বিদেশে এজেন্টের কাছে বিমানের পাওনা ২০ কোটি
jugantor
বিদেশে এজেন্টের কাছে বিমানের পাওনা ২০ কোটি

  সংসদ রিপোর্টার  

১৭ জুন ২০১৯, ১৯:৫৬:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

সংসদ অধিবেশন। ফাইল ছবি

বিদেশে বিভিন্ন এজেন্টের কাছে বিমানের ২০ কোটি টাকা পাওনা রয়েছে। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পযটন মন্ত্রী মো. মাহবুব আলী বলেন, বিদেশে বাংলাদেশ বিমানের ২ হাজার ১৮৬টি ট্রাভেল এজেন্ট রয়েছে, তাদের মধ্যে ১৮টি এজেন্টের কাছে সংস্থাটির বকেয়া টাকার পরিমাণ ২০ কোটি ২ লাখ ৩৫ হাজার ৫৫৯ টাকা। এসব বকেয়া পাওয়া টাকা আদায়ে মামলা করা হয়েছে, যা বর্তমান চলমান রয়েছে।

সোমবার জাতীয় সংসদে চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেটে হাজী মো. সেলিমের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, কলকাতার মেসার্স কুকা ট্রাভেলসের কাছে ২১ লাখ ১০ হাজার ৬৬৯ টাকা, জেদ্দার আল হামরা ট্রাভেলের কাছে ৫ লাখ ৯২ হাজার ৯০৮ টাকা, জেদ্দার আলোকলবি ট্রাভেলের কাছে ৩৮ হাজার ৫৯২ টাকা, রিয়াদের মেসার্স অসফার ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজমের কাছে ৯ কোটি ৪০ লাখ ৩৭ হাজার ৫২২ টাকা, লন্ডনের মেসার্স ইউনাইটেড ট্রাভেলসের কাছে ২ কোটি ৭৬ লাখ ৫৫ হাজার ৩৮৭ টাকা, লন্ডনের মেসার্স বসুন্ধরার কাছে ১৮ লাখ ৪৪ হাজার ২৫৩ টাকা, লন্ডনের মেসার্স নীল আকাশের কাছে ৪৬ লাখ ৮২ হাজার ৭৯৯ টাকা, লন্ডনের মেসার্স কুশিয়ারার কাছে ৩ কোটি ৪২ লাখ ৯৮ হাজার ১৫ টাকা, লন্ডনের মেসার্স কেএমসি ট্রাভেলস লিমিটেডের কাছে ৩৩ লাখ ৮০ হাজার ৭৩৫ টাকা, লন্ডনের এইচএসি ট্রাভেলসের কাছে ১৮ লাখ ৬১ হাজার ৫০৩ টাকা, লন্ডনের মেসার্স এয়ার এক্সপ্রেস ট্রাভেলস এন্ড টুর্সের কাছে ৪১ লাখ ৪২ হাজার ১০৩ টাকা, কুয়েতের ইন্টারনিটি ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলসের কাছে ৩০ লাখ ৬৩ হাজার ৬৫১ টাকা, কুয়েতের সালওয়া ট্রাভেল এন্ড টুরিজমের কাছে ২ লাখ ৫৩ হাজার ৩৫ টাকা, কুয়েতের আল ফরওয়ানিয়া ট্রাভেলসের কাছে ১ লাখ ৬৪ হাজার ৫৩ টাকা, কুয়েতের রামসিস ট্রাভেলসের কাছে ৫ লাখ ১২ হাজার ৭৫ টাকা, কুয়ালালামপুরের মেসার্স তারা ট্রাভেলসের কাছে ১৭ লাখ ১১ হাজার ৫৪৯ টাকা ও দাম্মামের আল নাসের ট্রাভেলের কাছে ৫ কোটি ৪১ লাখ ৫৮৮ টাকা।

বিদেশে এজেন্টের কাছে বিমানের পাওনা ২০ কোটি

 সংসদ রিপোর্টার 
১৭ জুন ২০১৯, ০৭:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সংসদ অধিবেশন। ফাইল ছবি
সংসদ অধিবেশন। ফাইল ছবি

বিদেশে বিভিন্ন এজেন্টের কাছে বিমানের ২০ কোটি টাকা পাওনা রয়েছে। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পযটন মন্ত্রী মো. মাহবুব আলী বলেন, বিদেশে বাংলাদেশ বিমানের ২ হাজার ১৮৬টি ট্রাভেল এজেন্ট রয়েছে, তাদের মধ্যে ১৮টি এজেন্টের কাছে সংস্থাটির বকেয়া টাকার পরিমাণ ২০ কোটি ২ লাখ ৩৫ হাজার ৫৫৯ টাকা। এসব বকেয়া পাওয়া টাকা আদায়ে মামলা করা হয়েছে, যা বর্তমান চলমান রয়েছে। 

সোমবার জাতীয় সংসদে চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেটে হাজী মো. সেলিমের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।  
 
তিনি আরও বলেন, কলকাতার মেসার্স কুকা ট্রাভেলসের কাছে ২১ লাখ ১০ হাজার ৬৬৯ টাকা, জেদ্দার আল হামরা ট্রাভেলের কাছে ৫ লাখ ৯২ হাজার ৯০৮ টাকা, জেদ্দার আলোকলবি ট্রাভেলের কাছে ৩৮ হাজার ৫৯২ টাকা, রিয়াদের মেসার্স অসফার ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজমের কাছে ৯ কোটি ৪০ লাখ ৩৭ হাজার ৫২২ টাকা, লন্ডনের মেসার্স ইউনাইটেড ট্রাভেলসের কাছে ২ কোটি ৭৬ লাখ ৫৫ হাজার ৩৮৭ টাকা, লন্ডনের মেসার্স বসুন্ধরার কাছে ১৮ লাখ ৪৪ হাজার ২৫৩ টাকা, লন্ডনের মেসার্স নীল আকাশের কাছে ৪৬ লাখ ৮২ হাজার ৭৯৯ টাকা, লন্ডনের মেসার্স কুশিয়ারার কাছে ৩ কোটি ৪২ লাখ ৯৮ হাজার ১৫ টাকা, লন্ডনের মেসার্স কেএমসি ট্রাভেলস লিমিটেডের কাছে ৩৩ লাখ ৮০ হাজার ৭৩৫ টাকা, লন্ডনের এইচএসি ট্রাভেলসের কাছে ১৮ লাখ ৬১ হাজার ৫০৩ টাকা, লন্ডনের মেসার্স এয়ার এক্সপ্রেস ট্রাভেলস এন্ড টুর্সের কাছে ৪১ লাখ ৪২ হাজার ১০৩ টাকা, কুয়েতের ইন্টারনিটি ইন্টারন্যাশনাল ট্রাভেলসের কাছে ৩০ লাখ ৬৩ হাজার ৬৫১ টাকা, কুয়েতের সালওয়া ট্রাভেল এন্ড টুরিজমের কাছে ২ লাখ ৫৩ হাজার ৩৫ টাকা, কুয়েতের আল ফরওয়ানিয়া ট্রাভেলসের কাছে ১ লাখ ৬৪ হাজার ৫৩ টাকা, কুয়েতের রামসিস ট্রাভেলসের কাছে ৫ লাখ ১২ হাজার ৭৫ টাকা, কুয়ালালামপুরের মেসার্স তারা ট্রাভেলসের কাছে ১৭ লাখ ১১ হাজার ৫৪৯ টাকা ও দাম্মামের আল নাসের ট্রাভেলের কাছে ৫ কোটি ৪১ লাখ ৫৮৮ টাকা।