ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে হাসপাতালগুলোতে পুষ্টিবিদ জরুরি
jugantor
ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে হাসপাতালগুলোতে পুষ্টিবিদ জরুরি

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৫ নভেম্বর ২০১৯, ২২:১৮:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

ডায়াবেটিস রোগের প্রাদুর্ভাব বাড়ছে। তাই এ রোগ নিয়ন্ত্রণে হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসকদের পাশাপাশি পুষ্টিবিদ নিয়োগ জরুরি- এমন মন্তব্য বিশেষজ্ঞদের। কেননা ডায়াবেটিস রোগ নিয়ন্ত্রণের চেয়ে রোগটি প্রতিরোধের পন্থা গ্রহণই উত্তম। এক্ষেত্রে ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর বয়স ও ওজন অনুযায়ী খাদ্যগ্রহণে পুষ্টিবিদের পরামর্শ গুরুত্বপূর্ণ।

শুক্রবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) শহীদ ডা. মিলন হলে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস উপলক্ষে আয়োজিত ‘বাংলাদেশ ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশন আপডেট ২০১৯’ শীর্ষক কনফারেন্সে বক্তারা এসব কথা বলেছেন।

বাংলাদেশ নিউট্রিশন অ্যান্ড ডায়াবেটিস ফোরাম (বিএনডিএফ) এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ফর প্যারেন্টেরাল অ্যান্ড এন্টেরাল নিউট্রিশন (বিডিএপিইএন) যৌথভাবে দিনব্যাপী এই কনফারেন্সের আয়োজন করে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য এবং নারী ও শিশুবিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য শবনম জাহান শিলা বলেন, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে সঠিক পথ্য। এটি নিশ্চিত করতে পারেন দক্ষ পুষ্টিবিদরা। দেশের সব সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে যাতে বাধ্যতামূলকভাবে পুষ্টিবিদ নিয়োগ দেয়া হয় সে বিষয়ে জাতীয় সংসদে প্রস্তাব দেবেন বলেও প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন শবনম জাহান।

এর আগে অনুষ্ঠানে বক্তারা দেশের সব হাসপাতালে চিকিৎসকের পাশাপাশি বাধ্যতামূলকভাবে পুষ্টিবিদ নিয়োগের দাবি জানান। রাজধানীর হোম ইকোনমিক্স কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক শাহীন আহমেদের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন বারডেম হাসপাতালের মেডিসিন এবং এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের এমেরিটাস অধ্যাপক হাজেরা মাহতাব, বিএসএমএমইউ’র প্রো-ভিসি অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, বিআইএইচএস’র উপদেষ্টা অধ্যাপক লিয়াকত আলী, বিএনডিএফ’র সাধারণ সম্পাদক শামসুন্নাহার মহুয়া প্রমুখ। এ সময় দেশের প্রথম পুষ্টিবিদ সানে আরা কবিরকে আজীবন সম্মাননা দেয়া হয়।

এ সময় বক্তারা বলেন, শুধু ঢাকা ও বিভাগীয় শহরে পুষ্টিবিদ রয়েছে। কিন্তু গ্রামাঞ্চলে এর প্রয়োজনীয়তা সবচেয়ে বেশি। শুধু ডায়াবেটিস নয় বরং সব রোগের হার কমাতে সচেতনতামূলক জীবন কাটাতে তাদের জন্য সরকারি হাসপাতালে পুষ্টিবিদদের উপস্থিতি প্রয়োজন।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে হাসপাতালগুলোতে পুষ্টিবিদ জরুরি

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৫ নভেম্বর ২০১৯, ১০:১৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ডায়াবেটিস রোগের প্রাদুর্ভাব বাড়ছে। তাই এ রোগ নিয়ন্ত্রণে হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসকদের পাশাপাশি পুষ্টিবিদ নিয়োগ জরুরি- এমন মন্তব্য বিশেষজ্ঞদের। কেননা ডায়াবেটিস রোগ নিয়ন্ত্রণের চেয়ে রোগটি প্রতিরোধের পন্থা গ্রহণই উত্তম। এক্ষেত্রে ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর বয়স ও ওজন অনুযায়ী খাদ্যগ্রহণে পুষ্টিবিদের পরামর্শ গুরুত্বপূর্ণ। 

শুক্রবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) শহীদ ডা. মিলন হলে বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবস উপলক্ষে আয়োজিত ‘বাংলাদেশ ক্লিনিক্যাল নিউট্রিশন আপডেট ২০১৯’ শীর্ষক কনফারেন্সে বক্তারা এসব কথা বলেছেন।

বাংলাদেশ নিউট্রিশন অ্যান্ড ডায়াবেটিস ফোরাম (বিএনডিএফ) এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন ফর প্যারেন্টেরাল অ্যান্ড এন্টেরাল নিউট্রিশন (বিডিএপিইএন) যৌথভাবে দিনব্যাপী এই কনফারেন্সের আয়োজন করে। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য এবং নারী ও শিশুবিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য শবনম জাহান শিলা বলেন, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে সঠিক পথ্য। এটি নিশ্চিত করতে পারেন দক্ষ পুষ্টিবিদরা। দেশের সব সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে যাতে বাধ্যতামূলকভাবে পুষ্টিবিদ নিয়োগ দেয়া হয় সে বিষয়ে জাতীয় সংসদে প্রস্তাব দেবেন বলেও প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন শবনম জাহান।

এর আগে অনুষ্ঠানে বক্তারা দেশের সব হাসপাতালে চিকিৎসকের পাশাপাশি বাধ্যতামূলকভাবে পুষ্টিবিদ নিয়োগের দাবি জানান। রাজধানীর হোম ইকোনমিক্স কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক শাহীন আহমেদের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন বারডেম হাসপাতালের মেডিসিন এবং এন্ডোক্রাইনোলজি বিভাগের এমেরিটাস অধ্যাপক হাজেরা মাহতাব, বিএসএমএমইউ’র প্রো-ভিসি অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, বিআইএইচএস’র উপদেষ্টা অধ্যাপক লিয়াকত আলী, বিএনডিএফ’র সাধারণ সম্পাদক শামসুন্নাহার মহুয়া প্রমুখ। এ সময় দেশের প্রথম পুষ্টিবিদ সানে আরা কবিরকে আজীবন সম্মাননা দেয়া হয়।

এ সময় বক্তারা বলেন, শুধু ঢাকা ও বিভাগীয় শহরে পুষ্টিবিদ রয়েছে। কিন্তু গ্রামাঞ্চলে এর প্রয়োজনীয়তা সবচেয়ে বেশি। শুধু ডায়াবেটিস নয় বরং সব রোগের হার কমাতে সচেতনতামূলক জীবন কাটাতে তাদের জন্য সরকারি হাসপাতালে পুষ্টিবিদদের উপস্থিতি প্রয়োজন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন