প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে সংসদে রওশন

মন্ত্রীদের বাদ দিলে জাতীয় পার্টি বেঁচে যেত

  সংসদ রিপোর্টার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২২:৫৭ | অনলাইন সংস্করণ

ফাইল ছবি

মন্ত্রিসভা থেকে জাতীয় পার্টির মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের বাদ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন দলটির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ও জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ। তিনি বলেছেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, দয়া করে আপনার মন্ত্রিসভা থেকে জাতীয় পার্টির মন্ত্রীদের বাদ দিন। আপনি চাইলেই এটা হয়। কেন চান না- বুঝি না। আপনি আমার দলের মন্ত্রীদের বাদ দিলে জাতীয় পার্টি বেঁচে যেত। আর তা না হলে আপনি আমাদের দলের সবাইকে মন্ত্রী বানান’।

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে রওশন এরশাদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে এসব কথা বলেন।

এ সময় রওশন এরশাদ বলেন, ‘কোথাও গেলে কথা বলতে পারি না। লজ্জা লাগে। সাংবাদিকদের সঙ্গেও লজ্জায় কথা বলি না। তাদের এড়িয়ে চলি। তাদের প্রশ্নের জবাব দিতে পারি না। আমরা সরকারি দল না বিরোধী দল পরিষ্কার করে কিছু বলতে পারি না। আপনি বিদেশে যান, সেখানে গিয়ে কি বলতে পারেন যে দেশে বিরোধী দল আছে? আমি তো দেশ-বিদেশে কোথাও জোর গলায় বলতে পারি না যে, জাতীয় পার্টি বিরোধী দল।’

বিরোধীদলীয় নেতা বলেন, ‘আরও এক বছর আছে, দেখেন সেটা। আপনি নির্দেশ দিলে মানবে না কে? আপনি তো দিলেন না?’ এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে বলতে শোনা যায় ‘আমি তো বলেছিলাম’। জবাবে রওশন এরশাদ বলেন, ‘না দেন নাই, দেন নাই, না. না.. না।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা কোথাও কথা বলতে পারি না। সাংবাদিকরা ধরলেই বলেন আপনারা কোথায় আছেন। কোথাও কথা বলতে পারি না। লজ্জা লাগে। আমরা সরকারি দল না বিরোধী দল।’ এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘আপনি বলতে পারেন বিরোধী দল আছে? আমরাও বলতে পারি না।’

বিরোধীদলীয় নেতার পর আলোচনায় অংশ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর আগে এই আলোচনায় অংশ নেন- আওয়ামী লীগ নেতা শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এবং জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আসম ফিরোজ। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মতো প্রধান বিরোধীদলের আসনে বসে সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি। রওশন এরশাদ হন বিরোধীদলীয় নেতা। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠিত হলে জাতীয় পার্টির একজনকে মন্ত্রী এবং দুজনকে প্রতিমন্ত্রী করা হয়। বিষয়টি নিয়ে বরাবরই প্রশ্নের মধ্যে পড়ে বিরোধী দল জাতীয় পার্টি।

এ সময় তিনি যানজট, খাদ্যে ভেজাল, প্রশ্নপত্র ফাঁস, নগরীতে মশার উপদ্রপ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় অনিয়মসহ নানা ইস্যুতে কথা বলেন।

রওশন এরশাদ বলেন, পদ্মা সেতু শুরু হয়েছিল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে। এখনও কাজ চলছে। এখন সেখানে বালু উত্তোলন চলছে। পদ্মা সেতুর আশপাশে অনেকে জায়গা দখল করে হোটেল-মোটেল তৈরি করা হয়েছে। এগুলো তৈরির অনুমতি কে দিয়েছে? কারা দিয়েছে? এসব হলে পদ্মা সেতু রিস্কের মধ্যে পড়ে যাবে। এগুলো দেখা দরকার।

তিনি বলেন, সোনার বাংলাদেশ গড়তে হলে সোনার ছেলে তৈরি করতে হবে। সেটা কোথায় তৈরি হচ্ছে। আজকাল বাচ্চাদের খেলার জন্য কোনো মাঠ নেই। সব দখল হয়ে গেছে। খেলাধুলা করতে না পারলে বাচ্চাদের শরীর ভালো থাকে না। প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনি সবকিছু মায়ের মমতায় সমাধান করে থাকেন। এখন চাকরি স্থায়ীকরণের জন্য স্বাস্থ্যকর্মীরা যে আন্দোলন করছেন তা সমাধান করে ফেলা উচিত।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
bestelectronics

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.