ঠাকুরগাঁওয়ে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮, আহত ২৭

  ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি ০২ আগস্ট ২০১৯, ১৫:১৫ | অনলাইন সংস্করণ

ঠাকুরগাঁওয়ে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮, আহত ২৭
ঠাকুরগাঁওয়ে দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত ৮

ঠাকুরগাঁওয়ে যাত্রীবাহী দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৮ জনে দাঁড়িয়েছে। আহত হয়েছেন কমপক্ষে ২৭ জন।

আহতদের ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর ও রংপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি আশিকুর রহমান গণমাধ্যমকে এ দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, শুক্রবার সকাল পৌনে ৮টার দিকে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার কুমিল্লাহাড়ী বলাকা উদ্যান এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, ডিপজল এন্টারপ্রাইজের বাসটি ঢাকা থেকে ছেড়ে ঠাকুরগাঁও যাচ্ছিল। আর নিশাত পরিবহনের বাসটি ঠাকুরগাঁও থেকে ছেড়ে দিনাজপুর যাচ্ছিল। খোঁচাবাড়ি এলাকায় পৌঁছলে বাস দুটি মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।

এ সময় দুই বাসের মধ্যখানে পড়ে যায় একটি মোটরসাইকেল ও একটি যাত্রীবাহী থ্রি হুইলার। সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই ছয়জন মারা যান।

আহতদের ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নেয়ার পর মারা যান আরও একজন।

এ ছাড়া রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে আবদুল মজিদ (৬১) নামে আরও একজন মারা যান। তার বাড়ি সদর উপজেলার আকচা গ্রামে।

ইতিমধ্যে হতাহতদের কয়েকজনের পরিচয় জানা গেছে। নিহতের মধ্যে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার বেংরোল গ্রামের দুজন ও সনগাঁও গ্রামের তিনজন এবং একজন লাহিড়ী গ্রামের।

নিহতরা হলেন- বালিয়াডাঙ্গী শহীদ আকবর আলী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কলেজের ছাত্র আবদুর রউফ ও সদর উপজেলার খোঁচাবাড়ি গ্রামের ক্ষিতিশ চন্দ্র রায় (৪৭), নিশাত নামে বাসের চালক চায়না (৩৫), ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার বিপুল চন্দ্র (৩৫), আবদুর রহমান (৪৫), মোস্তফা (৪৫), তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৪০), বীরগঞ্জ উপজেলার গলিরামের মঙ্গলী রানী (৭০), একই এলাকার মনেস্বরের স্ত্রী জবা (৩৫), আবদুল মজিদ (৬১) ।

আহতদের অনেকের বাড়ি ঠাকুরগাঁও সদর ও বালিয়াডাঙ্গী এবং দুজনের বাড়ি দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায়।

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহতরা হলেন- আনোয়ার, জিনিয়া, বেলাল, কমলা, আবুল কাশেম, বিশ্বাস রায়, অখিল চন্দ্র রায়, কার্তিক, সোহেল, ফরিদুল, রেজাউল, জেবুননেছা, সাথি, মিলন, আবদুল হামিদ, আতিকুর, একতাসহ ২২ জন।

এদিকে দুঘর্টনায় পতিত বাস দুটি রাস্তায় পড়ে থাকায় বেলা ১১টা পর্যন্ত ঠাকুরগাঁও-দিনাজপুর-রংপুর মহাসড়কে যোগাযোগ বন্ধ ছিল।

পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্সকর্মীরা রাস্তায় থাকা নৈশ্য কোচ ও বাসটি সরিয়ে নিলে যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়।

নিহতদের ময়নাতদন্তের জন্য ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে নেয়া হয়েছে।

সদর উপজেলা জগন্নাথপুর ইউপি সদস্য আনিসুর রহমান বলেন, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা ডিপজল পরিবহন নামের নৈশ্য কোচের চালকের অসতর্কতার জন্য এ ঘটনা ঘটে।

তিনি জানান, নিশাত পরিবহন বাসের মালিক ঠাকুরগাঁওয়ের মিন্টু। তার বাড়ি আশ্রমপাড়া মহল্লায়।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক কেএম কামরুজ্জামান সেলিম, ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার আল আসাদ মো. মাহফুজুল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবদুল আল মামুন, ওসি আশিকুর রহমান ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধারকাজের তদারকি করেন।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: jugantor.ma[email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×