দিনাজপুরে প্রেমিকাকে হত্যার দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন
jugantor
দিনাজপুরে প্রেমিকাকে হত্যার দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন

  দিনাজপুর প্রতিনিধি  

২৩ নভেম্বর ২০২০, ০০:০১:০২  |  অনলাইন সংস্করণ

দিনাজপুর প্রতিনিধি

দিনাজপুরের বীরগঞ্জে প্রেমিকাকে হত্যার দায়ে মাহফুজ আলম মানিক নামে এক প্রেমিকের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত।

রোববার বিকেলে দিনাজপুরের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমদ ভুঞা এই রায় ঘোষণা করেন।

মাহফুজ আলম মানিক দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার চাকাই গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে।

আদালত সুত্রে জানা যায়, মাহফুজ আলম মানিকের সঙ্গে বেশ কিছুদিন ধরেই একই উপজেলার শীতলাই চৌধুরীপাড়া গ্রামের আব্দুল মালেকের মেয়ে রোমানা আক্তার মৌয়ের প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। এক পর্যায়ে তাদের সম্পর্কের দূরত্ব সৃষ্টি হয়।

গত ২০১৫ সালের ১৬ জুলাই সন্ধ্যার পর ঈদের কেনাকাটা করে বাড়ি ফেরার সময় মৌয়ের বাড়ির অদূরে কালীরডাঙ্গা নামকস্থানে প্রেমিক মানিক তার গতিরোধ করে। এ সময় মানিক তার সঙ্গে থাকা ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে মৌকে গুরুতর আহত করে এবং গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মৌ মারা যায়।

এই ঘটনায় পরের দিন ১৭ জুলাই নিহত মৌয়ের বাবা আব্দুল মালেক বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামিদের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।

২৬ জুলাই আসামি মানিক র‌্যাবের হাতে আটক হয়। পরের দিন তাকে আদালতে সোপর্দ করলে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে নিজের দোষ স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় আসামি মাহফুজ আলম মানিক।

আদালতে সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে রোববার বিকেলে আদালতে আসামি মাহফুজ আলম মানিকের উপস্থিতিতে বিচারক এই রায় ঘোষণা করেন।

মামলাটি রাষ্ট্রপক্ষে পরিচালনা করেন পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এডভোকেট রবিউল ইসলাম রবি এবং আসামি পক্ষে ছিলেন এডভোকেট শফিউল আলম।

দিনাজপুরে প্রেমিকাকে হত্যার দায়ে যুবকের যাবজ্জীবন

 দিনাজপুর প্রতিনিধি 
২৩ নভেম্বর ২০২০, ১২:০১ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
দিনাজপুর প্রতিনিধি
ছবি: সংগৃহীত

দিনাজপুরের বীরগঞ্জে প্রেমিকাকে হত্যার দায়ে মাহফুজ আলম মানিক নামে এক প্রেমিকের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত। 

রোববার বিকেলে দিনাজপুরের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আজিজ আহমদ ভুঞা এই রায় ঘোষণা করেন। 

মাহফুজ আলম মানিক দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার চাকাই গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে।

আদালত সুত্রে জানা যায়, মাহফুজ আলম মানিকের সঙ্গে বেশ কিছুদিন ধরেই একই উপজেলার শীতলাই চৌধুরীপাড়া গ্রামের আব্দুল মালেকের মেয়ে রোমানা আক্তার মৌয়ের প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। এক পর্যায়ে তাদের সম্পর্কের দূরত্ব সৃষ্টি হয়। 

গত ২০১৫ সালের ১৬ জুলাই সন্ধ্যার পর ঈদের কেনাকাটা করে বাড়ি ফেরার সময় মৌয়ের বাড়ির অদূরে কালীরডাঙ্গা নামকস্থানে প্রেমিক মানিক তার গতিরোধ করে। এ সময় মানিক তার সঙ্গে থাকা ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে মৌকে গুরুতর আহত করে এবং গায়ে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মৌ মারা যায়।

এই ঘটনায় পরের দিন ১৭ জুলাই নিহত মৌয়ের বাবা আব্দুল মালেক বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামিদের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন।

২৬ জুলাই আসামি মানিক র‌্যাবের হাতে আটক হয়। পরের দিন তাকে আদালতে সোপর্দ করলে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে নিজের দোষ স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় আসামি মাহফুজ আলম মানিক।
 
আদালতে সাক্ষ্য-প্রমাণ শেষে রোববার বিকেলে আদালতে আসামি মাহফুজ আলম মানিকের উপস্থিতিতে বিচারক এই রায় ঘোষণা করেন।  

মামলাটি রাষ্ট্রপক্ষে পরিচালনা করেন পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এডভোকেট রবিউল ইসলাম রবি এবং আসামি পক্ষে ছিলেন এডভোকেট শফিউল আলম।