বিপুল সংখ্যক প্রবাসী দেশে ফিরতে পারেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
jugantor
বিপুল সংখ্যক প্রবাসী দেশে ফিরতে পারেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  সিলেট ব্যুরো  

২০ আগস্ট ২০২০, ২০:১৮:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন। ফাইল ছবি

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে দেশে বিপুল সংখ্যক প্রবাসী ফিরে আসতে বাধ্য হতে পারেন বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। কিন্তু তারা যেন দেশে এসে বেকার না থাকেন সেজন্য তাদের কর্মসংস্থানের বিষয়টি তুলে ধরেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে পানি ও মানুষ দুটো সম্পদ। এই দুটি সম্পদকে যথাযথভাবে কাজে লাগাতে হবে। আমাদের বিপুল সংখ্যক প্রবাসী দেশে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই দেশে ফেরা এসব মানুষের যাতে কর্মসংস্থানের অভাব না হয় সেভাবে দেশকে গড়ে তুলতে হবে।

বৃহস্পতিবার সিলেটে সদর উপজেলার খাদিমনগর ইউনিয়নের সাহেব বাজার এলাকার পাঠানগাঁওয়ে একটি অর্গানিক এগ্রো টেকনোলজি পার্ক এন্ড রিসোর্টের উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, দেশে করোনার প্রাদুর্ভাবের শুরুতে আমরা যখন ভেন্টিলেশন, মাস্ক, পিপিই এসব নিয়ে ব্যতিব্যস্ত, তখন আমাদেরকে প্রধানমন্ত্রী বললেন- আপনারা এগুলো নিয়ে ব্যস্ত থাকে অসুবিধা নাই। তবে আমার দেশে একটি মানুষও যেন এই করোনাকালে না খেয়ে থাকে, সেদিকে তীক্ষ্ম নজর রাখতে হবে। অনেকে আছে যাদের নাম অনুদানের তালিকায় নেই, তারাও যেন সহযোগিতা পায়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর সেই নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করেছি এবং যার ফলে এই মহামারীর দীর্ঘদিনের কঠিন পরিস্থিতিতেও দেশে একজন মানুষও না খেয়ে থাকেননি।

বিপুল সংখ্যক প্রবাসী দেশে ফিরতে পারেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

 সিলেট ব্যুরো 
২০ আগস্ট ২০২০, ০৮:১৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন। ফাইল ছবি
পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেন। ফাইল ছবি

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে দেশে বিপুল সংখ্যক প্রবাসী ফিরে আসতে বাধ্য হতে পারেন বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন। কিন্তু তারা যেন দেশে এসে বেকার না থাকেন সেজন্য তাদের কর্মসংস্থানের বিষয়টি তুলে ধরেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে পানি ও মানুষ দুটো সম্পদ। এই দুটি সম্পদকে যথাযথভাবে কাজে লাগাতে হবে। আমাদের বিপুল সংখ্যক প্রবাসী দেশে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই দেশে ফেরা এসব মানুষের যাতে কর্মসংস্থানের অভাব না হয় সেভাবে দেশকে গড়ে তুলতে হবে।

বৃহস্পতিবার সিলেটে সদর উপজেলার খাদিমনগর ইউনিয়নের সাহেব বাজার এলাকার পাঠানগাঁওয়ে  একটি  অর্গানিক এগ্রো টেকনোলজি পার্ক এন্ড রিসোর্টের উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, দেশে করোনার প্রাদুর্ভাবের শুরুতে আমরা যখন ভেন্টিলেশন, মাস্ক, পিপিই এসব নিয়ে ব্যতিব্যস্ত, তখন আমাদেরকে প্রধানমন্ত্রী বললেন- আপনারা এগুলো নিয়ে ব্যস্ত থাকে অসুবিধা নাই। তবে আমার দেশে একটি মানুষও যেন এই করোনাকালে না খেয়ে থাকে, সেদিকে তীক্ষ্ম নজর রাখতে হবে। অনেকে আছে যাদের নাম অনুদানের তালিকায় নেই, তারাও যেন সহযোগিতা পায়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর সেই নির্দেশনা মোতাবেক কাজ করেছি এবং যার ফলে এই মহামারীর দীর্ঘদিনের কঠিন পরিস্থিতিতেও দেশে একজন মানুষও না খেয়ে থাকেননি।