বইমেলায় ফারুক হোসেনের নতুন তিনটি বই

  হোসাইন এমরান ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১৯:৪২ | অনলাইন সংস্করণ

বইমেলা

আমাদের শিশুসাহিত্যে ফারুক হোসেন একটি সুপরিচিত ও জনপ্রিয় নাম। সত্তর দশকের অপরাহ্ন থেকে অনবরত লিখছেন তিনি। লিখছেন ছড়া, গল্প, প্রবন্ধ এবং ভ্রমণ রচনা। মোট কথা শিশু সাহিত্যের সবকটি শাখায় তার উজ্জ্বল অবস্থান সর্বজনবিদিত। লেখালেখির জগতে ছড়া নিয়ে সাহিত্যে প্রবেশ করে আলোড়ন তুলেছিলেন তিনি।

এবারের বইমেলায় লেখকের তিনটি নতুন বই বইমেলায় এসেছে। 'ছোটো ছোটো ছড়া' বইটি প্রকাশ করেছে চন্দ্রাবতী একাডেমি, প্রচ্ছদ করেছেন সুব্রত চৌধুরী, মূল্য ৩০০ টাকা। বইটি পাওয়া যাবে ২৩৬-৩৩৮নং স্টলে। '৮০০ ছড়া' প্রকাশ করেছে অনন্যা, প্রচ্ছদ এঁকেছেন ধ্রুব এষ, মূল্য ৬০০টাকা। বইটি পাওয়া যাবে ১৫নং পেভিলিয়নে। 'পানামা রহস্য' প্রকাশ করেছে বাবুই, প্রচ্ছদ এঁকেছেন আলমগীর জুয়েল। বইটি পাওয়া যাবে শিশু কর্নার ৫৫৭নং স্টলে। এছাড়া 'চোখ মেলে দেখি' য়ারোয়া প্রকাশনা থেকে বেরোনোর অপেক্ষায় রয়েছে।

বইমেলায় কথা কথা হয় লেখকের সঙ্গে। জানতে চাওয়া হয় সাহিত্যের অন্যান্য শাখার চাইতে শিশুসাহিত্যের সঙ্গে পাঠকের সখ্য তুলনামূলক বেশি থাকার কথা। শিশুসাহিত্যের বর্তমান অবস্থা কি সে রকম?

সাহিত্যের অন্যান্য শাখার চাইতে শিশুসাহিত্যের সঙ্গে পাঠকের সখ্য এখনও তুলনামূলকভাবে বেশি। শিশুসাহিত্য সব বয়সী পাঠকেরা পড়ে। কিন্তু বড়দের সাহিত্য শিশু-কিশোররা পড়ে না। অপরদিকে ছোটদের বইমেলায় নিয়ে যাওয়া, মেলায় বইয়ের সঙ্গে পরিচয় করে দেয়া, বইমেলা ও ভাষা সংগ্রামের ইতিহাস সম্পর্কে তাদের ধারণা দেয়া, তারপর বই কিনে দেয়া এবং সম্ভব হলে লেখকের সঙ্গে পরিচয় করে দেয়া এবং তার অটোগ্রাফ গ্রহণ করা, এই প্র্যাকটিসগুলো ছোটদের ঘিরেই লক্ষণীয়। সুতরাং ছোটদের আগমন মেলায় বেশি অথবা ছোটদের উপলক্ষ করে বড়দের মেলায় আগমন। সবমিলিয়ে ছোটদের ব্যাপারটিই

বইমেলায় বেশি সংশ্লিষ্ট। তবে ঠিক, সেই বিবেচনায় শিশুসাহিত্যের বর্তমান অবস্থা সে রকম কি না, এটি পরীক্ষা করে দেখার বিষয়। তবে ধারণা হচ্ছে তা নয়। নির্ভুল বই প্রকাশ, বিষয় বৈচিত্র্য ও আকর্ষণ, মানসম্পন্ন উৎপাদন এবং ছোটদের একসেস-এসব ধনাত্মক নয়। আর এটি দেখারও কেউ নেই। যে

যেভাবে পারছে লিখছে, বই প্রকাশ করছে, কিন্তু ছোটদের জন্য এ রকম উদাসীনতা গ্রহণযোগ্য নয়।

বইমেলায় যত মানুষের আগমন হয় সেই তুলনায় বইয়ের বিক্রি নিয়ে আপনার মন্তব্য কি?

আমাদের এই বইমেলা শুধুই বই বিক্রয়ের জন্য নয়। এটি একটি উৎসব। কেউ কিনতে আসবে, কেউ দেখতে আসবে, কেউ আড্ডা দিতে আসবে। এই মেলা শুধু ক্রেতার নয় বলেই লোকসমাগমের সমতুল্যসংখ্যক বই বিক্রয় হবে বলা যায় না। আবার কেনার ইচ্ছেও সামর্থ্য ও সংরক্ষণযোগ্য জায়গার ওপরও নির্ভর করে।

বাচ্চাদের বইয়ের স্টল বিন্যাসের ক্ষেত্রে বিশেষ কোনো পরামর্শ আছে?

ছোটদের জন্য নির্ধারিত কর্নার বা ব্লক থাকা একটি সঠিক উদ্যোগ। কিন্তু এই জায়গার স্টল বিন্যাস, সাজসজ্জা, সুবিধাদি, বই প্রদর্শনের স্টাইল ইত্যাদি আরও আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে। শুধু ঘোষণা দিয়েই একটি শিশু কর্নার যথেষ্ট নয়। যাতে ছোটদের জন্য প্রকৃত অর্থে একটি রঙিন বইয়ের জগৎ উপহার দেয়া সেভাবেই কাজগুলো করতে হবে।

র্ভাচুয়াল যুগে বইয়ের ভবষ্যিৎ সম্পর্কে আপনার মূল্যায়ন কি?

বইয়ের হার্ড ফর্ম পৃথিবী যত দিন থাকবে, তত দিন অক্ষুণ্ণ থাকবে। অম্লান থাকবে। সফট ফর্মের যে কোনো বস্তুই একসময় অচল হয়ে যাবে। কিন্তু বই সারা জীবনই ঘরে, পাঠাগারে, আর্কাইভে জীবন্ত থাকবে। সেদিক থেকে বইয়ের ভবিষ্যৎ আগের মতোই আছে। অন্যদিকে প্রকৃত পাঠকের জন্য বইয়ের

কদর অপরিবর্তিত আছে। বই স্পর্শ করা, অন্তর দিয়ে পড়া ও ভাব অনুভব করা, বইয়ের গন্ধ নেয়া, ছাপার অক্ষরকে প্রাণ ভরে দেখা এবং

বইকে বুকে জড়িয়ে ধরা এসব উপভোগের সুযোগ একমাত্র হার্ড ফর্মের বইতেই আছে।

বইমেলায় আসা আপনার বইয়ের কেমন সাড়া পাচ্ছেন?

ছোটদের জন্য আমার তিনটি বই এসেছে। চন্দ্রাবতী একাডেমি থেকে ”ছোটো ছোটো ছড়া”, বাবুই থেকে ”পানামা রহস্য”, এবং অনন্যা থেকে ”৮০০ ছড়া”। ছোটো ছোটো ছড়া এবং গল্পের বইয়ের বিক্রি হচ্ছে বেশ। ৮০০ ছড়ার ক্রেতা সুনির্দিষ্ট তাই এর বিক্রিও সীমিত। আরেকটি বই ”চোখ মেলে দেখি” য়ারোয়া থেকে বেরোনোর কথা আছে। এটি ভ্রমণ রচনা।

পাঠক হিসেবে এবারের মেলায় আপনার পছন্দের কয়েকটি বইয়ের নাম বলবেন?

ছোটদের জন্য এবার বই মেলায় উল্লেখযোগ্য দুটি বই হচ্ছে, আনিসুজ্জামানের কথায় কথায়, এবং সেলিনা হোসেনের লারার মেঘের ভেলা। আমীরুল ইসলামের দেশি রঙ্গে বিদেশি ছড়া এবারের মেলার একটি উল্লেখযোগ্য সংযোজন। তবে উল্লেখযোগ্য বইয়ের নাম বলতে, আরও অপেক্ষা করতে হবে। এখনও আমি পুরো মেলার বই সম্পর্কে খবর নিতে পারিনি।

ঘটনাপ্রবাহ : বইমেলা-২০১৮

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter