এক টুকরো প্রোটিনের হাহাকার

প্রকাশ : ২৭ এপ্রিল ২০১৮, ২১:৪৩ | অনলাইন সংস্করণ

  ডা. শরীফ উদ্দিন

বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্সে 'এভেঞ্জার' মুভি দেখার জন্ দর্শকদের লাইন

এই ক্লান্ত শহরে অফিসফেরত মানুষের ভিড়, হুড়োহুড়ি, বাসের জন্য ঘর্মাক্ত অপেক্ষমাণ মুখ আর টিকে থাকার লড়াই করতে করতে দিন শেষে ভেঙে পড়া মধ্যবিত্ত মানুষের ঢল দেখতে দেখতে আপনি ধারণা করতেও পারবেন না শহরের আরেক প্রান্তে ভীনদেশি 'এভেঞ্জার' মুভি দেখার জন্য লাইন ধরে অপেক্ষমাণ একদল তরুণ-তরুণী।

একই শহরে মাঝখানে সেমিপারমিয়েবল মেমব্রেন নিয়ে পাশাপাশি বাস করে যায় একদল ‘দেবদূত’ আর এক টুকরো প্রোটিনের হাহাকার আর প্রত্যাশায় যুদ্ধ করে যাওয়া বনী আদম। পর্দার এক পাশ থেকে অন্যপাশে যাওয়ার জন্য ওত পেতে ছিদ্র খুঁজছেন আপনি, যিনি এই লেখাটি পড়ছেন আর ভাগ্য যার লিখনকে পেন্ডুলামের মতো এপাশ-ওপাশ দোলাচ্ছে বারবার।

এর মধ্যে পর্দাটাকেই পুরোপুরি ছিদ্র করে এপাশ-ওপাশ এক করে দেয়ার স্লোগান দিয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর মিছিল নিয়ে শহরের তপ্ত রোদে পিকনিক মুডে এগিয়ে যায় বিপ্লবী মিছিল। কেমন শীর্ণকায় লাগে বিপ্লব কিংবা বিপ্লবের স্বপ্নকেও।

মধুর ক্যান্টিন কিংবা রাজু ভাস্কর্যের পাশে কোটা সংস্কার কিংবা বাতিলের সংবাদ সম্মেলনকে কেমন যেন ক্যারিকেচার মনে হয়। এই জীবনের নানা আয়োজনে সম্পূর্ণ অপ্রাসঙ্গিক আপনি কেবল মাখন কিংবা রুটির স্বপ্নে বিভোর নিজের ভবিষ্যৎ চিন্তায় ব্যাকুল নিজের দিকে তাকিয়ে বিবমিষায় আক্রান্ত হন।

কেবল নিজের মধ্যে নিজেকে গুটিয়ে নেয়া আপনি ফেসবুকের এই মচ্ছব বা হোমপেজে ভাসতে থাকা পল্টন ময়দানের আবেশে কেবল হতাশায় আকুপাকু খান। কৈশোরে নসীম হিজাজির সীমান্ত ঈগল অথবা গুরাবা হওয়ার স্বপ্ন দেখতে দেখতে আপনি এখন আলবেয়ার কাম্যুর আউটসাইডার অথবা গ্রেগর সামসার মতো তেলাপোকা হয়ে যাচ্ছেন।
এই মেটামরফোসিসের সামনে দাঁড়িয়েও আপনার মনে হয়, কী অপূর্ব এই জীবন!

তীব্র আনন্দস্রোতে আপনার ভেসে যেতে ইচ্ছে হয়। ইউটিউবে মোটিভেশনাল স্পিকারদের ভণ্ডামি দেখতেও আপনার ক্লান্ত লাগে না।

স্রষ্টার বিপুল রহমতে ছেয়ে যায় জীবন। আপনার আরও বহুদিন বেঁচে থাকতে ইচ্ছে হয়।

লেখক: ডা. শরীফ উদ্দিন, লেখক ও অনলাইন এক্টিভিস্ট