বাসচাপায় আবরার হত্যা: অধিকতর তদন্তে নতুন কারও সম্পৃক্ততা পায়নি ডিবি

প্রকাশ : ২৪ জুন ২০১৯, ১৮:৩০ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

রাজধানীর প্রগতি স্মরণিতে বাসচাপায় বিইউপি শিক্ষার্থী আবরার নিহত হওয়ার পর শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ। ফাইল ছবি

বাসচাপায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) শিক্ষার্থী আবরার আহাম্মেদ চৌধুরী নিহতের মামলাটি অধিকতর তদন্তে নতুন কারও সম্পৃক্ততা পায়নি মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

গত ২৮ মে মামলার তদন্তকারী ডিবির ইন্সপেক্টর কাজী শরিফুল ইসলাম আদালতের সংশ্লিষ্ট শাখায় মামলার অধিকতর প্রতিবেদন দাখিল করেন।

ওই প্রতিবেদনে এসব তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। আগামী ২৭ জুন মামলার ধার্য দিনে প্রতিবেদনটি আদালতে উপস্থাপন করা হবে।

সোমবার আদালতের সংশ্লিষ্ট সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা শেখ রাকিবুর রহমান যুগান্তরকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, চার্জশিট দাখিলের পর যেসব গুপ্তচর ও সাক্ষীরা মামলার ঘটনার সঙ্গে অন্যান্য আসামিরা জড়িত আছে মর্মে তথ্য প্রদান করেছিল, তারা মামলার ঘটনার সঙ্গে জড়িত আসামি ও ঘটনা সংক্রান্তে নতুন কোনো সুনিদিষ্ট তথ্য-প্রমাণ দিতে পারেনি। পরবর্তীতে ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত কোনো আসামিও পাওয়া যায়নি। এমনকি নতুন কোনো সাক্ষ্য প্রমাণও পাওয়া যায়নি। এজন্য সম্পূরক কোনো চার্জশিট দাখিল করা সম্ভব হচ্ছে না।

এর আগে ৩০ এপ্রিল ডিবির ক্যান্টনমেন্ট জোনাল টিম উত্তর বিভাগের পুলিশ পরিদর্শক কাজী শরীফুল ইসলাম অধিকতর তদন্তের আবেদন করেন।

ওই আবেদনে বলা হয়, শিক্ষার্থী আবরাব নিহত ও অপর শিক্ষার্থী মুক্তা আহত হওয়ার ঘটনায় চার আসামির বিরুদ্ধে পৃথক দুটি চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল করা হয়েছে।

চার্জশিট দাখিলের পর ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত আরও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও আরও আসামিদের জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া গেছে। ন্যায়বিচারের স্বার্থে মামলাটি অধিকতর তদন্তের প্রয়োজন।

এরও আগে গত ২৩ এপ্রিল আদালতের সংশ্লিষ্ট শাখায় বাস মালিক ননী গোপাল সরকারসহ চারজনকে আসামি করে দুটি চার্জশিট জমা দেয়া হয়।

প্রথম চার্জশিটে (১০৩ নম্বর) মিরপুর আইডিয়াল ল্যাবরেটরি কলেজের ১ম বর্ষের ছাত্রী সিনথিয়া সুলতানা মুক্তাকে (১৬) বাস দিয়ে আঘাত করে গুরুতর আহত করার অভিযোগ এনে দাখিল করা হয়েছে।

প্রথম চার্জশিটে সুপ্রভাত বাসের চালক মো. সিরাজুল ইসলাম (২৪), বাসের হেলপার মো. ইব্রাহিম হোসেন (২১), বাসের কন্ডাক্টর মো. ইয়াসিন আরাফাত (২২) ও বাস মালিক ননী গোপাল সরকারকে (৪২) আসামি করা হয়।

দ্বিতীয় চার্জশিট (১০৪ নম্বর) বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) শিক্ষার্থী আবরার আহাম্মেদ চৌধুরীকে বাসচাপা দিয়ে হত্যার অভিযোগে দাখিল করা হয়।

দ্বিতীয় চার্জশিটে সুপ্রভাত বাসের কন্ডাক্টর মো. ইয়াসিন আরাফাত ও বাস মালিক ননী গোপাল সরকারকে আসামি করা হয়। এ চার্জশিটে বাস চালক মো. সিরাজুল ইসলাম ও হেলপার মো. ইব্রাহিম হোসেনকে অব্যাহতির সুপারিশ করা হয়েছিল।

প্রসঙ্গত, বিইউপির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের ১ম বর্ষের শিক্ষার্থী আবরাব গত ১৯ মার্চ সকাল ৭টার দিকে শাহজাহানপুর বাসা থেকে তার বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার উদ্দেশ্যে ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে ড্রাইভারসহ বের হন।

বসুন্ধরা গেটে আবরারকে নামিয়ে দিয়ে ড্রাইভার গাড়ি নিয়ে বাসার উদ্দেশ্যে রওনা হয়। আবরার বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়িতে উঠার জন্য প্রগতি স্মরণি জেব্রা ক্রসিং দিয়ে রাস্তার পূর্ব দিকে থেকে পশ্চিম দিকে পার হওয়ার সময় ঘাতক বাসটি আবরারকে চাপা দেয়। এতে আবরার নিহত হন।

এ ঘটনায় ওই রাতেই রাজধানীর গুলশান থানায় আবরারের বাবা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আরিফ আহম্মেদ চৌধুরী বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলায় গ্রেফতার হয়ে ওই চার আসামিই ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। বর্তমানে আসামিরা কারাগারে আছেন।