‘১৯ বার মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েও বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করছেন প্রধানমন্ত্রী’
jugantor
‘১৯ বার মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েও বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করছেন প্রধানমন্ত্রী’

  পিরোজপুর প্রতিনিধি  

১৫ আগস্ট ২০২০, ১৯:৪০:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

 

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, ১৯ বার মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েও মৃত্যুঞ্জয়ী শেখ হাসিনা এ দেশের মানুষের অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা ও উন্নত সমৃদ্ধ আধুনিক বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করছেন।

শনিবার সকালে পিরোজপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে জেলা প্রশাসন আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

পিরোজপুর জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেনের সভাপতিত্বে এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার হায়াতুল ইসলাম খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমএ হাকিম হাওলাদার, সিভিল সার্জন ডা. হাসানাত ইউসুফ জাকী, অধ্যক্ষ প্রফেসর আলী আজম, প্রশাসনের কর্মকর্তা, আক্তারুজ্জামান ফুলু, জিয়াউল আহসান গাজী, অব. জেলা জজ আ. ছালাম সিকদার, মুনিরুজ্জামান নাসিম, প্যানেল মেয়র সাদুল্লাহ লিটন, মাকসুদুল ইসলাম লিটন, গোপাল বসু, জাহিদুল ইসলাম টিটু ও অনিরুজ্জামান অনিক।

পরে মন্ত্রী যুব উন্নয়নে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বিভিন্ন ট্রেডের চার জনকে ২ লাখ ৬০ হাজার টাকার চেক এবং শিশু একাডেমীর বিজয়ী প্রতিযোগীদের মধ্যে পুরষ্কার ও একটি করে বৃক্ষের চারা তুলে দেন।

‘১৯ বার মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েও বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করছেন প্রধানমন্ত্রী’

 পিরোজপুর প্রতিনিধি 
১৫ আগস্ট ২০২০, ০৭:৪০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, ১৯ বার মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েও মৃত্যুঞ্জয়ী শেখ হাসিনা এ দেশের মানুষের অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা ও উন্নত সমৃদ্ধ আধুনিক বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করছেন।

শনিবার সকালে পিরোজপুরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে জেলা প্রশাসন আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

পিরোজপুর জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেনের সভাপতিত্বে এসময় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার হায়াতুল ইসলাম খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এমএ হাকিম হাওলাদার, সিভিল সার্জন ডা. হাসানাত ইউসুফ জাকী, অধ্যক্ষ প্রফেসর আলী আজম, প্রশাসনের কর্মকর্তা, আক্তারুজ্জামান ফুলু, জিয়াউল আহসান গাজী, অব. জেলা জজ আ. ছালাম সিকদার, মুনিরুজ্জামান নাসিম, প্যানেল মেয়র সাদুল্লাহ লিটন, মাকসুদুল ইসলাম লিটন, গোপাল বসু, জাহিদুল ইসলাম টিটু ও অনিরুজ্জামান অনিক।

পরে মন্ত্রী যুব উন্নয়নে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বিভিন্ন ট্রেডের চার জনকে ২ লাখ ৬০ হাজার টাকার চেক এবং শিশু একাডেমীর বিজয়ী প্রতিযোগীদের মধ্যে পুরষ্কার ও একটি করে বৃক্ষের চারা তুলে দেন।