কুরবানির গোশত দিয়ে বিয়ের অনুষ্ঠান করা যাবে?
jugantor
কুরবানির গোশত দিয়ে বিয়ের অনুষ্ঠান করা যাবে?

  ইসলাম ও জীবন ডেস্ক  

০৩ জুলাই ২০২২, ১৯:৩৫:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রশ্ন: কুরবানিরগোশত দিয়ে বিয়ের অনুষ্ঠান করবো বা মেহমানদের আপ্যায়ন করাবো- এমন নিয়তে কুরবানি করা যাবে কি?

উত্তর: এভাবে নিয়ত করে কুরবানি করলে শুদ্ধ হবে না। কারণ, এতে গোশত খাওয়ার নিয়তে কুরবানি হয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া আল্লাহর বিধান পূর্ণ করার জন্য এ কুরবানি করা হচ্ছে না, বরং আত্মীয়দের খাওয়ার জন্য পশু জবাই করা হচ্ছে।তাই এভাবে নিয়ত করে কুরবানি করলে শুদ্ধ হবে না।

তবে যদি আল্লাহর হুকুম পালন করার উদ্দেশ্যে কুরবানি করে থাকে, এরপর কুরবানির গোশত দিয়ে বিয়ের মেহমানদারী করে, তাহলে কুরবানিও শুদ্ধ হবে। আবার মেহমানদারদের খাওয়ানোও বৈধ হবে।

তবে যদি বড় পশুর সাত ভাগের মাঝে আলাদা অংশ ওলীমার জন্য রাখে, তাহলে ওলীমার অংশ রাখার কারণে কুরবানি নষ্ট হবে না। বরং শরীক সবার কুরবানি শুদ্ধ হয়ে যাবে।

মাসআলা দু’টি আলাদা। এক হল, কুরবানির অংশটিকে বিয়ের মেহমানদারীর জন্য কুরবানি করা। আর দ্বিতীয় মাসআলা হল, কুরবানির অংশ নয়, বরং কুরবানির পশুতে আলাদা অংশে ওলীমার অংশ রাখা।

প্রথম সূরতে কুরবানি শুদ্ধ হবে না। দ্বিতীয় সূরতে কুরবানি শুদ্ধ হবে।

তথ্যসূত্র- ফাতাওয়ায়ে আলমগীরি, তাতারখানিয়া, দুররুল মুখতার, বাদায়েউস সানায়ে

কুরবানির গোশত দিয়ে বিয়ের অনুষ্ঠান করা যাবে?

 ইসলাম ও জীবন ডেস্ক 
০৩ জুলাই ২০২২, ০৭:৩৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রশ্ন: কুরবানির গোশত দিয়ে বিয়ের অনুষ্ঠান করবো বা মেহমানদের আপ্যায়ন করাবো- এমন নিয়তে কুরবানি করা যাবে কি?

উত্তর: এভাবে নিয়ত করে কুরবানি করলে শুদ্ধ হবে না। কারণ, এতে গোশত খাওয়ার নিয়তে কুরবানি হয়ে যাচ্ছে। তাছাড়া আল্লাহর বিধান পূর্ণ করার জন্য এ কুরবানি করা হচ্ছে না, বরং আত্মীয়দের খাওয়ার জন্য পশু জবাই করা হচ্ছে।তাই এভাবে নিয়ত করে কুরবানি করলে শুদ্ধ হবে না।

তবে যদি আল্লাহর হুকুম পালন করার উদ্দেশ্যে কুরবানি করে থাকে, এরপর কুরবানির গোশত দিয়ে বিয়ের মেহমানদারী করে, তাহলে কুরবানিও শুদ্ধ হবে। আবার মেহমানদারদের খাওয়ানোও বৈধ হবে।

তবে যদি বড় পশুর সাত ভাগের মাঝে আলাদা অংশ ওলীমার জন্য রাখে, তাহলে ওলীমার অংশ রাখার কারণে কুরবানি নষ্ট হবে না। বরং শরীক সবার কুরবানি শুদ্ধ হয়ে যাবে।

মাসআলা দু’টি আলাদা। এক হল, কুরবানির অংশটিকে বিয়ের মেহমানদারীর জন্য কুরবানি করা। আর দ্বিতীয় মাসআলা হল, কুরবানির অংশ নয়, বরং কুরবানির পশুতে আলাদা অংশে ওলীমার অংশ রাখা।

প্রথম সূরতে কুরবানি শুদ্ধ হবে না। দ্বিতীয় সূরতে কুরবানি শুদ্ধ হবে।

তথ্যসূত্র- ফাতাওয়ায়ে আলমগীরি, তাতারখানিয়া, দুররুল মুখতার, বাদায়েউস সানায়ে 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর