ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা

বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়িত একাত্তরের দিনগুলো

  রীনা তুলি ০৪ জানুয়ারি ২০১৮, ১০:৪৫ | অনলাইন সংস্করণ

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ
বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে জমে উঠেছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা ২৩তম আসর। মেলায় এই প্রথমবারের মতো আয়োজন করা হয়েছে ব্যতিক্রমধর্মী বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ নামে একটি গ্যালারি। গ্যালারিটেতে থাকছে বাংলাদেশের ও বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়িত একাত্তরের দিনগুলো।

বৃহস্পতিবার সরেজমিনে বাণিজ্য মেলায় গিয়ে দেখা যায়, মেলার দর্শনার্থীদের প্রবেশের মূল গেট দিয়ে ঢুকলেই চোখে মিলবে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ নামের এই গ্যালারি। গ্যালারিতে স্থান পেয়েছে বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু স্মৃতিবিজড়িত একাত্তরের দিনগুলোর ২৬টি চিত্রকর্ম। বাণিজ্য মেলায় প্রথম এ ধরনের চিত্রপ্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে।

চিত্রকর্মগুলোতে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে জাতির পিতার ৭ মার্চের ভাষণ, ৬ দফা আন্দোলন, বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন, ১৯৫৮ সালের ২৭ অক্টোবর পাকিস্তানে বন্দি বঙ্গবন্ধু, ১৯৭০ সালের নিবার্চন, ১১ দফা আন্দোলন, ৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধুর পারিবারিক ছবি, ছাত্র আন্দোলন, একাত্তরের গণহত্যা, বসন্ত রোগে আক্রান্ত হওয়া শিক্ষকদের সেবা, হিন্দু-মুসলমানদের দাঙ্গা, ফুটবল খেলা, বঙ্গবন্ধুর বাল্যকালের স্মৃতি, খোকার (বঙ্গবন্ধুর) টুঙ্গিপাড়ার গ্রাম থেকে শহরে আসার স্মৃতি, শৈশবে দুঃখী ও গরিব মানুষের দরদি বঙ্গবন্ধুর চিত্রকর্মসহ বিভিন্ন চিত্রকর্ম স্থান পেয়েছে গ্যালারিতে।

শুধু চিত্রকর্ম নয়- গ্যালিরিতে, তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।সকাল সাড়ে ১০টায় ৭ মার্চের ভাষণ,সকাল সাড়ে ১১টায় একাত্তরের গণহত্যা,দুপুর ২টায় আমাদের বঙ্গবন্ধু,দুপুর ৩টায় জাগে প্রাণ পতাকা,বিকাল সাড়ে ৪টায় চিরঞ্জীব বঙ্গবন্ধু, সন্ধ্যা ৬টায় স্বাধীনতা কি করে আমাদের হলো, ও রাত ৮টায় আমাদের বঙ্গবন্ধু। গ্যালারিতে বেশির ভাগ আসছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা।এ ছাড়া বাবা-মায়ের হাত ধরে ও কোলে চড়ে এসেছে ছোট সোনামনিরা।ঢাকার বিএএফ শাহীন কলেজ থেকে এসেছেন একাদশ শ্রেণির কয়েকজন শিক্ষার্থী।তারা অনেক মনোযোগ দিয়ে বঙ্গবন্ধুর ৬ দফা আন্দোলনের ছবি দেখছিলেন।শিক্ষার্থী রিফাত,মনি ও আলিফ যুগান্তরকে বলেন,মেলার গেটে ঢুকতেই চোখে মেলে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের এই গ্যালারি।গ্যালারিতে বাংলোদেশ ও বঙ্গবন্ধুর অনেক ছবি দেখছি।অনেক কিছু জানতে পারছি,ভালো লাগছে।

গ্যালারিতে এক বছর বয়সী মেয়ে তাহাসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে মেলায় এসছেন। মেলায় প্রবেশ করেই চোখে পড়ে বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ নামের দৃষ্টিনন্দন একটি গ্যালারি।যতই দেখছি, ততই মুগ্ধ হচ্ছি। অনেক তথ্যসমৃদ্ধ একটি গ্যালারি।শিশুদের অনেক কিছু জানাতে পারবে এই গ্যালারি থেকে।

গ্যালারির দায়িত্বে থাকা জয়নাল আবেদিন যুগান্তরকে বলেন,বাংলাদেশের ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছে। এই গ্যালারি থেকে শিশুরা মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে পারবে। গ্যালারিতে দায়িত্বরত পুলিশ সার্জেন্ট মো.আবদুস সালাম যুগান্তরকে বলেন,গ্যালারিতে শিশুদের জন্য দৃষ্টিনন্দন করে তৈরি করা হয়েছে বিভিন্ন চিত্রকর্ম।এ ছাড়া প্রতিটি চিত্রকর্মের সঙ্গে ছোট করে তথ্য দেয়া আছে।এ ছাড়া নির্দিষ্ট সময়ের বেশি কয়েকটি চিত্রকর্ম প্রদর্শনের ব্যবস্থা রয়েছে।মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে চিত্রকর্মের মাধ্যমে।দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা দিতে আমরা সব সময় প্রস্তুত রয়েছি।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) আয়োজনে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে প্রতিবারের মতো এবারও আয়োজন করা হয়েছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার। গত সোমবার (১ জানুয়ারি মাসব্যাপী ২৩তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলার মেলার উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পদ্মা সেতু এবং ঐতিহ্যের ঢাকা গেটের আদলে তৈরি মেলার প্রধান ফটক।মেলায় এবার স্টল ও প্যাভিলিয়ন থাকছে ৫৮৯টি।এর মধ্যে ৪৩টি প্রতিষ্ঠান বিদেশি।

মেলা চলবে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত। কোনো সাপ্তাহিক ছুটি ছাড়াই মেলা সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা থাকবে। প্রবেশ ফি ধরা হয়েছে জনপ্রতি ৩০ টাকা, ছোটদের জন্য ২০ টাকা।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.