ডা. সাবরিনাকে আবারও রিমান্ডে চাইবে ডিবি
jugantor
ডা. সাবরিনাকে আবারও রিমান্ডে চাইবে ডিবি

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৬ জুলাই ২০২০, ১৯:৩৪:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

ডা.সাবরিনাকে আবারও রিমান্ডে চাইবে ডিবি
ডা. সাবরিনা। ফাইল ছবি

কোভিড-১৯ টেস্ট নিয়ে জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা.সাবরিনা এ চৌধুরীর আরও রিমান্ড চায় ডিবি।

তিন দিনের রিমান্ডে শেষে সাবরিনাকে আবারও রিমান্ডে নেয়ার জন্য আবেদন করা হবে বলে জানিয়েছে মামলার তদন্তকারী সংস্থাটি।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আবদুল বাতেন একথা জানান।

তিনি বলেন, সাবরিনার রিমান্ড শেষ হলে আদালতের কাছে তাকে আরো রিমান্ডের জন্য আবেদন করা হবে।

আব্দুল বাতেন বলেন, সাবরিনার প্রতিষ্ঠান জেকেজির করোনার নমুনা সংগ্রহের অনুমোদন ছিল কিন্তু তাদের সনদ দেয়ার অনুমোদন ছিল না। তারা অবৈধভাবে সেই কাজটি করেছে। তবে যে সার্টিফিকেটগুলো দিয়েছে সেগুলো কতটুকু সত্য মিথ্যার তদন্ত এখনও বাকি আছে। আমরা আদালতের কাছে সাবরিনার আরও রিমান্ড আবেদন করবো। যে বিষয়গুলো বাকি আছে আমাদের সন্দিহান সে বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলব।

জানা গেছে, রিমান্ডে সাবরিনা এই জালিয়াতির দায় তার স্বামীর ওপর চাপানোর চেষ্টা করেছেন। বলেছেন, আরিফের জন্যই তার এই অবস্থা। আরিফও সাবরিনাকে দোষারুপ করেছেন।

সাবরিনার দাবি তিনি আরিফকে ডিভোর্স  দিয়েছেন। তিনি জেকেজির সঙ্গেও সম্পর্ক ত্যাগ করেন বলে দাবি সাবরিনার। 

তিন দিনের রিমান্ডে থাকা সাবরিনা ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাছে এসব দাবি করছেন।

সাবরিনা ও  আরিফ দুজনই রিমান্ডে রয়েছেন। সাবরিনার রিমান্ড শেষ হয়েছে আজ। আর আরিফের রিমান্ডের প্রথম দিন গেছে।
 

ডা. সাবরিনাকে আবারও রিমান্ডে চাইবে ডিবি

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৬ জুলাই ২০২০, ০৭:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ডা.সাবরিনাকে আবারও রিমান্ডে চাইবে ডিবি
ডা. সাবরিনা। ফাইল ছবি

কোভিড-১৯ টেস্ট নিয়ে জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেফতার হওয়া জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা.সাবরিনা এ চৌধুরীর আরও রিমান্ড চায় ডিবি।

তিন দিনের রিমান্ডে শেষে সাবরিনাকে আবারও রিমান্ডে নেয়ার জন্য আবেদন করা হবে বলে জানিয়েছে মামলার তদন্তকারী সংস্থাটি।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আবদুল বাতেন একথা জানান।

তিনি বলেন, সাবরিনার রিমান্ড শেষ হলে আদালতের কাছে তাকে আরো রিমান্ডের জন্য আবেদন করা হবে।

আব্দুল বাতেন বলেন, সাবরিনার প্রতিষ্ঠান জেকেজির করোনার নমুনা সংগ্রহের অনুমোদন ছিল কিন্তু তাদের সনদ দেয়ার অনুমোদন ছিল না। তারা অবৈধভাবে সেই কাজটি করেছে। তবে যে সার্টিফিকেটগুলো দিয়েছে সেগুলো কতটুকু সত্য মিথ্যার তদন্ত এখনও বাকি আছে। আমরা আদালতের কাছে সাবরিনার আরও রিমান্ড আবেদন করবো। যে বিষয়গুলো বাকি আছে আমাদের সন্দিহান সে বিষয়গুলো নিয়ে কথা বলব।

জানা গেছে, রিমান্ডে সাবরিনা এই জালিয়াতির দায় তার স্বামীর ওপর চাপানোর চেষ্টা করেছেন। বলেছেন, আরিফের জন্যই তার এই অবস্থা। আরিফও সাবরিনাকে দোষারুপ করেছেন।

সাবরিনার দাবি তিনি আরিফকে ডিভোর্স দিয়েছেন। তিনি জেকেজির সঙ্গেও সম্পর্ক ত্যাগ করেন বলে দাবি সাবরিনার।

তিন দিনের রিমান্ডে থাকা সাবরিনা ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের কাছে এসব দাবি করছেন।

সাবরিনা ও আরিফ দুজনই রিমান্ডে রয়েছেন। সাবরিনার রিমান্ড শেষ হয়েছে আজ। আর আরিফের রিমান্ডের প্রথম দিন গেছে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : করোনা টেস্ট প্রতারণায় জেকেজি