সেভিংসের সাতকাহন
jugantor
সেভিংসের সাতকাহন

  রবিউল কমল  

২৪ জুলাই ২০২১, ০৪:১৮:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

নতুন চাকরিজীবীদের জন্য সেভিংস নিয়ে বিশেষ কিছু টিপস।

প্রথম থেকে সঞ্চয় সম্পর্কে সচেতন থাকলেই যে কোনো সময় যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে সহজ হবে। বিশেষ করে যারা নতুন কর্মজীবনে প্রবেশ করেছেন তাদের ক্ষেত্রে এ সঞ্চয় খুবই জরুরি। তাই শুরুতেই সঞ্চয় নিয়ে প্ল্যানিং করলে ভবিষ্যতে চলার পথটাও সুগম ও সহজ হবে।

চাকরি জীবনে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে ফিন্যান্সিয়াল জীবনে বেশ বড় ধরনের পরিবর্তন আসে। হঠাৎ করে খরচ বেড়ে যায়। কিন্তু ভবিষ্যৎ জীবনে অর্থনৈতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার জন্য এ সময়ে ক্রয়ক্ষমতার সঙ্গে তাল মিলিয়ে লাইফস্টাইলে পরিবর্তন না এনে সেভিংসের দিকে বিশেষ নজর দেওয়া উচিত।

# কর্মজীবনের শুরুতেই মানি ম্যানেজমেন্টের দিকে নজর দিন। আপনার বর্তমান লাইফস্টাইল অনুযায়ী একটা বাজেট তৈরি করুন সবার আগে। সেই তালিকায় আপনার প্রয়োজনীয় প্রত্যেকটি বিষয় যেন থাকে। বিশেষ করে আপনার যাতায়াত খরচের কথা ভুলে যাবেন না।

# চাকিরর প্রথম তিন মাস আপনাকে লক্ষ্য রাখতে হবে আপনার প্রয়োজনীয়, অতিপ্রয়োজনীয় খরচ কতটা। সেক্ষেত্রে এই তিন মাসের পুরো হিসাবটা খাতায় লিখে রাখুন। এ হিসাব বিশ্লেষণ করেই আপনি আপনার বাজেট করে ফেলতে পারবেন। আপনার তৈরি করা বাজেট অনুযায়ী নিজেকে অভ্যস্ত করে তুলুন আস্তে আস্তে।

# সম্ভব হলে আপনার বেতনকে মোটামুটি চার ভাগে ভাগ করে নিন। নিয়মিত খরচের জন্য রাখুন দুই ভাগ, একভাগ রাখুন প্রয়োজনীয় এবং পছন্দের কেনাকাটা জন্য ও আর বাকি এক ভাগ রাখুন সেভিংসের জন্য।

# প্রথম কয়েক মাস সেভিংস করার পর তা থেকে ইনভেস্ট করার চেষ্টা করুন কিছু ভবিষ্যৎ প্রকল্পে। কোন ধরনের পলিসি আপনার জন্য উপযুক্ত সে ব্যাপারে ভালো করে খোঁজখবর নিন।

# সেভিংসের জন্য রাখা নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া খরচ করবেন না। বরং চেষ্টা করুন প্রতি মাসে আপনার স্থায়ী বাজেট থেকে কিছু সঞ্চয় করতে।

# সেলারি অ্যাকাউন্ট সবসময় আলাদা রাখা উচিত। যদি পারিবারিক সূত্রে বা অন্য কোনোভাবে কোনো অর্থ পেয়ে যান, তবে তা সেলারি অ্যাকাউন্টে রাখবেন না। আলাদা একটা অ্যাকাউন্ট খুলে তাতে রাখুন।

# আপনার মাসিক কেনাকাটার জন্যে যে বাজেট রেখেছেন তার মধ্যেই বিনোদনের জন্য বাজেট রাখুন। কোনো মাসে কেনাকাটা বেশি হয়ে গেলে বিনোদনের বাজেট কাট করুন।

# প্রমোশন হলে খরচের হাত সেই পরিমাণে বাড়িয়ে ফেলবেন না। বরং বর্ধিত টাকা সেভ করার চেষ্টা করুন। প্রথম জীবনে একটু হিসেবি হলে বাকি জীবনটা অনায়াসে সুখে-শান্তিতে কাটিয়ে দিতে পারবেন। বিপদে পড়লে খুব সহজে তা মোকাবেলা করতে পারবেন।

# ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের ক্ষেত্রে খেয়াল রাখবেন কখনই যেন ক্রেডিটের পরিমাণ রিপেমেন্ট ক্যাপাসিটির বাইরে না চলে যায়।

[প্রিয় পাঠক, আপনিও দৈনিক যুগান্তর অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, এখন আমি কী করব, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন-jugantorlifestyle@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

সেভিংসের সাতকাহন

 রবিউল কমল 
২৪ জুলাই ২০২১, ০৪:১৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নতুন চাকরিজীবীদের জন্য সেভিংস নিয়ে বিশেষ কিছু টিপস।

প্রথম থেকে সঞ্চয় সম্পর্কে সচেতন থাকলেই যে কোনো সময় যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে সহজ হবে। বিশেষ করে যারা নতুন কর্মজীবনে প্রবেশ করেছেন তাদের ক্ষেত্রে এ সঞ্চয় খুবই জরুরি। তাই শুরুতেই সঞ্চয় নিয়ে প্ল্যানিং করলে ভবিষ্যতে চলার পথটাও সুগম ও সহজ হবে।

চাকরি জীবনে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে ফিন্যান্সিয়াল জীবনে বেশ বড় ধরনের পরিবর্তন আসে। হঠাৎ করে খরচ বেড়ে যায়। কিন্তু ভবিষ্যৎ জীবনে অর্থনৈতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার জন্য এ সময়ে ক্রয়ক্ষমতার সঙ্গে তাল মিলিয়ে লাইফস্টাইলে পরিবর্তন না এনে সেভিংসের দিকে বিশেষ নজর দেওয়া উচিত।

# কর্মজীবনের শুরুতেই মানি ম্যানেজমেন্টের দিকে নজর দিন। আপনার বর্তমান লাইফস্টাইল অনুযায়ী একটা বাজেট তৈরি করুন সবার আগে। সেই তালিকায় আপনার প্রয়োজনীয় প্রত্যেকটি বিষয় যেন থাকে। বিশেষ করে আপনার যাতায়াত খরচের কথা ভুলে যাবেন না।

# চাকিরর প্রথম তিন মাস আপনাকে লক্ষ্য রাখতে হবে আপনার প্রয়োজনীয়, অতিপ্রয়োজনীয় খরচ কতটা। সেক্ষেত্রে এই তিন মাসের পুরো হিসাবটা খাতায় লিখে রাখুন। এ হিসাব বিশ্লেষণ করেই আপনি আপনার বাজেট করে ফেলতে পারবেন। আপনার তৈরি করা বাজেট অনুযায়ী নিজেকে অভ্যস্ত করে তুলুন আস্তে আস্তে।

# সম্ভব হলে আপনার বেতনকে মোটামুটি চার ভাগে ভাগ করে নিন। নিয়মিত খরচের জন্য রাখুন দুই ভাগ, একভাগ রাখুন প্রয়োজনীয় এবং পছন্দের কেনাকাটা জন্য ও আর বাকি এক ভাগ রাখুন সেভিংসের জন্য।

# প্রথম কয়েক মাস সেভিংস করার পর তা থেকে ইনভেস্ট করার চেষ্টা করুন কিছু ভবিষ্যৎ প্রকল্পে। কোন ধরনের পলিসি আপনার জন্য উপযুক্ত সে ব্যাপারে ভালো করে খোঁজখবর নিন।

# সেভিংসের জন্য রাখা নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া খরচ করবেন না। বরং চেষ্টা করুন প্রতি মাসে আপনার স্থায়ী বাজেট থেকে কিছু সঞ্চয় করতে।

# সেলারি অ্যাকাউন্ট সবসময় আলাদা রাখা উচিত। যদি পারিবারিক সূত্রে বা অন্য কোনোভাবে কোনো অর্থ পেয়ে যান, তবে তা সেলারি অ্যাকাউন্টে রাখবেন না। আলাদা একটা অ্যাকাউন্ট খুলে তাতে রাখুন।

# আপনার মাসিক কেনাকাটার জন্যে যে বাজেট রেখেছেন  তার মধ্যেই বিনোদনের জন্য বাজেট রাখুন। কোনো মাসে কেনাকাটা বেশি হয়ে গেলে বিনোদনের বাজেট কাট করুন।

# প্রমোশন হলে খরচের হাত সেই পরিমাণে বাড়িয়ে ফেলবেন না। বরং বর্ধিত টাকা সেভ করার চেষ্টা করুন। প্রথম জীবনে একটু হিসেবি হলে বাকি জীবনটা অনায়াসে সুখে-শান্তিতে কাটিয়ে দিতে পারবেন। বিপদে পড়লে খুব সহজে তা মোকাবেলা করতে পারবেন।

# ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারের ক্ষেত্রে খেয়াল রাখবেন কখনই যেন ক্রেডিটের পরিমাণ রিপেমেন্ট ক্যাপাসিটির বাইরে না চলে যায়।

[প্রিয় পাঠক, আপনিও দৈনিক যুগান্তর অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফস্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, এখন আমি কী করব, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন-jugantorlifestyle@gmail.com-এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]
যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন