পদ্মা সেতুর ৩৬০০ মিটার দৃশ্যমান
jugantor
পদ্মা সেতুর ৩৬০০ মিটার দৃশ্যমান

  শরীয়তপুর প্রতিনিধি  

১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৪:৫০:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

পদ্মা সেতুতে বসলো ২৪তম স্প্যান

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতুর ২৪তম স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে তিন হাজার ৬০০ মিটার দৃশ্যমান হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুর ১টা ২০ মিনিটে শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে ৩০ ও ৩১ নম্বর পিলারের ওপর এ স্প্যানটি বসানো হয়। ইতোমধ্যে সেতুর প্রায় ৮৫.০৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে বলে সেতু বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আবদুল কাদের এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

পদ্মা সেতু বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবীর জানান, ২০১৭ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর সেতুর প্রথম স্প্যান, ২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি দ্বিতীয় স্প্যান , ১০ মার্চ তৃতীয় স্প্যান, ১৩ এপ্রিল চতুর্থ স্প্যান, ২৯ জুন পঞ্চম স্প্যান বসানো হয়।

এ ছাড়া ২০১৯ সালের ২৩ জানুয়ারি ষষ্ঠ স্প্যান, ২০ ফেব্রুয়ারি সপ্তম স্পেন, ২০ মার্চ অষ্টম স্প্যান, ১৮ এপ্রিল নবম স্প্যান ও ২-ফেরুয়ারি-২০২০ তারিখে ২৩তম স্প্যান বসানো হয়েছিল।

মাওয়া মুন্সীগঞ্জের প্রান্তের ১২-১৩নং পিলারের ওপর অস্থায়ীভাবে বসানো ছিল। সেখান থেকে আজ মঙ্গলবার সকালে ২৪তম স্প্যান নিয়ে শক্তিশালী ভাসমান ক্রেন তিয়ানি হাউ শরীয়তপুরের জাজিরার উদ্দেশ্যে রওনা হয়।

সকাল ১০টায় পৌঁছে। দুপুর ১টা ২০ মিনিটে ৩০ ও ৩১ নাম্বার পিলারের ওপর স্প্যানটি বসানোর মধ্য দিয়ে পদ্মা সেতুর কাজ আরও একধাপ এগিয়ে যায়।

এ নিয়ে জাজিরা প্রান্তে ১৪টি স্প্যান বসানো হলো। জাজিরা প্রান্তে দৃশ্যমান হলো ২১০০ মিটার। অপরদিকে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে ১০ স্প্যান বসানো হয়। পদ্মা সেতুর দৃশ্যমান হলো ৩ হাজার ৬০০ মিটার।

প্রতিটি স্প্যানের দৈর্ঘ্য ১৫০ মিটার। ৪২টি পিলারের ওপর ৪১টি স্প্যান বসিয়ে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মণ করা হবে। এর মধ্যে সবকটি পাইলিংয়ের কাজ শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছে সেতু বিভাগ।

এ স্প্যানটি বসানোর সংবাদে পদ্মা পাড়ের মানুষের মধ্যে ব্যাপক আনন্দ উৎসাহ ও উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে গোটা দেশের যোগাযোগব্যবস্থার ব্যাপক উন্নতি হবে।

দেশের অর্থনৈতিতে নতুন মাত্রা যোগ হবে। পদ্মা সেতুর দুই পাড়ে গড়ে উঠবে বিশ্বমানের শহর। কলকারখানায় ভরে উঠবে এ এলাকা। শ্রমজীবী মানুষের ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। সারা দেশের সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যোগাযোগব্যবস্থার উন্নতি ঘটবে।

মঙ্গল মাঝির ঘাটের সামসুদ্দিন সরদার বলেন, পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। আজ ২৪তম স্পেন বসছে দেখে খুশি হলাম। আশা করি পদ্মা সেতু ২০২১ সালের মধ্যে যানবাহন চলাচলের উপযোগী হবে।

সেতু বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আ. কাদের বলেন, মঙ্গলবার পদ্মা সেতুর ২৪তম স্পেনটি বসানো হলো। ইতোমধ্যে সেতুর প্রায় ৮৫.০৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। আগামী বছরের জুলাই মাসের মধ্যে সবকটি স্পেন বসিয়ে সেতুটি দৃশ্যমান করে তুলব বলে আশা করছি।

পদ্মা সেতুর ৩৬০০ মিটার দৃশ্যমান

 শরীয়তপুর প্রতিনিধি 
১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০২:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পদ্মা সেতুতে বসলো ২৪তম স্প্যান
পদ্মা সেতুতে বসলো ২৪তম স্প্যান। ছবি: যুগান্তর

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতুর ২৪তম স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে তিন হাজার ৬০০ মিটার দৃশ্যমান হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুর ১টা ২০ মিনিটে শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে ৩০ ও ৩১ নম্বর পিলারের ওপর এ স্প্যানটি বসানো হয়। ইতোমধ্যে সেতুর প্রায় ৮৫.০৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে বলে সেতু বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আবদুল কাদের এ খবর নিশ্চিত করেছেন।

পদ্মা সেতু বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবীর জানান, ২০১৭ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর সেতুর প্রথম স্প্যান, ২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি দ্বিতীয় স্প্যান , ১০ মার্চ তৃতীয় স্প্যান, ১৩ এপ্রিল চতুর্থ স্প্যান, ২৯ জুন পঞ্চম স্প্যান বসানো হয়।

এ ছাড়া ২০১৯ সালের ২৩ জানুয়ারি ষষ্ঠ স্প্যান, ২০ ফেব্রুয়ারি সপ্তম স্পেন, ২০ মার্চ অষ্টম স্প্যান, ১৮ এপ্রিল নবম স্প্যান ও ২-ফেরুয়ারি-২০২০ তারিখে ২৩তম স্প্যান বসানো হয়েছিল।

মাওয়া মুন্সীগঞ্জের প্রান্তের ১২-১৩নং পিলারের ওপর অস্থায়ীভাবে বসানো ছিল। সেখান থেকে আজ মঙ্গলবার সকালে ২৪তম স্প্যান নিয়ে শক্তিশালী ভাসমান ক্রেন তিয়ানি হাউ শরীয়তপুরের জাজিরার উদ্দেশ্যে রওনা হয়।

সকাল ১০টায় পৌঁছে। দুপুর ১টা ২০ মিনিটে ৩০ ও ৩১ নাম্বার পিলারের ওপর স্প্যানটি বসানোর মধ্য দিয়ে পদ্মা সেতুর কাজ আরও একধাপ এগিয়ে যায়।

এ নিয়ে জাজিরা প্রান্তে ১৪টি স্প্যান বসানো হলো। জাজিরা প্রান্তে দৃশ্যমান হলো ২১০০ মিটার। অপরদিকে মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে ১০ স্প্যান বসানো হয়। পদ্মা সেতুর দৃশ্যমান হলো ৩ হাজার ৬০০ মিটার।

প্রতিটি স্প্যানের দৈর্ঘ্য ১৫০ মিটার। ৪২টি পিলারের ওপর ৪১টি স্প্যান বসিয়ে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মণ করা হবে। এর মধ্যে সবকটি পাইলিংয়ের কাজ শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছে সেতু বিভাগ।

এ স্প্যানটি বসানোর সংবাদে পদ্মা পাড়ের মানুষের মধ্যে ব্যাপক আনন্দ উৎসাহ ও উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। পদ্মা সেতুর কাজ শেষ হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে গোটা দেশের যোগাযোগব্যবস্থার ব্যাপক উন্নতি হবে।

দেশের অর্থনৈতিতে নতুন মাত্রা যোগ হবে। পদ্মা সেতুর দুই পাড়ে গড়ে উঠবে বিশ্বমানের শহর। কলকারখানায় ভরে উঠবে এ এলাকা। শ্রমজীবী মানুষের ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। সারা দেশের সঙ্গে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের যোগাযোগব্যবস্থার উন্নতি ঘটবে।

মঙ্গল মাঝির ঘাটের সামসুদ্দিন সরদার বলেন, পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। আজ ২৪তম স্পেন বসছে দেখে খুশি হলাম। আশা করি পদ্মা সেতু ২০২১ সালের মধ্যে যানবাহন চলাচলের উপযোগী হবে।

সেতু বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আ. কাদের বলেন, মঙ্গলবার পদ্মা সেতুর ২৪তম স্পেনটি বসানো হলো। ইতোমধ্যে সেতুর প্রায় ৮৫.০৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। আগামী বছরের জুলাই মাসের মধ্যে সবকটি স্পেন বসিয়ে সেতুটি দৃশ্যমান করে তুলব বলে আশা করছি।

 

ঘটনাপ্রবাহ : পদ্মা সেতু নির্মাণ