সেদিন শুধু আমিই নুসরাতের পক্ষে ছিলাম: ওসি মোয়াজ্জেম
jugantor
সেদিন শুধু আমিই নুসরাতের পক্ষে ছিলাম: ওসি মোয়াজ্জেম

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৪ নভেম্বর ২০১৯, ২০:৫৫:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

ওসি মোয়াজ্জেম
ওসি মোয়াজ্জেম। ফাইল ছবি

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় ফেনীর সোনাগাজী থানার সেই সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেন  আদালতে কান্না করে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেন, মামলা নিয়ে আমি অধ্যক্ষ সিরাজদ্দৌলাকে আটক করি।

পরদিন ২৮ মার্চ হাজার খানেক লোক অধ্যক্ষের মুক্তির জন্য মানববন্ধন করে। সেদিন কয়েকজন সাংবাদিক আমার কাছে জানতে চান, কেন নির্দোষ সিরাজদ্দৌলাকে গ্রেফতার করেছি। সেদিন তাদের আমি ভিডিওটি প্রমাণ হিসেবে দেখাই। সে সময় সবাই নুসরাতের বিপক্ষে। সেদিন শুধু আমিই নুসরাতের পক্ষে ছিলাম।

বৃহস্পতিবার সাইবার ট্রাইব্যুনালের (বাংলাদেশ) বিচারক মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালতে আত্মপক্ষ সমর্থনে তিনি এ দাবি করেন। 

শুনানিতে ওসি মোয়াজ্জেম নিজেকে নির্দোষ বলে দাবি করে ন্যায় বিচার প্রার্থনা করেন। তিনি বলেন, ২০১৮ সালের ১ নভেম্বর আমি সোনাগাজী থানার ওসি হিসেবে যোগদান করি। আমার চাকরিকালীন সময়ে প্রিন্সিপাল সিরাজ সম্পর্কে বিভিন্ন অভিযোগ শুনেছি। কিন্তু থানায় কেউ অভিযোগ করতে আসেনি। গত ২৮ এপ্রিল মাদ্রাসায় গেঞ্জামের কথা শুনে পুলিশ পাঠাই। 

ওই এলাকার লোক ধর্মান্ধ। কোনো হুজুরের বিরুদ্ধে কিছু বলার উপায় নেই। আমার থানায় তখন কোনো নারী অফিসার ছিল না। তাই আমি মেয়র, আমার অফিসার ও মাদ্রাসার লোকসহ সবার সামনে নুসরাতকে জিজ্ঞাসা করি। 

সেখানে নুসরাতের দুই বান্ধবী ও মাদ্রাসার কর্মচারী নুরুল আমিনকে জিজ্ঞাসাবাদেরও ভিডিও করেছি। আমি নুসরাতকে বলেছি, তুমি আমার মেয়ের মতো। আমার প্রমাণের প্রয়োজন। তাই জিজ্ঞাসাবাদের ভিডিও করি। প্রমাণ পেয়ে মামলা নিয়ে প্রিন্সিপালকে আটক করি।

পরদিন ২৮ মার্চ হাজার খানেক লোক প্রিন্সিপালের মুক্তির জন্য মানববন্ধন করে। সেদিন কয়েজন সাংবাদিক আমার কাছে জানতে চান, কেন নির্দোষ সিরাজদ্দৌলাকে গ্রেফতার করেছি। সেদিন তাদের আমি ভিডিওটি প্রমাণ হিসেবে দেখাই। সে সময় সবাই নুসরাতের বিপক্ষে। সেদিন শুধু আমিই নুসরাতের পক্ষে ছিলাম। 

জিজ্ঞাসাবাদের দিন আমি নুসরাতের মাকে আমার মোবাইল নম্বর দিয়ে বলেছি, কেউ ডিস্টার্ব করলে আমাকে ফোন দিতে। মাদ্রাসায় পরীক্ষার দিন ২ জন পুলিশ মাদ্রাসার গেটে ডিউটিতে ছিল। খবর পাই মাদ্রাসার একজন ছাত্রী গায়ে আগুন দিয়েছে। আমি সোনাগাজী হাসপাতালে ছুটে গিয়ে নুসরাতকে দেখতে পাই। সেখান থেকে দ্রুত ফেনী হাসপাতালে নুসরাতকে পাঠাই। সেখান থেকে আমি অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে ঢাকা বার্ন ইউনিটে পাঠাই। শাহবাগ থানার ওসিকে ফোন করে বলে দেই, ঠিকমতো চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে। আগুন লাগানোর দিনই আমি ঘটনাস্থলে যাই।

গত ৮ এপ্রিল পর্যন্ত ৯ জন আসামিকে গ্রেফতার করি। ওইদিন সাংবাদিক সজল আমার সঙ্গে থানায় আসে। আমি মোবাইল টেবিলে রেখে নামাজ পড়তে গেলে সে ওই সুযোগে শেয়ারইটের মাধ্যমে ভিডিওটি নিজের মোবাইলে চুরি করে নিয়ে নেয়।

গত ১০ এপ্রিল রাতে নুসরাত মারা যাওয়ার পর আমি মাটি দিতেও আসতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমার ঊর্ধ্বতন অফিসাররা আসতে নিষেধ করায় আসিনি।

১২ এপ্রিল ভিডিওটি চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ায় বিষয়টি আমার নজরে আসে। আমি গত ১৪ এপ্রিল ভিডিও চুরি হওয়া নিয়ে থানায় জিডি করি। এরপর গত ১৫ এপ্রিল বাদী আমার বিরুদ্ধে এ মামলা করেন। আমি ভিডিওটি করেছি শুধু প্রমাণ রেখে সিরাজউদ্দৌলাকে আটকের জন্য।

সেদিন শুধু আমিই নুসরাতের পক্ষে ছিলাম: ওসি মোয়াজ্জেম

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৮:৫৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ওসি মোয়াজ্জেম
ওসি মোয়াজ্জেম। ফাইল ছবি

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় ফেনীর সোনাগাজী থানার সেই সাবেক ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোয়াজ্জেম হোসেন আদালতে কান্না করে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেন, মামলা নিয়ে আমি অধ্যক্ষ সিরাজদ্দৌলাকে আটক করি।

পরদিন ২৮ মার্চ হাজার খানেক লোক অধ্যক্ষের মুক্তির জন্য মানববন্ধন করে। সেদিন কয়েকজন সাংবাদিক আমার কাছে জানতে চান, কেন নির্দোষ সিরাজদ্দৌলাকে গ্রেফতার করেছি। সেদিন তাদের আমি ভিডিওটি প্রমাণ হিসেবে দেখাই। সে সময় সবাই নুসরাতের বিপক্ষে। সেদিন শুধু আমিই নুসরাতের পক্ষে ছিলাম।

বৃহস্পতিবার সাইবার ট্রাইব্যুনালের (বাংলাদেশ) বিচারক মোহাম্মদ আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালতে আত্মপক্ষ সমর্থনে তিনি এ দাবি করেন।

শুনানিতে ওসি মোয়াজ্জেম নিজেকে নির্দোষ বলে দাবি করে ন্যায় বিচার প্রার্থনা করেন। তিনি বলেন, ২০১৮ সালের ১ নভেম্বর আমি সোনাগাজী থানার ওসি হিসেবে যোগদান করি। আমার চাকরিকালীন সময়ে প্রিন্সিপাল সিরাজ সম্পর্কে বিভিন্ন অভিযোগ শুনেছি। কিন্তু থানায় কেউ অভিযোগ করতে আসেনি। গত ২৮ এপ্রিল মাদ্রাসায় গেঞ্জামের কথা শুনে পুলিশ পাঠাই।

ওই এলাকার লোক ধর্মান্ধ। কোনো হুজুরের বিরুদ্ধে কিছু বলার উপায় নেই। আমার থানায় তখন কোনো নারী অফিসার ছিল না। তাই আমি মেয়র, আমার অফিসার ও মাদ্রাসার লোকসহ সবার সামনে নুসরাতকে জিজ্ঞাসা করি।

সেখানে নুসরাতের দুই বান্ধবী ও মাদ্রাসার কর্মচারী নুরুল আমিনকে জিজ্ঞাসাবাদেরও ভিডিও করেছি। আমি নুসরাতকে বলেছি, তুমি আমার মেয়ের মতো। আমার প্রমাণের প্রয়োজন। তাই জিজ্ঞাসাবাদের ভিডিও করি। প্রমাণ পেয়ে মামলা নিয়ে প্রিন্সিপালকে আটক করি।

পরদিন ২৮ মার্চ হাজার খানেক লোক প্রিন্সিপালের মুক্তির জন্য মানববন্ধন করে। সেদিন কয়েজন সাংবাদিক আমার কাছে জানতে চান, কেন নির্দোষ সিরাজদ্দৌলাকে গ্রেফতার করেছি। সেদিন তাদের আমি ভিডিওটি প্রমাণ হিসেবে দেখাই। সে সময় সবাই নুসরাতের বিপক্ষে। সেদিন শুধু আমিই নুসরাতের পক্ষে ছিলাম।

জিজ্ঞাসাবাদের দিন আমি নুসরাতের মাকে আমার মোবাইল নম্বর দিয়ে বলেছি, কেউ ডিস্টার্ব করলে আমাকে ফোন দিতে। মাদ্রাসায় পরীক্ষার দিন ২ জন পুলিশ মাদ্রাসার গেটে ডিউটিতে ছিল। খবর পাই মাদ্রাসার একজন ছাত্রী গায়ে আগুন দিয়েছে। আমি সোনাগাজী হাসপাতালে ছুটে গিয়ে নুসরাতকে দেখতে পাই। সেখান থেকে দ্রুত ফেনী হাসপাতালে নুসরাতকে পাঠাই। সেখান থেকে আমি অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে ঢাকা বার্ন ইউনিটে পাঠাই। শাহবাগ থানার ওসিকে ফোন করে বলে দেই, ঠিকমতো চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে। আগুন লাগানোর দিনই আমি ঘটনাস্থলে যাই।

গত ৮ এপ্রিল পর্যন্ত ৯ জন আসামিকে গ্রেফতার করি। ওইদিন সাংবাদিক সজল আমার সঙ্গে থানায় আসে। আমি মোবাইল টেবিলে রেখে নামাজ পড়তে গেলে সে ওই সুযোগে শেয়ারইটের মাধ্যমে ভিডিওটি নিজের মোবাইলে চুরি করে নিয়ে নেয়।

গত ১০ এপ্রিল রাতে নুসরাত মারা যাওয়ার পর আমি মাটি দিতেও আসতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আমার ঊর্ধ্বতন অফিসাররা আসতে নিষেধ করায় আসিনি।

১২ এপ্রিল ভিডিওটি চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ায় বিষয়টি আমার নজরে আসে। আমি গত ১৪ এপ্রিল ভিডিও চুরি হওয়া নিয়ে থানায় জিডি করি। এরপর গত ১৫ এপ্রিল বাদী আমার বিরুদ্ধে এ মামলা করেন। আমি ভিডিওটি করেছি শুধু প্রমাণ রেখে সিরাজউদ্দৌলাকে আটকের জন্য।