স্বস্তিতে ঘরে ফিরছে মানুষ

  যুগান্তর ডেস্ক ০৩ জুন ২০১৯, ২১:১০ | অনলাইন সংস্করণ

সোমবার বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সংযোগ মহাসড়ক থেকে তোলা ছবি। স্টার মেইল
সোমবার বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম সংযোগ মহাসড়ক থেকে তোলা ছবি। স্টার মেইল

ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে ঢাকাসহ আশেপাশের জেলা। নাড়ীর টানে গ্রামের বাড়ি ফিরছে মানুষ। ঈদের আগে আজ শেষ অফিস। পোশাক কারখানাও ছুটি হয়ে গেছে। সবাই একসঙ্গে বাড়ি ফিরছে।

এতে সড়কে বেশ চাপ পড়েছে। যাত্রীর তুলনায় পরিবহন কম থাকায় যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ ওঠেছে। তবে কোথাও যানজট নেই। ফলে ঈদে ঘরমুখো মানুষ এ সড়কে স্বস্তিতে বাড়ি ফিরছে।

প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর:

টাঙ্গাইল: ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে গাড়ির চাপ থাকলেও সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কোথাও যানজট হয়নি। ফলে ঈদে ঘরমুখো মানুষ এ সড়কে স্বস্তিতে বাড়ি ফিরছে। তবে বিকেলে থেকে গাড়ির চাপ বেড়েছে।

টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শফিকুর রহমান জানান, স্বাভাবিক সময় ২৪ ঘণ্টায় ১১/১২ হাজার যানবাহন পারাপার হয়। রোববার সকাল ৬টা থেকে সোমবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত ২৪ হাজার ৫৬৭টি যানবাহন পারাপার হয়েছে।

সোমবার সারাদিন যানবাহনের চাপ থাকলেও ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের কোথাও যানজট হয়নি। অন্যান্যবার ঈদের ছুটি শুরু হওয়ার পরেই অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে এই মহাসড়কে জট লেগে যায়।

জেলা পুলিশ বিভাগ সূত্র জানায়, মহাসড়কের মির্জাপুরের গোড়াই থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত টাঙ্গাইল জেলার ৬৫ কিলোমিটার অংশে সাড়ে সাতশ পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

পুরো মহাসড়কে পাঁচটি সেক্টরে ভাগ করে প্রতিটি সেক্টরে একজন করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। নির্মাণাধীন যেসব আন্ডারপাসের এলাকায় যানজটের সম্ভাবনা রয়েছে সেখানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

টাঙ্গাইলের ট্রাফিক পরিদর্শক (টিআই) রফিকুল ইসলাম সরকার জানান, সোমবার গাজীপুর ও ঢাকার আশেপাশের পোশাক কারখানার ছুটি হয়েছে। তাই বিকাল থেকে এ সড়কে যানবাহনের চাপ বেড়েছে। কোনো দুর্ঘটনা না হলে যানজট হবে না বলে আশা করেন তিনি।

গোড়াই হাইওয়ে থানার ওসি একেএম কাউসার জানান, গাজীপুর অঞ্চলের আওতায় গোড়াই হাইওয়ে থানা পুলিশের সদস্যরা কালিয়াকৈর রেলক্রসিং উড়ালসেতু থেকে মির্জাপুরে ধেরুয়া রেলক্রসিং উড়ালসেতু পর্যন্ত দায়িত্বে নিয়োজিত আছে।

সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলাম ও পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় মহাসড়ক পরিদর্শন করেন।

পরিদর্শন শেষে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় জানান, ঘরমুখো মানুষ ঘরে না ফেরা পর্যন্ত তারা রাস্তায় থাকবেন। ঈদ যাত্রা শেষ না হওয়া পর্যন্ত পুলিশ মাঠ থেকে ফিরব না।

তিনি আরও জানান, যে সমস্ত জায়গায় চার লেন প্রকল্পের সড়ক ও আন্ডারপাস নির্মাণ কাজ হচ্ছে, সেসব জায়গায় যানজটের সৃষ্টি হতে পারে। এজন্য ওই জায়গাগুলোতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পাশাপাশি অজ্ঞান পার্টি, মলম পার্টি, ছিনতাই ও ডাকাতি রোধে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

শ্রীপুর (গাজীপুর): ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে গাড়ির চাপ থাকলেও সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত কোথাও যানজট হয়নি। তবে বিকালে থেকে গাড়ির চাপ বেড়েছে। সন্ধ্যা পর্যন্ত গাজীপুরের সড়ক, মহাসড়কে যানজটের খবর পাওয়া যায়নি।

ভোগড়া বাইপাস এলাকার স্কয়ার ফ্যাশনে চাকরি করেন নেত্রকোনা জেলার মদন উপজেলার খিত্তিপুর গ্রামের রফিকুল ইসলাম এবং পূর্বধলা উপজেলর আব্দুল মতিন। দুপুর ১টার দিকে তারা আসেন জয়দেবপুর রেল জংশনে। দুপুর ১২টার দিকে তাদের কারখানায় ঈদের ছুটি দিয়েছে।

রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রতিবারই তিনি গ্রামে বাড়িতে ঈদ উদযাপন করেন। বাড়িতে তার মা-বাবা ও বোন থাকেন। যানজটের আশঙ্কায় এক সপ্তাহ আগে স্ত্রী-সন্তানকে গ্রামের বাড়ি পাঠিয়ে দিয়েছেন।

তিনি জানান, গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার জয়দেবপুর জংশনে যাত্রীর চাপ কম দেখছেন। পোশাক শ্রমিকেরা কর্মস্থলে ছুটির পর থেকে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বাস ও রেল স্টেশনের দিকে ছুটে চলেছেন তারা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, গাজীপুর মহানগরীর শিল্পনগর কোনাবাড়ি, টঙ্গী, ভোগড়া, জিরানী, কাশিমপুর, চক্রবর্তী, চান্দনা চৌরাস্ত, বোর্ড বাজার, রাজেন্দ্রপুর, মাওনা, কালিয়াকৈর, মৌচাকসহ শিল্পাঞ্চলগুলো ক্রমশ ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে দুপুরের পর থেকে দলে দলে লোকজন ছুটে যাচ্ছেন বাস ও রেল স্টেশনের দিকে।

এদিকে বাস কিংবা রেল স্টেশনে যেতে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে বলে অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা ও সিএনজির বিরুদ্ধে।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক হয়ে যারা বাড়ি ফিরেছেন, তারা এবার ঈদে অতি স্বচ্ছন্দে যাত্রা করেছেন। এ মহাসড়কটি ফোর লেন হওয়ায় কোনো যানজট চোখে পড়েনি।

এবার ঈদে মহাসড়কের যানজট নিরসনে গাজীপুরের পুলিশের পক্ষ থেকে কমিউনিটি পুলিশ নিয়োগ করা হয়েছে। সেই সঙ্গে গাজীপুর জেলা পুলিশ, হাইওয়ে পুলিশও রয়েছে।

সালনা হাইওয়ে থানার ওসি মজিবুর রহমান জানান, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের কোনো স্থানে কোনো সমস্যা নেই। দিনভর থেমে থেমে বৃষ্টির কারণে সড়কে যানবাহন ধীরগতিতে চললেও ঈদে ঘরমুখো যাত্রীরা আনন্দে বাড়ি ফিরছে। মহাসড়কে যানজট একেবারেই নেই।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×