‘প্রথম আলো এ ধরনের ঘটনা কীভাবে ঘটায়’

  যুগান্তর রিপোর্ট ০৭ নভেম্বর ২০১৯, ১৩:৫২:১৬ | অনলাইন সংস্করণ

রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজের শিক্ষার্থী নাইমুল আবরারের মৃত্যুতে দৈনিক প্রথম আলোর দায় আছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথম আলো কর্তৃপক্ষ কীভাবে এমন ঘটনা ঘটায় এ প্রশ্নও তোলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে অসুস্থ, অসচ্ছল ও দুর্ঘটনায় আহত সাংবাদিক এবং নিহত সাংবাদিক পরিবারের সদস্যদের বাংলাদেশ সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের আর্থিক অনুদানের চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

আয়োজকদের অবহেলার কারণে আবরারের মৃত্যু হয়েছে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ মৃত্যু অবশ্যই গর্হিত অপরাধ, এটি বরদাশত করা যায় না।

তিনি বলেন, ‘যারা অনুষ্ঠান আয়োজন করে, তাদের একটি দায়িত্ব থাকে। রেসিডেন্সিয়ালে একটি ঘটনা ঘটল, আয়োজকরা এটাকে এতটা নেগলেক্ট করেছে! বাচ্চাটা মারা গেছে, এর পরও ঘটনাটা চাপা দিয়ে অনুষ্ঠান চালিয়ে গেছে। ধানমণ্ডিতে এতগুলো হাসপাতাল, তবু মহাখালীতে নিয়ে গেল। প্রথম আলো এ ধরনের একটি ঘটনা কীভাবে ঘটায়? তাদের কোনো দায়বদ্ধতা নেই? ছোট ছোট বাচ্চারা এখানে পড়াশোনা করছে। তাদের নিরাপত্তা না দেখা এটিও তো গর্হিত অপরাধ। এটি তো বরদাশত করা যায় না।’

প্রসঙ্গত ১ নভেম্বর ঢাকা রেসিডেন্সিয়াল মডেল কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত কিশোর আলোর বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান দেখতে এসেছিল ওই স্কুলের ছাত্র আবরার। অনুষ্ঠান চলাকালে বিদুৎস্পর্শ হয়ে গুরুতর আহত হয় সে। তাৎক্ষণিকভাবে ওই মাঠে স্থাপিত জরুরি মেডিকেল ক্যাম্পের দুজন বিশেষজ্ঞ (এফসিপিএস) চিকিৎসক নাইমুলকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। এর পর তাকে মহাখালীর বেসরকারি ইউনিভার্সেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক আবরারকে মৃত ঘোষণা করেন।

বুধবার দৈনিক প্রথম আলো ও সাময়িকী কিশোর আলোর প্রকাশক মতিউর রহমানের বিরুদ্ধে মামলা করেন আবরারের বাবা মো. মজিবুর রহমান। মামলা গ্রহণ করে আবরারের লাশ উত্তোলন ও ময়নাতদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকার অতিরিক্ত মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আমিনুল হক। আবরারের লাশ উত্তোলন করে পুনরায় ময়নাতদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

ঘটনাপ্রবাহ : রেসিডেনসিয়াল ছাত্র আবরারের মৃত্যু

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত