সংরক্ষিত মহিলা আসনে অগ্রাধিকার যেসব জেলা

  রেজাউল করিম প্লাবন ১৬ জানুয়ারি ২০১৯, ০৯:৪৬ | অনলাইন সংস্করণ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। ছবি: যুগান্তর

একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে প্রার্থী বাছাই প্রক্রিয়া গুছিয়ে এনেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

সংরক্ষিত আসনে দশম সংসদে স্থান না পাওয়া ২৫টি জেলাকে অগ্রাধিকার দিয়ে প্রাথমিক তালিকার একটি খসড়া করেছেন দলটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এতে আছেন পুরনোদের কয়েকজন।

পাশাপাশি বিভিন্ন পেশার পরিচিত মুখ, দলে অবদান রাখা প্রয়াত নেতাদের সহধর্মিণী-সন্তান এবং সমাজে বিশেষ অবদান রাখা নারীদের নাম আছে এ খসড়ায়। এছাড়া ১৪ দলের শরিক দলগুলো থেকে মনোনয়ন দিতে ইতিমধ্যেই প্রার্থীর নাম চাওয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী সূত্রে জানা গেছে এসব তথ্য।

সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়ন প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান যুগান্তরকে বলেন, যেসব জেলা থেকে দশম জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন দেয়া হয়নি, সেসব জেলা এবার অগ্রাধিকার পাবে।

এসব জেলার প্রার্থী নির্ধারণে যোগ্যতাকেই বেশি গুরুত্ব দিয়ে কাজ করা হচ্ছে। এর বাইরেও দলে ও সমাজে বিশেষ অবদান রাখা, সামাজিক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে সম্পৃক্ত ও শিক্ষাগত যোগ্যতাও দেখা হবে প্রার্থীদের।

বিদ্যমান আইন অনুযায়ী, সরাসরি ভোটে জয়ী দলগুলোর আসন সংখ্যার অনুপাতে নারী আসন বণ্টন করা হয়। আনুপাতিক প্রতিনিধিত্ব পদ্ধতিতে এবার ৫০টি সংরক্ষিত আসনের মধ্যে আওয়ামী লীগ পাবে ৪৩টি।

বিরোধী দল- জাতীয় পার্টি ৪টি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ১টি এবং স্বতন্ত্র ও অন্যান্য দল মিলে ২টি আসন পাবে।

নিয়ম অনুযায়ী প্রতি ৬টি আসনের বিপরীতে যে কোনো দল বা জোট ১টি সংরক্ষিত আসন পেয়ে থাকে। সে হিসাবে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ, বিকল্পধারাসহ অন্যদের কোনো সংরক্ষিত আসন পাওয়ার সম্ভাবনা নেই। তবে এক্ষেত্রে ক্ষমতাসীনরা নিজেদের কয়েকটি আসন শরিকদের জন্য ছাড় দেয়ার চিন্তা-ভাবনা করছে।

আওয়ামী লীগের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, দশম সংসদে সংরক্ষিত নারী আসন না পাওয়া ২৫ জেলার জন্য ২৫টি আসন রাখা হয়েছে। ঢাকায় এবার দুটি আসন কমিয়ে ৬টি করার চিন্তা করা হচ্ছে। সে হিসেবে বাকি ১২টি আসনে জাতীয় পর্যায়ে পরিচিত মুখ, বিভিন্ন পেশাজীবী ও আলোচিত নারী ও পুরনোদের মধ্য থেকে মনোনয়ন দেয়া হবে।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম ও দলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক যুগান্তরকে বলেন, সংরক্ষিত মহিলা আসনে যোগ্যতম প্রার্থী অনুসন্ধান করা হচ্ছে।

যারা দলের ও সরকারে দুর্দিনে ত্যাগ শিকার করেছেন, বিভিন্ন কাজে অবদান রেখেছেন দলের ও দলের সহযোগী সংগঠনে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন- এমন জনপ্রিয় নেত্রীরা আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাবেন।

নেত্রী (শেখ হাসিনা) এমন গুণসম্পন্ন কর্মীর তালিকা তৈরি করছেন। তিনি আরও বলেন, দলীয় সভাপতির ঘোষণা অনুযায়ী দশম সংসদে যেসব জেলা সংরক্ষিত এমপি বঞ্চিত হয়েছেন, সেসব জেলা থেকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে।

দশম জাতীয় সংসদে ৫০ জন সংরক্ষিত মহিলা এমপির মধ্যে আওয়ামী লীগের ৪২, জাতীয় পার্টি ৬ এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল ও ওয়ার্কার্স পার্টির ১ জন করে প্রতিনিধি আছে।

৩৯টি জেলা থেকে এই ৫০ জন এমপি নির্বাচিত করে সংশ্লিষ্ট দলগুলো।

সংরক্ষিত আসনবঞ্চিত বাকি ২৫টি জেলা হল- পঞ্চগড়, দিনাজপুর, জয়পুরহাট, বগুড়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ, নাটোর, পাবনা, ঝিনাইদহ, যশোর, খুলনা, বরিশাল, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, জামালপুর, নেত্রকোনা, গাজীপুর, সিলেট, মৌলভীবাজার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি এবং মানিকগঞ্জ।

দশম জাতীয় সংসদে শুধু ঢাকা জেলায় সংরক্ষিত মহিলা এমপি আছেন ৮ জন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের ৬ এবং বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল- জাসদের একজন করে এমপি আছে।

এর বাইরে চারটি জেলায় দু’জন করে এমপি আছে। এগুলো হচ্ছে- রংপুরে ২টি (আওয়ামী লীগ-১, জাতীয় পার্টি-১), সাতক্ষীরায় ২টি (আওয়ামী লীগ), চট্টগ্রামে-২টি (আওয়ামী লীগ-১, জাতীয় পার্টি-১) এবং কুমিল্লায়-২টি (আওয়ামী লীগ-১, জাতীয় পার্টি-১) আসন আছে।

একাদশ জাতীয় সংসদে এই ৪টি জেলা থেকে কাউকে মনোনয়ন না দেয়ার ব্যাপারে এক রকম নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটি। তবে এবারও ঢাকা জেলা থেকে কমপক্ষে ৫টি আসনে নতুন মুখ দেখা যেতে পারে জানায় সংশ্লিষ্ট সূত্র।

দশম জাতীয় সংসদের একাধিক সংরক্ষিত মহিলা আসনপ্রাপ্ত ৫টি জেলার বাইরে ৩৪টি জেলা আছে, যেখানে ১টি করে আসনে মহিলা এমপি আছে। জেলাগুলো হল- ঠাকুরগাঁও, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, গাইবান্ধা, রাজশাহী, সিরাজগঞ্জ, মেহেরপুর, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, মাগুরা, টাঙ্গাইল, বাগেরহাট, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ, শেরপুর, মুন্সীগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর, শরীয়তপুর, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, নড়াইল, ফেনী, কক্সবাজার, রাঙ্গামাটি, নরসিংদী, নারায়ণগঞ্জ, রাজবাড়ী, চাঁদপুর ও গোপালগঞ্জ।

এসব জেলার বিভিন্ন পেশায় পরিচিত মুখ- যারা সংসদে জোরালো ভূমিকা পালন করতে পারেন- এমন ৪ থেকে ৫ জনকে মনোনয়ন দিতে পারে আওয়ামী লীগ। সেখানে থাকতে পারে জোটের প্রার্থীও।

আরও জানা গেছে, সংসদের সরব উপস্থিতি ও কার্যকর ভূমিকা পালনে বেশ কয়েকজন পরিচিত মুখ ও নারীনেত্রীকে বিশেষ কোটায় মনোনয়ন দেবে আওয়ামী লীগ।

১৪ দলের শরিক, কিন্তু সংসদের বাইরে আছে- এমন দল থেকেও এবার মনোনয়ন দেয়া হবে। এক্ষেত্রে ‘সবুজ সংকেত’ পাওয়া একটি দলের সাধারণ সম্পাদক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, আমাদের কাছ থেকে একজন মহিলা প্রার্থীর নাম চাওয়া হয়েছে। আমরা দলের সর্বোচ্চ ফোরামে আলোচনা করে মনোনীত প্রার্থীর নাম আওয়ামী লীগের কাছে জমা দেব।

ঘটনাপ্রবাহ : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×