কাঠমান্ডুতে কফিনের পাশে কান্নায় ভেঙে পড়েন স্বজনরা

  অনলাইন ডেস্ক ১৯ মার্চ ২০১৮, ১৪:২৭ | অনলাইন সংস্করণ

ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স

অবশেষে নেপালি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নিহত ২৩ বাংলাদেশির মরদেহ বুঝে পেয়েছে বাংলাদেশ। কাঠমান্ডুতে জানাজা শেষে নিহতদের দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়া চলছে।

সকালে পৃথক কফিনে করে ২৩ জনের মরদেহ নেপালে বাংলাদেশ দূতাবাসের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এর পর কাঠমান্ডুর বাংলাদেশ দূতাবাসের আঙিনায় কফিনগুলো সারিবদ্ধ করে রাখা হয়। এ সময় সেখানে উপস্থিত আত্মীয়স্বজনরা কফিনের পাশে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

কফিনের ওপরে আপনজনের নাম লেখা দেখে হাউমাউ করে কেঁদে ফেলেন তারা। অনেকে কালো হরফে লেখা স্বজনের নামের ওপর বারবার হাত বুলিয়ে দিচ্ছিলেন। কেউ কেউ কফিনের পাশে নির্বাক দাঁড়িয়ে থাকেন।

এ সময় লাশ নিতে আসা স্বজনরাই একে অপরের কাঁধে হাত রেখে সান্ত্বনা দেওয়ার চেষ্টা করেন। সান্ত্বনা পেয়ে যেন নির্বাক শোক কান্নায় ভেঙে পড়ছিল।

১২ মার্চ থেকে ১৯ মার্চ। এই সাতটি দিন তাদের কাছে হয়তো মনে হয়েছে সাতযুগের সমান। প্রিয়জন হারানোর কষ্ট বুকে নিয়ে অপেক্ষার প্রহর গুনতে হয়েছে তাদের। তাই কফিনের পাশে দাঁড়িয়ে নির্বাক হয়ে গেছেন স্বজনরা।

১২ মার্চ দুপুরে কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের আগমুহূর্তে বিধ্বস্ত হয় ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট।

বিমানটিতে ৩৬ বাংলাদেশিসহ ৭১ আরোহী ছিলেন। এর মধ্যে ২৬ বাংলাদেশিসহ ৫১ জন নিহত হন।

নেপালে নিযুক্ত বাংলাদেশি রাষ্ট্রদূত মাশফি বিনতে শামস জানান, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত আলিফউজ্জামান, পিয়াস রায় ও মোহাম্মদ নজরুল ইসলামের মরদেহ এখনও শনাক্ত হয়নি। এ তিনজনের ক্ষেত্রে ডিএনএ টেস্ট করাতে এখনও ১০ থেকে ২১ দিন সময় লাগবে।

এ ছাড়া বাকি ২৩ বাংলাদেশির মরদেহ শনাক্ত করা হয়েছে। তারা হলেন- পাইলট আবিদ সুলতান, কো-পাইলট পৃথুলা রশীদ, কেবিন ক্রু খাজা হোসেন মো. শফি এবং যাত্রী ফয়সাল আহমেদ, বিলকিস আরা, মোসাম্মৎ আখতারা বেগম, মো. রকিবুল হাসান, সানজিদা হক, মো. হাসান ইমাম, মিনহাজ বিন নাসির, শিশু তামারা প্রিয়ন্ময়ী, মো. মতিউর রহমান, এসএম মাহমুদুর রহমান, তাহিরা তানভীন শশী রেজা, শিশু অনিরুদ্ধ জামান, মো. নুরুজ্জামান, মো. রফিকুজ জামান ও ক্রু শারমিন আক্তার নাবিলা।

জানা গেছে, বিকাল ৩টায় কাঠমান্ডু থেকে ঢাকায় আসবে ২৩ বাংলাদেশির মরদেহ। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিভিআইপি টারমাক-১ এ অবতরণ করবে মরদেহবাহী বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর উড়োজাহাজ।

সেখান থেকে মরদেহগুলো নেয়া হবে আর্মি স্টেডিয়ামে। বিকাল ৪টায় সেখানে নিহতদের দ্বিতীয় জানাজা শেষে মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। এ নিহতদের শ্রদ্ধা জানাতে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্বজনরা নিহতদের মরদেহ ঢাকা বা ঢাকার বাইরে নিয়ে যেতে চাইলে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স সেখানে পৌঁছে দেবে বলে জানিয়েছে।

ঘটনাপ্রবাহ : নেপালে ইউএস বাংলা বিধ্বস্ত

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter