৩ হাজার ১০৭ জনের মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিল: মন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৯ Jun ২০১৯, ১৪:৪১:৫২ | অনলাইন সংস্করণ

মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। ফাইল ছবি

এখন পর্যন্ত তিন হাজার ১০৭ জনের মুক্তিযোদ্ধা সনদ বাতিল করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। এ ছাড়া গত ১০ বছরে বাদ পড়া ৪ হাজার ১৮৮ জন মুক্তিযোদ্ধার নাম গেজেটভুক্তির জন্য সরকারের কাছে সুপারিশ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

শনিবার জাতীয় সংসদে সরকারি দলের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী এ তথ্য জানান।

ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে বৈঠকের শুরুতে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উপস্থাপিত হয়।

বিএনপির সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদের প্রশ্নের জবাবে কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক বলেন, কৃষকদের উৎপাদিত পণ্যের উৎপাদন খরচের চেয়ে বাজার মূল্য কম হওয়ায় কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার বিষয়টি সব ক্ষেত্রে সঠিক নয়। মাড়াইকালীন একসঙ্গে বেশি পণ্য বাজারজাতকরণে পণ্যের মূল্য কিছুটা কম থাকে। পণ্যের মান কিছুটা কম থাকায়ও এমনটি হয়।

তিনি বলেন, পণ্য সংগ্রহের পর পরিচর্যা ও সংরক্ষণ শেষে মূল্য বৃদ্ধির পর বিক্রি করে অনেক কৃষক লাভবান হন। চলতি বছর আলু, শাক-সবজি ও ফল-মূল ইত্যাদির ক্ষেত্রে কৃষকেরা ভালো মূল্য পাচ্ছেন।

মন্ত্রী জানান, গত ১০ বছরে ৬৯ হাজার ৬২৪ জন কৃষকের ৭৫ হাজার ৭৪০ মেট্রিক টন শস্য সংরক্ষণের বিপরীতে ১২২ কোটি ২২ লাখ টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে।

সরকারি দলের সংসদ সদস্য কণ্ঠশিল্পী মমতাজ বেগমের প্রশ্নের জবাবে পরিবেশ এবং বন ও জলবায়ুমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন জানান, সুন্দরবনে সুন্দরী গাছের পরিমাণ কিছুটা কমতি থাকলেও গেওয়া গাছ তুলনামূলকভাবে বাড়ছে। এ ছাড়া ২০১৫ সালের শুমারিতে বাঘের সংখ্যা ১০৬টি থাকলেও ২০১৮ সালে ক্যামেরা ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে পরিচালিত জরিপে পাওয়া বাঘের সংখ্যা ১১৪টি। সুন্দরবন রক্ষায় ৪৫৯ কোটি ৯২ লাখ ৫৬ হাজার ৯০০ টাকার ৫ বছর মেয়াদি প্রকল্প নেয়া হয়েছে। আগামী ১ জুলাই এ প্রকল্পের কাজ শুরু হবে।

সরকারি দলের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে বনমন্ত্রী বলেন, জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের জন্য সরকার ৪৮টি রক্ষিত এলাকা ঘোষণা করেছে। এর মধ্যে বন্যপ্রাণীর অভয়ারণ্য এলাকা ২০টি, জাতীয় উদ্যান ১৯টি, ইকোপার্ক ৩টি, বিশেষ জীব বৈচিত্র্য সংরক্ষণ এলাকা ২টি, সাফারি পার্ক ২টি, এভিয়ারি ইকোপার্ক একটি ও মেরিন পার্ক একটি।

 

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত