সেন্টমার্টিনকে নিজেদের ভূখন্ড দাবি: মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৪:১৬ | অনলাইন সংস্করণ

সেন্টমার্টিনকে নিজেদের ভূখন্ড দাবি: মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব
ছবি : সংগৃহীত

সেন্টমার্টিন দ্বীপকে ফের নিজেদের ভূখণ্ড হিসেবে মানচিত্রে দেখিয়েছে মিয়ানমার। এর প্রতিবাদে আজ বৃহস্পতিবার বিকালে ঢাকায় নিযুক্ত দেশটির ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করা হয়েছে।

রাষ্ট্রদূতকে তলবের বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব শহিদুল হক। তিনি জানান, মিয়ানমারের মানচিত্রে ফের বাংলাদেশের সেন্টমার্টিন দ্বীপকে নিজেদের ভূখণ্ডের অন্তর্গত দেখানো হয়েছে। আমরা মিয়ানমারের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূতকে ডেকেছি, তার কাছে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা চাওয়া হবে। দেখি তিনি কী জবাব দেন।

এর আগে গত বছরও মিয়ানমারের জনসংখ্যাবিষয়ক বিভাগের ওয়েবসাইটে সেন্টমার্টিনকে তাদের মানচিত্রে দেখানো হয়। সে সময়ও মিয়ানমারের কাছ থেকে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়। মিয়ানমার তখন জানিয়েছিল, তারা দেশের মানচিত্র তৈরির কাজ একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান দিয়ে করিয়েছে। ওই প্রতিষ্ঠানটি মানচিত্র তৈরিতে ভুল করে সেন্টমার্টিনকে নিজেদের ভুখন্ড হিসেবে দেখিয়েছে। পরে অবশ্য সেটি তাদের মানচিত্র থেকে সরিয়ে ফেলা হয়।

এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেন, মিয়ানমার মাঝে মাঝে উসকানি দেয়। তবে আমরা সেই উসকানিতে পা দিতে চাই না। আমরা সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশের মধ্য দিয়ে দুদেশের সম্পর্ককে আরও উন্নীত করার চেষ্টা করে যাচ্ছি।

প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রতিবেশি দেশ মিয়ানমারের সঙ্গে বাংলাদেশের টানাপোড়েন চলছে। মিয়ানমারের প্রায় ১১ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। তারা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে চুক্তি করলেও সেটির বাস্তবায়ন দৃশ্যমান হচ্ছে না।

ঘটনাপ্রবাহ : মিয়ানমারের মানচিত্রে সেন্টমার্টিন

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×