সাহেদের বিরুদ্ধে এবার মুন্সীগঞ্জে চেক জালিয়াতির মামলা
jugantor
সাহেদের বিরুদ্ধে এবার মুন্সীগঞ্জে চেক জালিয়াতির মামলা

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:১৯:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

সাহেদের বিরুদ্ধে এবার মুন্সীগঞ্জে চেক জালিয়াতির মামলা

করোনা টেস্ট নিয়ে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণার হোতা রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে এবার চেক জালিয়াতির অভিযোগে মুন্সীগঞ্জ আদালতে মামলা হয়েছে।

রোববার মুন্সীগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালত ৪-এ মো. হুমায়ুন কবির ওরফে শোভন চোকদার নামে এক বালু ব্যবসায়ী এ মামলা করেন।
মামলার বরাত দিয়ে বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নিখিল চন্দ্র মল্লিক জানান, হুমায়ুনের কাছ থেকে ১২ লাখ ৫৭ হাজার ৮১৬ টাকার বালু কিনে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা দেন সাহেদ। পরে সাহেদ তার নিজের নামে ৩ লাখ টাকার দুটি চেক হুমায়ুনকে দেন এবং বাকি টাকা পরে পরিশোধ করবেন বলে জানান।
নিখিল বলেন, পরে হুমায়ূন টাকা তোলার জন্য চেক দুটি ব্যাংকে জমা দিলে সাহেদের অ্যাকাউন্টে টাকা না থাকায় তা ডিসঅনার করে ফেরত দেয়া হয়। এর পর উকিল নোটিশ দিলেও আসামি টাকা ফেরত না দেয়ায় রোববার আদালতে চেক জালিয়াতির মামলা করা হয়।

আদালতের বিচারক আরফাতুল রাকিব মামলাটি আমলে নিয়ে সাহেদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার আদেশ দেন।
এদিকে দুদকের মামলায় অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে সাহেদের বিচার শুরু হয়েছে।
আর করোনা টেস্ট নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ করা মামলায় গ্রেফতার হয়ে সাহেদ এখন কারাবন্দি। তাকে কয়েক দফা রিমান্ডে নেয়া হয়।

সাহেদের বিরুদ্ধে এবার মুন্সীগঞ্জে চেক জালিয়াতির মামলা

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সাহেদের বিরুদ্ধে এবার মুন্সীগঞ্জে চেক জালিয়াতির মামলা
ফাইল ছবি

করোনা টেস্ট নিয়ে রোগীদের সঙ্গে প্রতারণার হোতা রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ করিমের বিরুদ্ধে এবার চেক জালিয়াতির অভিযোগে মুন্সীগঞ্জ আদালতে মামলা হয়েছে।

রোববার মুন্সীগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালত ৪-এ মো. হুমায়ুন কবির ওরফে শোভন চোকদার নামে এক বালু ব্যবসায়ী এ মামলা করেন।
মামলার বরাত দিয়ে বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট নিখিল চন্দ্র মল্লিক জানান, হুমায়ুনের কাছ থেকে ১২ লাখ ৫৭ হাজার ৮১৬ টাকার বালু কিনে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা দেন সাহেদ। পরে সাহেদ তার নিজের নামে ৩ লাখ টাকার দুটি চেক হুমায়ুনকে দেন এবং বাকি টাকা পরে পরিশোধ করবেন বলে জানান।
নিখিল বলেন, পরে হুমায়ূন টাকা তোলার জন্য চেক দুটি ব্যাংকে জমা দিলে সাহেদের অ্যাকাউন্টে টাকা না থাকায় তা ডিসঅনার করে ফেরত দেয়া হয়। এর পর উকিল নোটিশ দিলেও আসামি টাকা ফেরত না দেয়ায় রোববার আদালতে চেক জালিয়াতির মামলা করা হয়।

আদালতের বিচারক আরফাতুল রাকিব মামলাটি আমলে নিয়ে সাহেদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানার আদেশ দেন। 
এদিকে দুদকের মামলায় অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে সাহেদের বিচার শুরু হয়েছে।
আর করোনা টেস্ট নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ করা মামলায় গ্রেফতার হয়ে সাহেদ এখন কারাবন্দি। তাকে কয়েক দফা রিমান্ডে নেয়া হয়।
 

 

ঘটনাপ্রবাহ : রিজেন্ট গ্রুপ চেয়ারম্যান সাহেদ কাণ্ড

আরও খবর