতবা দেন বাংলাদেশ সফররত ভারতের শাহী মুরাদাবাদ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল আওলাদে রাসুল আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদী।

তিনি বলেন, নামাজের ব্যাপারে আমরা এতটাই উদাসীন যে, অনেকেই আমরা এমন আছি যারা শুধু জুমার নামাজটা পড়ি। আবার অনেকেই এমন আছি, যারা দুই বা তিন ওয়াক্ত নামাজ পড়ি। আহা! কতটা কষ্টের কথা। আমরা যারা এমন করি তারা কেবল নিজের মনের বা কুপ্রবৃত্তির পূজা করি, আল্লাহর ইবাদত কখনোই করিনা। 

জুমার খুতবায় আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদী বলেন, লোকমান হাকিমের (রহ.) নাম ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লেখা রয়েছে। মহাসত্যের মানদণ্ডে উত্তীর্ণ আমাদের সর্বশ্রেষ্ঠ আসমানী কিতাব পবিত্র কুরআনুল কারীমেও এই মহা মনীষীর নাম উল্লেখ আছে। এমনকি উল্লেখ আছে তার উপদেশও। যা তিনি নিজের ছেলের উদ্দেশ্যে করেছিলেন।

তখনকার মানুষ লোকমান হাকিমের (রহ.) উপদেশ শুনতে দূর-দূরান্ত থেকে আসতো এবং ভিড় জমাতো। 

নিজ সন্তানকে উদ্দেশ্য করে যে নসিহত তিনি করেছিলেন তা আল্লাহর কাছে এতটাই পছন্দ হয়েছে যে, মহান আল্লাহতায়ালা তা কুরআনুল কারীমে নাজিল করেন। মনে রাখবেন এই নসিহত কেবল সেকালের লোকদের জন্য না, তা সর্বযুগে সর্বশ্রেণীর লোকদের জন্য। আর আমি সেখান থেকে চারটি নসিহত আপনাদেরকে শোনাব ইনশাআল্লাহ।

‘হে আমার সন্তান! কোন বস্তু যদি সরিষার দানা পরিমাণও হয় অতঃপর তা যদি পাথরের ভেতর অথবা আকাশে কিংবা ভূ-গর্ভেও (লুকায়িত) থাকে, তবে আল্লাহ তা (কিয়ামতের দিন হিসাব নিকাশের জন্য) উপস্থিত করবেন। কারণ, আল্লাহ গুপ্ত বিষয় জানেন, সবকিছুর খবর রাখেন।’ (সূরা লোকমান, আয়াত: ১৬)

সুতরাং মনে রাখবেন! আপনি যত ছোট গুনাহ যত গোপনেই করেন না কেন, আল্লাহতায়ালা তার হিসাব নিবেন। তিনি সর্বদ্রষ্টা। তাই আমাদের কর্তব্য হল, গুনাহের ব্যাপারে আল্লাহকে ভয় করা। যদি না করি আমরা, তাহলে বুঝে নিবেন আমরা কোনদিন মানুষই হতে পারিনি। আমরা পশুর চেয়েও নিকৃষ্ট।

►আল্লামা সাইয়্যেদ আশহাদ রশিদীর বক্তব্য দেখতে ক্লিক করুন

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন