ওয়াহিদার ডান পাশ প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিল 
jugantor
ওয়াহিদার ডান পাশ প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিল 

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:১৭:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

ওয়াহিদার ডান পাশ প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিল 

সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের ইউএনও ওয়াহিদা খানমের শরীরের ডান পাশ প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিল। তিনি ডান হাত ও পা নাড়াতে পারতেন না। তবে এখন তিনি শঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছেন ডাক্তাররা।

ওয়াহিদা এখন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্স ও হাসপাতালে ভর্তি। হাসপাতালর যুগ্ম পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল হক জানান, ওয়াহিদার শরীরের এত দ্রুত উন্নতি ঘটছে, যা সত্যিই বিস্ময়কর।

বৃহস্পতিবার রাতে তিনি বলেন, ওয়াহিদার শরীরের ডান পাশ প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিল। কয়েকদিন আগে আমরা দেখেছি তিনি ডান হাত নাড়াতে পারছেন, মাথার ওপর তুলতে পারছেন। এখন ওয়াহিদা তার ডান পা নাড়াতে পেরেছেন। এটি সত্যিই খুব ভালো খবর।

ওয়াহিদার বর্তমান শরীরের অবস্থা সম্পর্কে ডা. বদরুল হক জানান, ওয়াহিদার মাথার সব সেলাই কাটা হয়েছে। অস্ত্রোপচারের স্থানে কোনো সমস্যা নেই। তবে তিনি নিজে থেকে ইউরিন পাস করতে পারছেন না, ক্যাথেটার ব্যবহার করতে হচ্ছে। এজন্য তাকে আমরা কেবিনে দিতে পারছি না।

প্রসঙ্গত, ২ সেপ্টেম্বর রাত ৩টার দিকে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলীর ওপর হামলা হয়। পরদিন সকালে তাদের প্রথমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে ইউএনও ওয়াহিদা খানমকে ঢাকায় ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে তার বাবাকেও ঢাকায় এনে এই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ওয়াহিদার ডান পাশ প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিল 

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:১৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ওয়াহিদার ডান পাশ প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিল 
ফাইল ছবি

সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের ইউএনও ওয়াহিদা খানমের শরীরের ডান পাশ প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিল। তিনি ডান হাত ও পা নাড়াতে পারতেন না। তবে এখন তিনি শঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছেন ডাক্তাররা।

ওয়াহিদা এখন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরো সায়েন্স ও হাসপাতালে ভর্তি। হাসপাতালর যুগ্ম পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল হক জানান, ওয়াহিদার শরীরের এত দ্রুত উন্নতি ঘটছে, যা সত্যিই বিস্ময়কর। 

বৃহস্পতিবার রাতে তিনি বলেন, ওয়াহিদার শরীরের ডান পাশ প্যারালাইজড হয়ে গিয়েছিল। কয়েকদিন আগে আমরা দেখেছি তিনি ডান হাত নাড়াতে পারছেন, মাথার ওপর তুলতে পারছেন। এখন ওয়াহিদা তার ডান পা নাড়াতে পেরেছেন। এটি সত্যিই খুব ভালো খবর। 

ওয়াহিদার বর্তমান শরীরের অবস্থা সম্পর্কে ডা. বদরুল হক জানান, ওয়াহিদার মাথার সব সেলাই কাটা হয়েছে। অস্ত্রোপচারের স্থানে কোনো সমস্যা নেই। তবে তিনি নিজে থেকে ইউরিন পাস করতে পারছেন না, ক্যাথেটার ব্যবহার করতে হচ্ছে। এজন্য তাকে আমরা কেবিনে দিতে পারছি না। 

প্রসঙ্গত, ২ সেপ্টেম্বর রাত ৩টার দিকে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলীর ওপর হামলা হয়। পরদিন সকালে তাদের প্রথমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে ইউএনও ওয়াহিদা খানমকে ঢাকায় ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে তার বাবাকেও ঢাকায় এনে এই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। 
 

 

ঘটনাপ্রবাহ : ইউএনও ওয়াহিদার ওপর হামলা

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০