বিমানবন্দরে অস্ত্রসহ এবার আওয়ামী লীগ নেতা আটক

  যুগান্তর রিপোর্ট ১১ মার্চ ২০১৯, ২১:১৭ | অনলাইন সংস্করণ

অস্ত্রসহ এবার আওয়ামী লীগ নেতা আটক।
অস্ত্রসহ এবার আওয়ামী লীগ নেতা আটক। ছবি সংগৃহীত

অস্ত্র নিয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রবেশের অভিযোগে যশোরের চৌগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফুলসর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মেহেদী মাসুদ হোসেনকে আটক করেছে অ্যাভিয়েশন নিরাপত্তা সংস্থা এভসেক।

সোমবার বিকেলে তাকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। তাকে ফ্লাইট থেকে অফলোড করে সন্ধ্যায় গ্রেফতার দেখিয়ে থানায় সোপর্দ করা হয়।

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক উইং কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল ফারুক বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

বিমানবন্দর আর্মড পুলিশ সূত্রে জানা গেছে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি ঘোষণা না দিয়ে তার বৈধ অস্ত্র নিয়ে বিমানবন্দরে প্রবেশ করতে যাচ্ছিলেন। হ্যাভি লাগেজ গেটের স্ক্যানারে তারা অস্ত্রটি শনাক্ত হয়। লাগেজ গেট পার হওয়ার পরই মেহেদী হোসেনের কাছে তার ব্যাগে অস্ত্র আছে কিনা জানতে চান নিরাপত্তাকর্মীরা।

এ সময় মেহেদী বলেন, অস্ত্র আছে। সেটি তার বৈধ অস্ত্র। তিনি অস্ত্রটি সম্পর্কে ঘোষণা দিতে চান। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বলেন, এখন আর ঘোষণা দেয়ার কোনো ধরনের সুযোগ নেই। আর্চওয়ে পার হওয়ার আগেই গেটে এই ঘোষণা দেয়ার দরকার ছিল। ঘোষণা না দেয়ায় আপনাকে আটক করা হলো। এরপর তাকে বিমানবন্দর থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।

একের পর এক অস্ত্র ধরা পড়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে শাহজালালসহ দেশের সব বিমানবন্দরের নিরাপত্তাব্যবস্থা কড়াকড়ি করা হয়েছে। সোমবার বিমানবন্দরগুলোর ব্যবস্থাপককে ঢাকায় ডেকে এনে এ নির্দেশ দেয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এদিন সিভিল অ্যাভিয়েশন কর্তৃপক্ষ ও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ কর্মকতারা শাহজালালসহ দেশের সব বিমানবন্দর ব্যবস্থাপকদের সঙ্গে বৈঠক করেন। ঘোষণা ছাড়া কোনো যাত্রী অস্ত্র নিয়ে বিমানবন্দরের অভ্যন্তরে প্রবেশ করলেই তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেয়া হয়।

বৈঠকে আরও সিদ্ধান্ত হয় ভিভিআইপিসহ সব যাত্রীকে তল্লাশি করে আর্চওয়ের মাধ্যমে বিমানবন্দরে প্রবেশ করতে হবে। এ ছাড়া যেসব অস্ত্র ধরা পড়ার ঘটনা ঘটেছে, সে ব্যাপারে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণ করতে হবে।

এদিকে একের পর এক অস্ত্র নিয়ে বিমানবন্দরে প্রবেশের ঘটনা কেন্দ্র করে পুরো বিমানবন্দরে নিরাপত্তাব্যবস্থা কঠোর করা হয়েছে। এখন থেকে ঘোষণা ছাড়া কারো কাছ থেকে অস্ত্র (এক্সপ্লোসিভ) পাওয়া গেলেই তাকে আটক করা হবে বলে জানিয়েছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। এ কারণে এখন সব যাত্রীকেই তল্লাশি করা হচ্ছে আপাদমস্তক। এতে প্রায় বিমানবন্দরের প্রবেশমুখে ভিড় জমে যাচ্ছে। এখন আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে গেটের কাছে পৌঁছেই ঘোষণা দিচ্ছেন তার কাছে বৈধ অস্ত্র আছে।

তবে কিছু প্রভাবশালী ভিআইপি এ ধরনের তল্লাশিতে নাখোশ বলে জানিয়েছে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ। জানা গেছে রোববার সন্ধ্যায় এক প্রভাবশালী মন্ত্রী চট্টগ্রাম যাওয়ার জন্য বিমানবন্দরে পৌঁছান। হেভি লাগেজ গেট দিয়ে প্রবেশের সময় তাকে তল্লাশি করতে যান একজন নিরাপত্তাকর্মী। এতে তিনি চিৎকার দিয়ে বলে ওঠেন, আমি কী?

এদিকে একের পর এক অস্ত্র ধরা পড়ার ঘটনায় উদ্বিগ্ন কর্তৃপক্ষ বিমানবন্দরের নিরাপত্তাব্যবস্থা আরও জোরদার করতে সোমবার দেশের সব বিমানবন্দরের ম্যানেজারদের নিয়ে জরুরি বৈঠক করে সিভিল অ্যাভিয়েশন কর্তৃপক্ষ। সিভিল অ্যাভিয়েশনের সদর দফতরের কনফারেন্স রুমে দীর্ঘ চার ঘণ্টার এ বৈঠকে প্রত্যেক ম্যানেজারের কাছ থেকে নিরাপত্তাসহ সার্বিক পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চান চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল নাইম হাসান।

ক'জন ম্যানেজার বিমানবন্দরের সীমানা দেয়াল, জনবলের অভাব, ও যন্ত্রপাতি অপ্রতুলতা সম্পর্কে জানান। প্রত্যুত্তরে চেয়ারম্যান অবিলম্বে এসব সমাধানে পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দেন। নিরাপত্তাকর্মীরা জানিয়েছেন- সোমবার ঘোষণা দিয়ে যথাযথ প্রক্রিয়া মেনেই আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে শাহজালাল অভ্যন্তরীণ বিমান টার্মিনাল পেরিয়েছেন অন্তত ৭ জন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×