দেশে হাজারো গ্র্যাজুয়েট থাকলেও বিদেশে চলে যায় পাঁচ বিলিয়ন ডলার

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৩ আগস্ট ২০১৯, ২২:১৯ | অনলাইন সংস্করণ

দেশে হাজারো গ্র্যাজুয়েট থাকলেও বিদেশে চলে যায় পাঁচ বিলিয়ন ডলার
সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য দিচ্ছেন ড. ফরাস উদ্দিন। ছবি: সংগৃহীত

দেশে হাজার হাজার গ্র্যাজুয়েট থাকলেও দেশের বাইরে পাঁচ বিলিয়ন ডলার চলে যায় বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. ফরাস উদ্দিন।

তিনি বলেছেন, ‘বাংলাদেশে ব্যবস্থাপনা একটি গুরুতর সমস্যা। আমরা যদি সম্পদের সঠিক ব্যবস্থাপনা করতে পারতাম, তাহলে আমাদের দেশের বাইরে থেকে লোক এনে চাকরি দেয়ার প্রয়োজন পড়ত না। আমাদের দেশে হাজার হাজার গ্র্যাজুয়েট থাকলেও দেশের বাইরে পাঁচ বিলিয়ন ডলার চলে যায়।’

শুক্রবার দুপুরে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ (ইউল্যাব) আয়োজিত উচ্চশিক্ষার মান অর্জন সম্পর্কিত দুই দিনব্যাপী প্রথম সিইটিএল সম্মেলনের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রাজধানীর ধানমণ্ডিতে ইউল্যাবের প্রধান ক্যাম্পাসের অডিটোরিয়ামে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা বইয়ের গণ্ডির মধ্যে না রেখে কর্মমুখী হতে হবে উল্লেখ করে ড. ফরাস উদ্দিন বলেন, আমাদের দেশে একজন শিক্ষার্থীকে ভালো চাকরি পাওয়ার জন্য শিক্ষাগ্রহণ করতে বলা হয়। এতে শিক্ষার্থীরা মুখস্থবিদ্যার আশ্রয় নেয়। আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় এমন অনেক বিষয় আছে, যা চাকরির বাজারের সঙ্গে সামঞ্জস্য নয় বরং সম্পূর্ণ অপ্রাসঙ্গিক।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে ব্যবস্থাপনা একটি গুরুতর সমস্যা। আমরা যদি সম্পদের সঠিক ব্যবস্থাপনা করতে পারতাম, তাহলে আমাদের দেশের বাইরে থেকে লোক এনে চাকরি দেয়ার প্রয়োজন পড়ত না। আমাদের দেশে হাজার হাজার গ্র্যাজুয়েট থাকলেও দেশের বাইরে পাঁচ বিলিয়ন ডলার চলে যায়।’ এজন্য কারিগরি শিক্ষার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন ড. ফরাস উদ্দিন।

দেশের তরুণ জনসংখ্যাকে জনসম্পদে রূপান্তরিত করার আহ্বান জানিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক এ গভর্নর বলেন, ‘দেশে ১৫ থেকে ৩০ বছর বয়সী তরুণদের সংখ্যা ৫ কোটি। বিশ্বের মাত্র ২৫টি দেশে এই সংখ্যক জনসংখ্যা রয়েছে। তাই আমাদের সুযোগ আছে তাদের কারিগরি শিক্ষার মাধ্যমে জনসম্পদে রূপান্তরিত করার।

এ সময় কওমি মাদ্রাসার কারিকুলামে তিনটি বিষয় অন্তর্ভুক্ত করার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ‘কওমি মাদ্রাসার কারিকুলামে সরকার চাইলে গণিত, ইংরেজি ও কম্পিউটার শিক্ষা- এই তিনটি বিষয় অন্তর্ভুক্ত করতে পারে। এর মধ্যে যে কোনো দুটি বিষয়ও অন্তর্ভুক্ত করা যেতে পারে।’

উচ্চশিক্ষা গ্রহণ নিয়েও কথা বলেন ড. ফরাস উদ্দিন। বলেন, ‘উচ্চশিক্ষা সর্বজনীন হওয়া উচিত না, এটি নির্দিষ্ট কিছু মানুষের জন্যই হওয়া উচিত।’

পরে ড. ফরাস উদ্দীনের হাতে সম্মাননা তুলে দেন ইউল্যাবের ভিসি অধ্যাপক ড. এইচ এম জহিরুল হক।

এর আগে প্ল্যানারি সেশনে অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্সটিটিউট অব অ্যাডুকেশন অ্যান্ড রিচার্সের (আইইডি) অধ্যাপক ড. আরিফুল হক কবির, ইউল্যাবের ভিসি ও ডিপার্টমেন্ট অব ইংলিশ অ্যান্ড হিউম্যানিটিজির প্রধান অধ্যাপক ড. সামসাদ মর্তুজা, ইউল্যাবের স্কুল অব সোশ্যাল সায়েন্সের ডিন ও ইন্সটিটিউশনাল কোয়ালিটি অ্যাশিউরেন্স সেলের (আইকিউএসি) ডিরেক্টর অধ্যাপক জুড উইলিয়াম হেনিলো, ইউল্যাবের অধ্যাপক সলিমুল্লাহ খান ও নর্থসাউথ ইউনিভার্সিটির ডিপার্টমেন্ট অব ইকোনমিক্সের চেয়ারম্যান ড. আহমেদ তাজনিম।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ইউল্যাবের বোর্ড অব ট্রাস্টিজের বিশেষ উপদেষ্টা অধ্যাপক ইমরান আহমেদ, ট্রেজারার অধ্যাপক মিলন কুমার ভট্টাচার্য, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক আখতার আহমেদ প্রমুখ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×