জামিন পেলেন রূপায়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৩ জুন ২০১৯, ২১:২০ | অনলাইন সংস্করণ

জামিন পেলেন রূপায়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান
রূপায়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান ওরফে মুকুল। ফাইল ছবি

রাজধানীর বনানীতে এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় রূপায়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান ওরফে মুকুলের জামিন দিয়েছেন আদালত।

রোববার শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম সাদবীর ইয়াসির আহসান চৌধুরী আসামির জামিনের এ আদেশ দেন।

এদিন আসামি লিয়াকত আলী খান মুকুল আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষ থেকে জামিনের বিরোধিতা করা হয়।

উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত ২০ হাজার টাকা মুচলেকায় আসামির জামিন মঞ্জুর করেন।

শুনানিতে আসামিপক্ষের আইনজীবী এসকে আবু সাঈদ আদালতকে বলেন, লিয়াকত আলী খান নির্দোষ। এফ আর টাওয়ারে আগুনের ঘটনার সঙ্গে তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। আর তার বিরুদ্ধে আনা দণ্ডবিধির ৪৩৬ ধারার অভিযোগও সুনির্দিষ্ট নয়। তিনি ঘটনার শিকার। তিনি একজন বয়স্ক লোক। এ ছাড়া এজাহারভুক্ত অপর আসামিরা জামিনে আছেন। তিনিও জামিন পাওয়ার হকদার। জামিন পেলে তিনি পলাতক হবেন না।

আদালত সূত্র জানায়, গত ২৮ মার্চ ওই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই ২৫ জন ও পরে হাসপাতালে আরও ১ জন মারা যান। এ ছাড়া পরবর্তীতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় উদ্ধারকর্মী ফায়ারম্যান সোহেলও মৃত্যুবরণ করেন। আর আহত হয়ে বিভিন্ন হাসপাতালে আরও ৭৩ জন চিকিৎসা নিয়েছেন।

ওই ঘটনায় বনানী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মিল্টন দত্ত গত ৩০ মার্চ বাদি হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় রূপায়ন গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান ওরফে মুকুলসহ তিন জনকে এজাহারনামীয় আসামি করা হয়। এ ছাড়া মামলায় অজ্ঞাতনামাদেরও আসামি করা হয়।

মামলার পর পরই আসামি বিএনপি নেতা তাজভিরুল ইসলাম ও ভবনের জমির মালিক আসামি প্রকৌশলী এসএমএইচআই ফারুককে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ।

গত ৮ এপ্রিল আদালত আসামি তাজভিরুল ইসলাম ও অপর আসামি এসএমএইচআই ফারুককে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

গত ১১ এপ্রিল বিএনপি নেতা তাজভিরুল ইসলামের জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। আর ৬ মে ভবনের জমির মালিক প্রকৌশলী এসএমএইচআই ফারুকের জামিনও মঞ্জুর করেন আদালত।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ভবনের জমির মালিক প্রকৌশলী এসএম এইচআই ফারুক, টাওয়ারের বর্ধিত অংশের মালিক তাজভিরুল ইসলাম এবং রূপায়ণ গ্রুপের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী খান ওরফে মুকুল এফ আর টাওয়ার বিল্ডিং ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যরা অসৎ উদ্দেশ্যে আর্থিক সুবিধা পাওয়ার লোভে নির্মাণ বিধিমালা লংঘন করে টাওয়ারে ভবিষ্যতে থাকা সম্পত্তি ও লোকজনের জানমালের নিরাপত্তার বিষয় লক্ষ্য না রেখে কেবলমাত্র নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করার মানসিকতায় চরম অবহেলা ও তাচ্ছিল্যপূর্ণ কার্যকলাপের ফলে এফ আর টাওয়ারে এই মর্মান্তিক ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড সংঘটিত হয়।

এ ছাড়া ১৯৯৬ সালের এফ আর টাওয়ারের নকশা অনুমোদন দেয়া হয়। অনুমোদিত নকশা ভবনের উচ্চতা ১৮ তলা, যদিও নির্মাণ করা হয়েছে ২৩ তলা। পরবর্তীতে ২০০৫ সালে এফ আর টাওয়ারের মালিকপক্ষ রাজউকের কাছে আরেকটি নকশা জমা দেয়। ১৯৯৬ সালে রাজউক যে নকশা অনুমোদন দিয়েছিল তার সঙ্গে নির্মিত ভবনটির অনেক বিচ্যুতি রয়েছে।

ঘটনাপ্রবাহ : বনানীতে এফআর টাওয়ারে আগুন

আরও
আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×