সব এমপিকে ল্যাপটপ দেয়া হবে
jugantor
সব এমপিকে ল্যাপটপ দেয়া হবে

  সংসদ রিপোর্টার  

২৬ জুন ২০১৯, ২২:২৯:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

সংসদ অধিবেশন

বিশ্বের মধ্যে অন্যতম আধুনিক ডিজিটাল সংসদ গড়তে সব সংসদ সদস্যকে একটি করে ল্যাপটপ দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

বুধবার জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে আগামী চার বছর সারা দেশে ২৫ হাজার ৫০০টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব স্থাপন করা হবে।

তিনি বলেন, যখন ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ ধারণা উপস্থাপন করা হয়, তখন কত রসিকতা হয়েছে। এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ সারা বিশ্বের উন্নয়ন দর্শনে পরিণত হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সাল নাগাদ নাগরিক সেবার ৯০ শতাংশ অনলাইনে নিয়ে আসব এবং ৯০ শতাংশ নাগরিক ইন্টারনেটে যুক্ত হবে। এই সময়ে আইটি পেশাজীবী হবে ২০ লাখ। তথ্য-প্রযুক্তি খাতে রপ্তানি হবে ৫ মিলিয়ন ডলার।

তিনি বলেন, আমরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যখন যে টার্গেটগুলো নির্ধারণ করেছি, ঠিক সেই টার্গেট পূরণের জন্য কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেছি এবং এভাবেই আমরা সঠিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছি।

বাংলাদেশ সংসদকে বিশ্বের অন্যতম ডিজিটাল সংসদ গড়তে কাজ করা হচ্ছে বলে জানিয়ে পলক বলেন, এই সংসদকে ডিজিটাল সংসদ হিসেবে গড়ে তুলব। এরই মধ্যে আইডি কার্ড, ফেসবুক লাইভ, ওয়েবসাইট সার্ভিস ডিজিটাইজড হয়েছে। ডিজিটাল স্ক্রিন হয়েছে। সব সংসদ সদস্যকে আধুনিক ডিজিটাল ডিভাইস—একটি করে ল্যাপটপ দিয়ে বিশ্বের মধ্যে অন্যতম আধুনিক ডিজিটাল সংসদ গড়ব।

সব এমপিকে ল্যাপটপ দেয়া হবে

 সংসদ রিপোর্টার 
২৬ জুন ২০১৯, ১০:২৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সংসদ অধিবেশন
সংসদ অধিবেশন। ফাইল ছবি

বিশ্বের মধ্যে অন্যতম আধুনিক ডিজিটাল সংসদ গড়তে সব সংসদ সদস্যকে একটি করে ল্যাপটপ দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

বুধবার জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে এ কথা বলেন। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে আগামী চার বছর সারা দেশে ২৫ হাজার ৫০০টি শেখ রাসেল ডিজিটাল ল্যাব স্থাপন করা হবে।

তিনি বলেন, যখন ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ ধারণা উপস্থাপন করা হয়, তখন কত রসিকতা হয়েছে। এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ সারা বিশ্বের উন্নয়ন দর্শনে পরিণত হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সাল নাগাদ নাগরিক সেবার ৯০ শতাংশ অনলাইনে নিয়ে আসব এবং ৯০ শতাংশ নাগরিক ইন্টারনেটে যুক্ত হবে। এই সময়ে আইটি পেশাজীবী হবে ২০ লাখ। তথ্য-প্রযুক্তি খাতে রপ্তানি হবে ৫ মিলিয়ন ডলার। 

তিনি বলেন, আমরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যখন যে টার্গেটগুলো নির্ধারণ করেছি, ঠিক সেই টার্গেট পূরণের জন্য কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেছি এবং এভাবেই আমরা সঠিকভাবে এগিয়ে যাচ্ছি।

বাংলাদেশ সংসদকে বিশ্বের অন্যতম ডিজিটাল সংসদ গড়তে কাজ করা হচ্ছে বলে জানিয়ে পলক বলেন, এই সংসদকে ডিজিটাল সংসদ হিসেবে গড়ে তুলব। এরই মধ্যে আইডি কার্ড, ফেসবুক লাইভ, ওয়েবসাইট সার্ভিস ডিজিটাইজড হয়েছে। ডিজিটাল স্ক্রিন হয়েছে। সব সংসদ সদস্যকে আধুনিক ডিজিটাল ডিভাইস—একটি করে ল্যাপটপ দিয়ে বিশ্বের মধ্যে অন্যতম আধুনিক ডিজিটাল সংসদ গড়ব।