লাশ হয়ে নানার বাসায় ফিরল জায়ান

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১৩:৫৪ | অনলাইন সংস্করণ

লাশ হয়ে নানার বাসায় ফিরল জায়ান
ফাইল ছবি

শ্রীলংকায় রেস্তোরাঁয় সিরিজ বোমা হামলায় নিহত আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিমের নাতি জায়ান চৌধুরীর লাশ বাসায় পৌঁছেছে।

বুধবার বেলা দেড়টার দিকে ছোট্ট জায়ানের লাশবাহী গাড়ি বনানীতে শেখ সেলিমের বাসায় পৌঁছায়। আদরের নাতির লাশ বুঝে নেন নানা শেখ সেলিম।এসময় তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন।স্বজনরাও চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি। এসময় সেখানে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

জায়ান ছিল শেখ সেলিমের অত্যন্ত প্রিয়।বাবা-মায়ের সঙ্গে নানার বাসায়ই থাকত সে। রাজনৈতিক ব্যস্ততার মাঝেও নাতির জন্য সময় বরাদ্দ রাখতেন সেলিম।নানাকে দেখা মাত্রই জায়ান জড়িয়ে ধরে চুমু খেত।দূরত্ব সেই নাতির অকালে চলে যাওয়া মেনে নিতে পারছেন না শেখ সেলিম।

এর আগে বুধবার বেলা ১২টা ৪২ মিনিটে শ্রীলংকা থেকে জায়ানের লাশ বহনকারী উড়োজাহাজ ঢাকার হযরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছায়। লাশ ১টা ১০ মিনিটে আসার কথা থাকলেও আধা ঘণ্টা আগে এসে পৌঁছেছে।

বিমানবন্দরে শিশু জায়ানের লাশ গ্রহণ করেন শেখ সেলিমের স্বজনরা। সেখানে এক আবেগঘন পরিবেশ সৃষ্টি হয়। পরে লাশবাহী গাড়ি বনানীতে শেখ সেলিমের বাসার উদ্দেশে রওনা হয়। জায়ানের লাশের অপেক্ষায় বিমানবন্দর ও বনানীর বাসায় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরাও ভিড় করেন।

বাদ আসর বনানীর চেয়ারম্যানবাড়ি মাঠে জায়ানের জানাজা হবে। পরে বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

প্রসঙ্গত গত রোববার শ্রীলংকায় ভয়াবহ বোমা হামলায় সেখানে সপরিবারে বেড়াতে যাওয়া শেখ সেলিমের মেয়েজামাই মশিউল হক চৌধুরী গুরুতর আহত এবং তার নাতি জায়ান চৌধুরী নিহত হন। আট বছর বয়সী জায়ান রাজধানীর সানবিম স্কুলের ছাত্র ছিল।

ঘটনাপ্রবাহ : শ্রীলংকায় গির্জা ও হোটেলে সিরিজ হামলা

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×