সেলিমপুত্র ইরফান ও তার দেহরক্ষীর রিমান্ড শুনানি আজ
jugantor
সেলিমপুত্র ইরফান ও তার দেহরক্ষীর রিমান্ড শুনানি আজ

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৮ অক্টোবর ২০২০, ১১:০৫:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

সেলিমপুত্র ইরফান ও তার দেহরক্ষীর রিমান্ড শুনানি আজ

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর ও হত্যাচেষ্টা মামলায় ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদের রিমান্ড শুনানি আজ। ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ শুনানি হবে।

ভ্রাম্যমাণ আদালতে এক বছর দণ্ডিত ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদকে সাত দিনের রিমান্ডে পেতে চায় পুলিশ। এ মর্মে মঙ্গলবার আদালতে আবেদন করা হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনার আরেক আসামি এবি সিদ্দিক ওরফে দীপুর তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এর আগের দিন ইরফানের গাড়িচালক মিজানুর রহমানকে একদিনের রিমান্ডে নেয়ার অনুমতি পায় পুলিশ।
সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে সেলিমের সহযোগী এবি সিদ্দিক ওরফে দীপুকে টাঙ্গাইল থেকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি একসময় হাজী সেলিমের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা ছিলেন, এখন তার ছেলে ইরফান সেলিমের সঙ্গে থাকেন।

ইরফান সেলিমের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা এবি সিদ্দিকের গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মারধর ও হত্যাচেষ্টা মামলায় চার আসামিই গ্রেফতার হলেন।

রোববার রাতে নৌবাহিনীর ওই কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনায় ধানমণ্ডি থানায় মামলা হয়। এর পর পুরান ঢাকায় হাজী সেলিমের বাসায় র‌্যাব অভিযান চালায়। এ সময় র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত মাদক রাখার দায়ে ইরফান সেলিমকে এক বছর কারাদণ্ড দেন। অবৈধ ওয়াকিটকি রাখার কারণে দিয়েছেন ছয় মাসের কারাদণ্ড। ইরফানের দেহরক্ষী মো. জাহিদকে ওয়াকিটকি বহন করার দায়ে ছয় মাস সাজা দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

অভিযানে ওই বাড়ি থেকে অস্ত্র, ইয়াবা, ৩৮টি ওয়াকিটকি ও অন্যান্য সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

প্রসঙ্গত গত রোববার রাতে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ওয়াসিফ আহমেদ খান বই কিনে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে মোটরসাইকেলে যাচ্ছিলেন। ধানমণ্ডির ল্যাবএইড হাসপাতালের সামনে পেছন থেকে তার মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয় সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের স্টিকারযুক্ত গাড়ি। ওয়াসিফ নিজের পরিচয় দিলেও গাড়ি থেকে নেমে একজন গালাগাল করে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যান। এর পর গাড়িটি কলাবাগান বাসস্ট্যান্ড সিগন্যালে দাঁড়ালে ওয়াসিফ মোটরসাইকেল নিয়ে সেখানে গিয়ে গাড়িটির জানালায় নক করেন। তখন গাড়ি থেকে লোকজন নেমে ওয়াসিফকে মারধর করে রক্তাক্ত করেন। তাদের বিরুদ্ধে পর দিন সকালে ধানমণ্ডি থানায় মামলা করেন ওয়াসিফ।


সেলিমপুত্র ইরফান ও তার দেহরক্ষীর রিমান্ড শুনানি আজ

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৮ অক্টোবর ২০২০, ১১:০৫ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সেলিমপুত্র ইরফান ও তার দেহরক্ষীর রিমান্ড শুনানি আজ
ফাইল ছবি

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর ও হত্যাচেষ্টা মামলায় ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদের রিমান্ড শুনানি আজ। ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ শুনানি হবে। 

ভ্রাম্যমাণ আদালতে এক বছর দণ্ডিত ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদকে সাত দিনের রিমান্ডে পেতে চায় পুলিশ। এ মর্মে মঙ্গলবার আদালতে আবেদন করা হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনার আরেক আসামি এবি সিদ্দিক ওরফে দীপুর তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এর আগের দিন ইরফানের গাড়িচালক মিজানুর রহমানকে একদিনের রিমান্ডে নেয়ার অনুমতি পায় পুলিশ। 
সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে সেলিমের সহযোগী এবি সিদ্দিক ওরফে দীপুকে টাঙ্গাইল থেকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি একসময় হাজী সেলিমের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা ছিলেন, এখন তার ছেলে ইরফান সেলিমের সঙ্গে থাকেন।

ইরফান সেলিমের ব্যক্তিগত কর্মকর্তা এবি সিদ্দিকের গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মারধর ও হত্যাচেষ্টা মামলায় চার আসামিই গ্রেফতার হলেন।

রোববার রাতে নৌবাহিনীর ওই কর্মকর্তাকে মারধরের ঘটনায় ধানমণ্ডি থানায় মামলা হয়। এর পর পুরান ঢাকায় হাজী সেলিমের বাসায় র‌্যাব অভিযান চালায়। এ সময় র‍্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত মাদক রাখার দায়ে ইরফান সেলিমকে এক বছর কারাদণ্ড দেন। অবৈধ ওয়াকিটকি রাখার কারণে দিয়েছেন ছয় মাসের কারাদণ্ড। ইরফানের দেহরক্ষী মো. জাহিদকে ওয়াকিটকি বহন করার দায়ে ছয় মাস সাজা দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

অভিযানে ওই বাড়ি থেকে অস্ত্র, ইয়াবা, ৩৮টি ওয়াকিটকি ও অন্যান্য সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। 

প্রসঙ্গত গত রোববার রাতে নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ওয়াসিফ আহমেদ খান বই কিনে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে মোটরসাইকেলে যাচ্ছিলেন। ধানমণ্ডির ল্যাবএইড হাসপাতালের সামনে পেছন থেকে তার মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয় সংসদ সদস্য হাজী সেলিমের স্টিকারযুক্ত গাড়ি। ওয়াসিফ নিজের পরিচয় দিলেও গাড়ি থেকে নেমে একজন গালাগাল করে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যান। এর পর গাড়িটি কলাবাগান বাসস্ট্যান্ড সিগন্যালে দাঁড়ালে ওয়াসিফ মোটরসাইকেল নিয়ে সেখানে গিয়ে গাড়িটির জানালায় নক করেন। তখন গাড়ি থেকে লোকজন নেমে ওয়াসিফকে মারধর করে রক্তাক্ত করেন। তাদের বিরুদ্ধে পর দিন সকালে ধানমণ্ডি থানায় মামলা করেন ওয়াসিফ।


 

 

ঘটনাপ্রবাহ : হাজী সেলিমপুত্র ইরফানের কাণ্ড

আরও খবর