সিটি আনন্দ আলো পুরস্কার পেলেন মিষ্টি মারিয়া

প্রকাশ : ২৮ মার্চ ২০১৮, ২১:৫১ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

দোয়েল প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত জীবনের প্রথম বই ক্যাটাগরিতে 'কন্যা' বইটির জন্য আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার পেলেন মিষ্টি মারিয়া।

চলতি বছরের ২২ মার্চ পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানটি চ্যানেল আইতে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান, চ্যানেল আইয়ের কর্ণধার ফরিদুর রেজা সাগর, আনন্দ আলোর সম্পাদক রেজানুর রহমান, বিশিষ্ট শিশু সাহিত্যিক আমিরুল ইসলাম, নাট্যকার ও বিজ্ঞাপন নির্মাতা আফজাল হোসেন, বিশিষ্ট নাট্যকার ও মঞ্চ অভিনেতা রামেন্দু মজুমদার, গবেষক ও লেখক তাপস কর্মকার, সিটি ব্যাংকের কর্মকর্তাসহ প্রমুখ।

মিষ্টি মারিয়া একজন অভিনেত্রী, নৃত্যশিল্পী ও উপস্থাপিকা। তার ব্যস্ততার মাঝে বই লেখা সবাইকে চমক লাগানোর মতো।

মিষ্টি মারিয়া নিজের লেখা বই সম্পর্কে বলেন, কন্যা বইতে মা ও মেয়ের ভালোবাসা আছে । পরিবারে কী করে মেয়েরা জেন্ডার বৈষম্যের শিকার হয়। এখানে রয়েছে এক ভিন্ন স্বাদের যুদ্ধ। কিভাবে অস্ত্র ছাড়াই পরিশ্রম ও সাধনা দিয়ে জীবন যুদ্ধে জয়ী হওয়া যায়। এক পারিবারিক গল্প নিয়ে কন্যার কাহিনী বিন্যাস।

মিষ্টি মারিয়ার অভিনীত কয়েকটি চলচিত্র সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি জানান, তার অভিনীত কয়েকটি চলচিত্র মুক্তির পথে রয়েছে। সেগুলো হচ্ছে ' মানুষ কেন অমানুষ হয়', কবে হবে দেখা, এই ছবি দুটিতে কাজ করছেন তিনি। এর মধ্যে 'মানুষ কেন অমানুষ হয়' ছবিটি শীঘ্রই মুক্তি পাবে বলে তিনি জানান।

মিষ্টি মারিয়া বলেন, সবার কাছে আমি কৃতজ্ঞ। যাদের ভালোবাসা এবং সহযোগিতা আমাকে এতদূর নিয়ে এসেছে। এ সাহিত্য পুরস্কার আমার একার নয় যারা বইটি নিয়ে অনেক পরিশ্রম করেছেন প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত পাশে ছিলেন আমি তাদের সবাইকে পুরস্কারটি উৎসর্গ করলাম।

তিনি বলেন, আমি ধন্যবাদ জানাই তাপস কর্মকার ও জহিরুল ইসলাম তালুকদারকে সবসময় তারা আমার পাশে ছিলেন। এ ছাড়া আমি বিশেষভাবে কৃতজ্ঞ সিটি আনন্দ আলো ও চ্যানেল আই পরিবারের কাছে আমাকে এই বিশেষ সম্মাননার জন্য।

মিষ্টি মারিয়া বলেন, সিটি আনন্দ আলো সাহিত্য পুরস্কার আমার জীবনের জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি, যা আমার লেখার ও কাজের গতিকে কয়েক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে।