ছয় জেলায় চলছে পরিবহন ধর্মঘট, ভোগান্তি

  যুগান্তর রিপোর্ট ২১ নভেম্বর ২০১৯, ১৩:২৭ | অনলাইন সংস্করণ

ছয় জেলায় চলছে পরিবহন ধর্মঘট
ফাইল ছবি

নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে আজ বৃহস্পতিবারও ছয় জেলায় চলছে পরিবহন ধর্মঘট।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের সঙ্গে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের বৈঠকে ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

তবে সকাল থেকে সিরাজগঞ্জ, খুলনা, ঝিনাইদহ, নড়াইল, চুয়াডাঙ্গা ও মেহেরপুরে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। গত কয়েক দিন বাস চলাচল বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ মানুষ।

খুলনা: নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে জেলায় বৃহস্পতিবারও বন্ধ রয়েছে বাস চলাচল। সকালে খুলনা আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল থেকে কোনো বাস ছেড়ে যায়নি।

খুলনা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. নূরুল ইসলাম বলেন, বাস শ্রমিকদের সঙ্গে কোনো আলোচনা হয়নি, আলোচনা হয়েছে ট্রাক শ্রমিক ও মালিকদের সঙ্গে। তাই সকাল থেকে বাস চলাচল বন্ধ রেখেছেন মালিক ও চালকরা। আজ বৃহস্পতিবার ও কাল শুক্রবার ঢাকায় শ্রমিক ফেডারেশনের বৈঠক আছে, ওই বৈঠকেই মূলত পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে সিদ্ধান্ত হবে।

সিরাজগঞ্জ: কেন্দ্রীয়ভাবে বুধবার রাত থেকে পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয়া হলেও সিরাজগঞ্জে সেই ঘোষণা মানছেন না পরিবহন মালিক ও শ্রমিকরা। বুধবারের মতো আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে এমএ মতিন বাস টার্মিনাল ও ট্রাক টার্মিনাল থেকে কোনো বাস ও ট্রাক ছাড়তে দেখা যায়নি।

অন্যদিকে সিএনজি অটোরিকশাগুলোও চলাচল করছে না। ফলে ভোগান্তি আরও বেড়েছে সাধারণ মানুষের।

বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিম থানার ওসি শহীদ আলম জানান, মহাসড়কে গতকাল রাতে কিছু যানবাহন চলাচল করতে দেখা গেছে কিন্তু আজ সকাল থেকে খুব কমসংখ্যক বাস ও ট্রাক চলাচল করছে।

সিরাজগঞ্জ জেলা বাস ও মিনিবাস মালিক সমিতির নির্বাহী সদস্য রোমান আহম্মেদ জানান, সিরাজগঞ্জের বাস মালিকরা বাস চালানোর জন্য শ্রমিকদের অনুরোধ করেছে; কিন্তু তারা তাদের দাবি না মানা পর্যন্ত বাস চালাবে না বলে আমাদের জানিয়েছে।

ঝিনাইদহ: ঝিনাইদহে বৃহস্পতিবারও চলছে পরিবহন ধর্মঘট। এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা। সকাল থেকে শহরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, আরাপপুর, বাইপাস মোড় এলাকায় বাস ও যানবাহনের জন্য যাত্রীদের অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। অনেকে বাস না পেয়ে অনেকে ইজিবাইক ও মহাসড়কে চলাচলে নিষিদ্ধ ৩ চাকার যানবাহনে চলাচল করছেন।

নড়াইল: নড়াইল-মাওয়া, নড়াইল-যশোর, নড়াইল-লোহাগড়াসহ অভ্যন্তরীণ সব রুটে কোনো ঘোষণা ছাড়া ৪র্থ দিনের মতো আজও বাস ধর্মঘট চলছে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও নড়াইল জেলা বাস-মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সাদেক আহম্মেদ খান জানান, বাস ধর্মঘট অব্যাহত আছে। আমরা এখন ঢাকায় আছি। বেলা ১১টার দিকে এ বিষয়ে বৈঠকে বসব।

মেহেরপুর: মেহেরপুরে দু'একটি ট্রাক চলাচল শুরু হলেও বৃহস্পতিবার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। সড়ক পরিবহন আইন সংশোধনের দাবিতে চালকদের কর্মবিরতির ফলে আন্তঃজেলার সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

মেহেরপুর মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান বলেন, সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ পাস হওয়ার পর থেকেই বাসচালক, হেলপার ও সুপারভাইজাররা আতঙ্কে রয়েছেন। তবে সরকারের সঙ্গে মালিক শ্রমিকদের কয়েক দফা বৈঠকে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগে নেয়া হয়েছে। আজ ঢাকায় সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেখানেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত হবে।

চুয়াডাঙ্গা: নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে চুয়াডাঙ্গায় আজ বৃহস্পতিবারও চলছে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট।

প্রথম দিকে বাস ধর্মঘট শুরু হলেও বুধবার সকাল থেকে একই দাবিতে শুরু হয়েছে ট্রাক ও পণ্যবাহী পরিবহন ধর্মঘট। মধ্যরাতে ট্রাক ও পণ্যবাহী পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার করা হলেও আজ সকাল থেকে কোনো পণ্যবাহী পরিবহন ছেড়ে যায়নি। সকাল থেকে চুয়াডাঙ্গা থেকে দূরপাল্লা ও আন্তঃজেলা রুটে সব ধরনের যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

নতুন সড়ক আইন সংশোধনের দাবিতে গত সোমবার থেকে বাস চালানো বন্ধ করে দিয়েছেন মালিক ও শ্রমিকরা। যদিও শ্রমিক নেতারা এটিকে ধর্মঘট বা কর্মবিরতি বলছেন না।

শ্রমিক নেতারা বলছেন, নতুন সড়ক আইনে বাস ও চালকের কাগজপত্র হালনাগাদ থাকতে হবে। কিন্তু বেশিরভাগ বাস ও চালকের তা নেই। এ কারণে মালিক ও চালকরা ভয়ে বাস চালানো বন্ধ রেখেছেন।

ঘটনাপ্রবাহ : পরিবহণ আইন ২০১৮

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×