রাষ্ট্রায়ত্ত কারখানা বন্ধ করে শ্রমিকদের কর্মহারা করা হবে না: শিল্পমন্ত্রী
jugantor
রাষ্ট্রায়ত্ত কারখানা বন্ধ করে শ্রমিকদের কর্মহারা করা হবে না: শিল্পমন্ত্রী

  ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি  

০১ অক্টোবর ২০২০, ২২:২৭:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি বর্তমান সরকারের একটি রাজনৈতিক অঙ্গীকার। তাই রাষ্ট্রায়ত্ত কোনো কারখানা বন্ধ করে শ্রমিকদের কর্মহারা করার প্রশ্নই ওঠে না।

বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় ঠাকুরগাঁও সাকির্ট হাউসে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় চিনিকল সম্পর্কে তিনি এ মন্তব্য করেন।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, সরকারি চিনিকলের কোনো শ্রমিক ছাঁটাইয়ের পরিকল্পনাও সরকারের নেই। চিনি শিল্পকে অর্থনৈতিকভাবে লাভজনক হিসেবে গড়ে তুলতে নতুন করে নতুন রূপে সাজানো হচ্ছে। এসব কারখানায় নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে মান্ধাতা আমলের মেশিনারি পরিবর্তন করে আধুনিক যন্ত্রপাতি প্রতিস্থাপন এবং প্রশিক্ষিত জনবল তৈরির উদ্যোগ জোরদার করা হচ্ছে।

এ সময় সেখানে উপস্থিত রেলমন্ত্রী মো. নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, দেশের একমাত্র ভারি শিল্প চিনিকল। এ শিল্পের উন্নয়নে রেল মন্ত্রণালয় সহযোগিতা দেবে।

এর আগে দুই মন্ত্রী ঠাকুরগাঁও চিনিকল পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শে তিনি চিনিকলগুলো ঘুরে দেখছেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঠাকুরগাঁও-১ আসনের সংসদ সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন, চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান সনদ কুমার সাহা, জেলা প্রশাসক কেএম কামরুজ্জামান সেলিম, পুলিশ সুপার মোহা. মনিরুজ্জামানসহ উত্তরাঞ্চলের ৯টি চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী, আখচাষী এবং শ্রমিক নেতারা।

রাষ্ট্রায়ত্ত কারখানা বন্ধ করে শ্রমিকদের কর্মহারা করা হবে না: শিল্পমন্ত্রী

 ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি 
০১ অক্টোবর ২০২০, ১০:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি বর্তমান সরকারের একটি রাজনৈতিক অঙ্গীকার। তাই রাষ্ট্রায়ত্ত কোনো কারখানা বন্ধ করে শ্রমিকদের কর্মহারা করার প্রশ্নই ওঠে না।

বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় ঠাকুরগাঁও সাকির্ট হাউসে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় চিনিকল সম্পর্কে তিনি এ মন্তব্য করেন। 

শিল্পমন্ত্রী বলেন, সরকারি চিনিকলের কোনো শ্রমিক ছাঁটাইয়ের পরিকল্পনাও সরকারের নেই। চিনি শিল্পকে অর্থনৈতিকভাবে লাভজনক হিসেবে গড়ে তুলতে নতুন করে নতুন রূপে সাজানো হচ্ছে। এসব কারখানায় নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে মান্ধাতা আমলের মেশিনারি পরিবর্তন করে আধুনিক যন্ত্রপাতি প্রতিস্থাপন এবং প্রশিক্ষিত জনবল তৈরির উদ্যোগ জোরদার করা হচ্ছে।

এ সময় সেখানে উপস্থিত রেলমন্ত্রী মো. নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, দেশের একমাত্র ভারি শিল্প চিনিকল। এ শিল্পের উন্নয়নে রেল মন্ত্রণালয় সহযোগিতা দেবে। 

এর আগে দুই মন্ত্রী ঠাকুরগাঁও চিনিকল পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন প্রধানমন্ত্রীর নিদের্শে তিনি চিনিকলগুলো ঘুরে দেখছেন। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঠাকুরগাঁও-১ আসনের সংসদ সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন, চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান সনদ কুমার সাহা, জেলা প্রশাসক কেএম কামরুজ্জামান সেলিম, পুলিশ সুপার মোহা. মনিরুজ্জামানসহ উত্তরাঞ্চলের ৯টি চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী, আখচাষী এবং শ্রমিক নেতারা।