পেঁয়াজের দাম নিয়ে এমপিদের সমালোচনা, মন্ত্রী বললেন ‘অপেক্ষা করেন’
jugantor
পেঁয়াজের দাম নিয়ে এমপিদের সমালোচনা, মন্ত্রী বললেন ‘অপেক্ষা করেন’

  সংসদ রিপোর্টার  

১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:৫৯:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আবারও সংসদে এমপিদের সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। কয়েকজন সংসদ সদস্য বলেছেন, আপনি (টিপু মুনশি) দায়িত্ব গ্রহণের পর পরই পেঁয়াজের দাম ২০০ টাকা কেজি দরে পৌঁছেছে। আপনি মানুষকে বাঁচান। 

জবাবে মন্ত্রী বলেছেন, আমরা এই বিপদকে সম্পদে পরিণত করব।  আপনার একটু অপেক্ষা করেন, আগামী তিন বছর পর আমরা পেঁয়াজ রফতানি করব।

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে কোম্পানি (সংশোধন) বিল-২০২০ পাসের আগে আনীত জনমত যাচাই-বাছাই ও সংশোধনী প্রস্তাবের ওপর আলোচনাকালে সংসদ সদস্যরা বিষয়টি উত্থাপন করেন। পরে সেই জবাব দিতে গিয়ে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির সমালোচনার জবাব দিতে গিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ‘যতদিন পর্যন্ত নিজেদের উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ না হই, আমাদের যদি পরের ওপর নির্ভরশীল হতে হয়, তাহলে তাদের অবস্থানের সঙ্গে আমাদের অবস্থান পরিবর্তিত নয়। আমাদের দেশে প্রয়োজন প্রায় ২৫ লাখ টন, তার মধ্যে ৮-৯ লাখ টন বাইরে থেকে আমদানি করতে হয়। এটা ধারাবাহিকভাবে চলে আসছে। ওই আমদানির ৮-৯ লাখ টনের মধ্যে ৯০ শতাংশই ভারত থেকে আনতে হয়েছে। ভারত উদ্বৃত্তের দেশ তারা পেঁয়াজ রফতানি করে। কিন্তু তারা গত ২৯ সেপ্টেম্বর রফতানি বন্ধ করে দিল।  এরপর বিকল্প বাজার থেকে আমাদের আনতে সময় লেগেছে। বিকল্প মার্কেট থেকে পেঁয়াজ আনতে ৪৫-৫০ দিন সময় লেগেছে।’

তিনি বলেন, এবার ভারতেই পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১৫০ রুপিতে উঠেছিল। এবার প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আগামী ৩ বছরের মধ্যে আমরা উদ্বৃত্তের দেশ হব। 

মন্ত্রী সংসদ সদস্যদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনার নিজের এলাকায় প্রত্যেকে একটু প্রোঅ্যাকটিভ হউন। একটু পেঁয়াজ লাগাইয়া দেন না কেন? একটা সময় তো নিশ্চয়ই স্বয়ংসম্পর্ণ হতে হবে। এবার চোখ খুলে দিয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি এই বিপদ সম্পদে রূপান্তরিত করব।’

পেঁয়াজের দাম নিয়ে এমপিদের সমালোচনা, মন্ত্রী বললেন ‘অপেক্ষা করেন’

 সংসদ রিপোর্টার 
১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৮:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি নিয়ে আবারও সংসদে এমপিদের সমালোচনার মুখোমুখি হয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। কয়েকজন সংসদ সদস্য বলেছেন, আপনি (টিপু মুনশি) দায়িত্ব গ্রহণের পর পরই পেঁয়াজের দাম ২০০ টাকা কেজি দরে পৌঁছেছে। আপনি মানুষকে বাঁচান।

জবাবে মন্ত্রী বলেছেন, আমরা এই বিপদকে সম্পদে পরিণত করব। আপনার একটু অপেক্ষা করেন, আগামী তিন বছর পর আমরা পেঁয়াজ রফতানি করব।

মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে কোম্পানি (সংশোধন) বিল-২০২০ পাসের আগে আনীত জনমত যাচাই-বাছাই ও সংশোধনী প্রস্তাবের ওপর আলোচনাকালে সংসদ সদস্যরা বিষয়টি উত্থাপন করেন। পরে সেই জবাব দিতে গিয়ে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির সমালোচনার জবাব দিতে গিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ‘যতদিন পর্যন্ত নিজেদের উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ না হই, আমাদের যদি পরের ওপর নির্ভরশীল হতে হয়, তাহলে তাদের অবস্থানের সঙ্গে আমাদের অবস্থান পরিবর্তিত নয়। আমাদের দেশে প্রয়োজন প্রায় ২৫ লাখ টন, তার মধ্যে ৮-৯ লাখ টন বাইরে থেকে আমদানি করতে হয়। এটা ধারাবাহিকভাবে চলে আসছে। ওই আমদানির ৮-৯ লাখ টনের মধ্যে ৯০ শতাংশই ভারত থেকে আনতে হয়েছে। ভারত উদ্বৃত্তের দেশ তারা পেঁয়াজ রফতানি করে। কিন্তু তারা গত ২৯ সেপ্টেম্বর রফতানি বন্ধ করে দিল। এরপর বিকল্প বাজার থেকে আমাদের আনতে সময় লেগেছে। বিকল্প মার্কেট থেকে পেঁয়াজ আনতে ৪৫-৫০ দিন সময় লেগেছে।’

তিনি বলেন, এবার ভারতেই পেঁয়াজের দাম কেজিতে ১৫০ রুপিতে উঠেছিল। এবার প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আগামী ৩ বছরের মধ্যে আমরা উদ্বৃত্তের দেশ হব।

মন্ত্রী সংসদ সদস্যদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনার নিজের এলাকায় প্রত্যেকে একটু প্রোঅ্যাকটিভ হউন। একটু পেঁয়াজ লাগাইয়া দেন না কেন? একটা সময় তো নিশ্চয়ই স্বয়ংসম্পর্ণ হতে হবে। এবার চোখ খুলে দিয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি এই বিপদ সম্পদে রূপান্তরিত করব।’

 

ঘটনাপ্রবাহ : পেঁয়াজের মূল্যবৃদ্ধি