আবারও জেগে ওঠবে তুরাগ তীর!

  যুগান্তর ডেস্ক    ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৮:৫৭ | অনলাইন সংস্করণ

আবারও জেগে ওঠবে তুরাগ তীর। সে প্রত্যাশায় লাখো মুসল্লি। ফাইল ছবি।
আবারও জেগে ওঠবে তুরাগ তীর। সে প্রত্যাশায় লাখো মুসল্লি। ফাইল ছবি।

অবশেষে স্বস্তি ফিরল সবার মাঝে। বিশ্ব ইজতেমাকে নিয়ে শঙ্কা ছিল মানুষের মনে। সে আশঙ্কা এবার দূর হলো। আগামী ১৫ থেকে ১৮ ফেব্রুয়ারি আবার জেগে ওঠবে তুরাগ তীর।

বারবার বৈঠক ও দীর্ঘ আলোচনার পর অবশেষে ইজতেমার বিষয়ে একমত হয়েছেন তাবলিগের শীর্ষ মুরব্বিরা। তবে বিগত বছরগুলোর মতো তিন দিনে নয়, চার দিনে একপর্বে অনুষ্ঠিত হবে বিশ্ব ইজতেমা। তবে এ চার দিনে দুপক্ষ আলাদাভাবে ইজতেমায় অংশ নেবে। প্রথম দুদিনের ইজতেমা পরিচালনা করবেন কাকরাইলের শুরা সদস্য মাওলানা জুবায়ের। পরের দুদিন পরিচালনা করবেন আরেক শুরা সদস্য সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে তাবলিগের বিবদমান দুপক্ষের মুরব্বিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ অ্যাডভোকেট শেখ মো. আব্দুল্লাহ বলেন, বিশ্ব ইজতেমা আরও একদিন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। ফলে তিন দিনের পরিবর্তে চার দিনে অনুষ্ঠিত হবে বিশ্ব ইজতেমা।

তিনি বলেন, আগামী ১৫-১৮ ফেব্রুয়ারি ঐক্যবদ্ধভাবে অনুষ্ঠিত হবে ইজতেমা।

ইজতেমা পরিচালনার বিষয়ে শেখ মো. আব্দুল্লাহ বলেন, প্রথম দুদিন ইজতেমা পরিচালনা করবেন মাওলানা জুবায়ের এবং শেষের দুদিন ইজতেমা পরিচালনা করবেন সৈয়দ ওয়াসিফ ইসলাম।

আজকের সভার অন্যতম সিদ্ধান্ত হলো, এ বছরের বিশ্ব ইজতেমা সুষ্ঠু, সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে কেউ কারও বিরুদ্ধে উসকানি ও নিন্দামূলক কোনো বক্তব্য এবং বিবৃতি প্রদান করবেন না। তাবলিগ জামাতের ঐতিহ্য অনুসরণ করে ইসলামের খেদমতে সবাই মিলেমিশে কাজ করবেন।

এর আগে গত রোববার সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ইজতেমার আইনশৃঙ্খলা-সংক্রান্ত এক বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, ফেব্রুয়ারির নির্ধারিত সময়েই সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে ইজতেমা অনুষ্ঠিত হবে। তাবলিগ জামাতের মধ্যে যে বিভেদ ছিল, তা ইতিমধ্যেই মিটে গেছে। ইজতেমার প্রস্তুতি চলছে।

৩ ফ্রেব্রুয়ারি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে বৈঠকের পর ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিতীয় দফায় আবারও বসেছিলেন তাবলিগের উভয়পক্ষের দায়িত্বশীলরা। সে বৈঠকে ইজতেমার অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। তবে দুপক্ষ একসঙ্গে ইজতেমার দায়িত্ব বণ্টন নিয়ে সেদিন একমত হতে পারেননি।

এরপর ইজতেমা থেকে তাবলিগের একপক্ষ সরে আসতে পারে বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় গুঞ্জন ওঠে। সে প্রেক্ষিতে ইজতেমা আয়োজনের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে তাবলিগের বিবদমান দুপক্ষের মুরব্বিদের নিয়ে ফের বৈঠকে বসেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মো. আব্দুল্লাহ।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টায় সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সাদপন্থীদের পক্ষে ছিলেন সৈয়দ ওয়াসিফ ইসলাম ও মাওলানা মোশাররফ। অপরদিকে সাদবিরোধীদের পক্ষে ছিলেন মাওলানা জুবায়ের ও মাওলানা ওমর ফারুক।

ইজতেমা বিষয়ে দুপক্ষই নিজেদের দাবিতে অনঢ় ছিল। একসঙ্গে ইজতেমা করতে সম্মত হচ্ছিল না কোনো পক্ষই। তবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ও ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ শুরু থেকেই দুপক্ষকে একত্র করার চেষ্টা করেছেন। এ নিয়ে বারবার বৈঠক করেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ আব্দুল্লাহ।

গত ২৮ জানুয়ারি যুগান্তর অনলাইনে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছিলেন তাবলিগ বিষয়ে তার ঐক্য প্রচেষ্টার কথা।

যুগান্তরের সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, যেভাবেই হোক ইজতেমা একসঙ্গেই হবে। সে জন্য যা কিছু প্রয়োজন, আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। দুপক্ষকে মেলানোর জন্য সেদিন দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছিলেন তিনি।

মুখোমুখি অবস্থানে থাকা দুপক্ষকে মেলাতে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর প্রচেষ্টাকে অনেকে তার জন্য অগ্নিপরীক্ষা বলেছিলেন। সে পরীক্ষার সূচনাটা সুন্দরভাবেই উতরে গেছেন প্রবীণ এ রাজনীতিবিদ। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ধর্ম সম্পাদক থেকে বর্তমানে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া আলহাজ শেখ আব্দুল্লাহ কওমি স্বীকৃতিসহ বিভিন্ন বিষয়ে সফল ভূমিকা রাখায় ধর্মীয় অঙ্গনে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়। তাবলিগ জামাতের বিশ্ব ইজতেমা আয়োজনে বিবদমান দুপক্ষকে ঐকমত্যে আনায় তার সফলতায় আরেকটি অধ্যায় যুক্ত হলো।

ঘটনাপ্রবাহ : বিশ্ব ইজতেমা ২০১৯

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×