মইনুলের স্বাস্থ্যের অবস্থা জানাতে হাইকোর্টের নির্দেশ

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ১৪:২৯:১৫ | অনলাইন সংস্করণ

ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন। ফাইল ছবি

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও বিশিষ্ট আইনজীবী ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের স্বাস্থ্যের অবস্থা আগামী রোববারের মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষকে জানাতে বলেছেন আদালত।

ব্যারিস্টার মইনুলের পক্ষে করা পৃথক দুটি আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবীরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন।

একই সঙ্গে রংপুর থেকে অন্য কোনো জেলায় স্থানান্তর করার সময় ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনকে যথাযথ নিরাপত্তা দেয়ার মৌখিক নির্দেশও দিয়েছেন আদালত।

মইনুল হোসেনকে আদালত প্রাঙ্গণে হামলার ঘটনায় তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে নিষ্ক্রিয়তা চ্যালেঞ্জ করে এবং নিজ খরচে তাকে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দিতে নির্দেশনা চেয়ে তার স্ত্রী সাজু হোসেন বুধবার দুটি রিট করেন।

আদালতে মইনুল হোসেনের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, আবদুর রহিম ও মাসুদ রানা। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী জিনাত হক।

আজ রিট আবেদন দুটি শুনানির জন্য ওঠে। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সময়ের আরজি জানান। আদালত রোববার পরবর্তী দিন ধার্য করেন।

উল্লেখ্য, সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টিকে নিয়ে ১৬ অক্টোবর মধ্যরাতে একাত্তর টিভির একটি অনুষ্ঠানে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করায় মইনুল হোসেনের বিরুদ্ধে ২২ অক্টোবর রংপুরে মামলা করেন নারী অধিকারকর্মী মিলিমায়া বেগম।

ওই মামলায় ২২ অক্টোবর সন্ধ্যায় সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন গ্রেফতার হন। পরে তাকে আদালতে নিয়ে জামিন আবেদন জানালে তা নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক।

এ ঘটনায় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে মইনুলের বিরুদ্ধে এখন পর্যন্ত ২২টি মামলা হয়েছে। এর মধ্যে ২০টি মানহানির মামলা এবং অপর দুটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলা।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত