মননশীল সাহিত্যে আমরা পিছিয়ে আছি

  যতীন সরকার ২৩ জুলাই ২০২০, ২৩:৪০:৩৫ | অনলাইন সংস্করণ

দেশবরেণ্য বুদ্ধিজীবী ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক যতীন সরকার। সাহিত্য, দর্শন, সমাজ, সংস্কৃতি ও রাজনীতি বিষয়ে প্রায় অর্ধশত বই প্রকাশিত হয়েছে তার।

সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সম্মান স্বাধীনতা পুরস্কার, বাংলা একাডেমি পুরস্কারসহ অসংখ্য সম্মাননা অর্জন করেছেন। ঐতিহ্যবাহী সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘উদীচী’র সভাপতি এবং ত্রৈমাসিক জার্নাল ‘সমাজ-অর্থনীতি-রাষ্ট্র’-এর সম্পাদক ছিলেন। বাগ্মী হিসেবেও তিনি খ্যাতিমান।

যুগান্তর: এই মহামারী সময়ে কী লিখছেন কী পড়ছেন?

যতীন সরকার: করোনা মহামারী শুরু হওয়ার আগে থেকেই আমি খুব অসুস্থ। কোনো কিছু পড়তে বা লিখতে পারি না। ২০১৯ সালের বইমেলায় আমার সর্বশেষ বই প্রকাশিত হয়েছে। কোনোরকমে পত্রিকা পড়ার চেষ্টা করি।

যুগান্তর: করোনা পরবর্তী পৃথিবীর মানুষের কী ধরনের মানসিক পরিবর্তন হতে পারে?

যতীন সরকার: করোনা মানুষকে বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছে। এ বিছিন্নতা খুব ভয়ংকর। আমি আশাবাদী যে করোনার প্রতিষেধক আবিষ্কৃত হবে। করোনা পরবর্তী পৃথিবীতে মানুষের মনোজগতে পরিবর্তন আসবে এবং নতুন সমাজব্যবস্থা গড়ে উঠবে বলে আমি মনে করি।

যুগান্তর: বিশ্বসাহিত্যের পরিপ্রেক্ষিতে বর্তমান বাংলাসাহিত্যের অবস্থান কেমন?

যতীন সরকার: বিশ্বসাহিত্যের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাসাহিত্য খুব বেশি পিছিয়ে নেই।

যুগান্তর: বর্তমানে বাংলাদেশের সাহিত্যে ভালো লেখকের অভাব নাকি ভালো মানের পাঠকের অভাব?

যতীন সরকার: ভালো লেখক ও ভালো পাঠকের অভাব কখনই ছিল না, এখনও নেই। তবে ভালো লেখকের পরিচয় সবসময় সমকালে ধরা পড়ে না, পরবর্তীকালে ধরা পড়ে।

যুগান্তর: যাদের লেখা সমাজে ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে জীবিত এমন তিনজন লেখকের নাম

যতীন সরকার: হাসান আজিজুল হক, বদরুদ্দীন উমর ও মোরশেদ শফিউল হাসান।

যুগান্তর: লেখক হিসেবে বহুল আলোচিত কিন্তু আপনার বিবেচনায় এদের নিয়ে এতটা আলোচনা হওয়ার কিছু নেই এমন তিনজন লেখকের নাম।

যতীন সরকার: প্রযোজ্য নয়।

যুগান্তর: এখানে গুরুত্বপূর্ণ লেখকরা কী কম আলোচিত? যদি সেটা হয়, তাহলে কী কী কারণে হচ্ছে? এমন তিনটি সমস্যার কথা উল্লেখ করুন

যতীন সরকার: গুরুত্বপূর্ণ লেখকরা কম আলোচিত বলে আমি মনে করি না।

যুগান্তর: সাহিত্য থেকে হওয়া আপনার দেখা সেরা সিনেমা।

যতীন সরকার: পথের পাঁচালী।

যুগান্তর: জীবিত একজন আদর্শ রাজনীতিবিদের নাম বলুন।

যতীন সরকার: মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম।

যুগান্তর: দুই বাংলার সাহিত্যে তুলনা করলে বর্তমানে আমরা কোন বিভাগে এগিয়ে কোন বিভাগে পিছিয়ে?

যতীন সরকার: সৃজনশীল সাহিত্যে আমরা তেমন পিছিয়ে নেই। তবে মননশীল সাহিত্যে পিছিয়ে আছি।

যুগান্তর: একজন অগ্রজ এবং একজন অনুজ লেখকের নাম বলুন, যারা বাংলাসাহিত্যের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

যতীন সরকার: আহমদ রফিক ও জাকির তালুকদার।

যুগান্তর: এমন দুটো বই, যা অবশ্যই পড়া উচিত বলে পাঠককে পরামর্শ দেবেন।

যতীন সরকার: রবীন্দ্রনাথের ‘কালান্তর’ ও নজরুলের ‘অগ্নিবীণা’।

যুগান্তর: লেখক না হলে কী হতে চাইতেন।

যতীন সরকার: লেখক হতে চাইনি, হতে চেয়েছি শিক্ষক। শিক্ষক হয়েছি এবং আমার লেখা শিক্ষকতার আদর্শ থেকেই প্রকাশিত হয়েছে।

যুগান্তর: আপনার সবচেয়ে ভালো লাগার বিষয়, সবচেয়ে খারাপ লাগার বিষয়।

যতীন সরকার: মানুষের আশাবাদ সবচেয়ে ভালো লাগে, মানুষের নৈরাশ্যবাদ সবচেয়ে খারাপ লাগে।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত