মানবপাচার: ৬ জনের নামে ইন্টারপোলের রেড নোটিস
jugantor
মানবপাচার: ৬ জনের নামে ইন্টারপোলের রেড নোটিস

  যুগান্তর রিপোর্ট  

৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৪:০৯:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

মানবপাচার: ৬ জনের নামে ইন্টারপোলের রেড নোটিস

লিবিয়ায় মানবপাচারে জড়িত থাকার মামলার ছয় পলাতক আসামির সন্ধান চেয়ে ইন্টারপোলের মাধ্যমে রেড নোটিস জারি করা হয়েছে।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) অনুরোধে ইন্টারপোল এই রেড নোটিস জারি করেছে।

পলাতক ছয় আসামি হল- তানজিরুল, স্বপন, ইকবাল জাফর, নজরুল ইসলাম মোল্লা, শাহাদাত হোসেন ও মিন্টু মিয়া। তারা সবাই বিদেশ আছেন।

এদের মধ্যে নজরুলের বাড়ি মাদারীপুরে, শাহাদাতের ঠিকানা ঢাকায়। বাকি চারজনই কিশোরগঞ্জের বলে ইন্টারপোলের নোটিসে উল্লেখ করা হয়েছে।

ভালো চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে বিদেশে পাচার, আটকে রেখে মুক্তিপণ আদায় এবং হত্যার অভিযোগ রয়েছে তাদের সবার বিরুদ্ধে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম ইউনিটের জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার জিসানুল হক।

২৮ মে লিবিয়ার মিজদাহ শহরে ২৬ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা করে একদল মানব পাচারকারী। এ ঘটনায় চার আফ্রিকান অভিবাসীও নিহত হন।

এ ঘটনায় বেঁচে যাওয়া একজনের বরাত দিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, উন্নত জীবিকার সন্ধানে ইউরোপ যাওয়ার জন্য লিবিয়ায় দুর্গম পথ পাড়ি দিচ্ছিলেন ৩৮ বাংলাদেশি। বেনগাজি থেকে মানবপাচারকারীরা তাদের ত্রিপোলি নিয়ে যাচ্ছিল।

লিবিয়ার মিলিশিয়া বাহিনীর সঙ্গে যোগসাজশে পাচারকারীরা মিজদাহ শহরে ওই দলটিকে জিম্মি করে এবং আরও টাকা দাবি করে।

এ নিয়ে বাগাড়ম্বরের মধ্যে আফ্রিকার মূল পাচারকারীকে হত্যা করা হয়। এ সময় তার পরিবার এবং বাকি পাচারকারীরা এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ৩০ জনকে হত্যা করে, আরও ১১ জন আহত হন।

এ ঘটনার পর ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বেশ কয়েকটি মামলা হয়। রেড নোটিস জারি হওয়া ৬ জনই ওই মামলার আসামি এবং তারা বিদেশে আছেন বলে সিআইডি কর্মকর্তারা জানান।

মানবপাচার: ৬ জনের নামে ইন্টারপোলের রেড নোটিস

 যুগান্তর রিপোর্ট 
৩০ নভেম্বর ২০২০, ০২:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মানবপাচার: ৬ জনের নামে ইন্টারপোলের রেড নোটিস
ফাইল ছবি

লিবিয়ায় মানবপাচারে জড়িত থাকার মামলার ছয় পলাতক আসামির সন্ধান চেয়ে ইন্টারপোলের মাধ্যমে রেড নোটিস জারি করা হয়েছে।

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) অনুরোধে ইন্টারপোল এই রেড নোটিস জারি করেছে। 

পলাতক ছয় আসামি হল- তানজিরুল, স্বপন, ইকবাল জাফর, নজরুল ইসলাম মোল্লা, শাহাদাত হোসেন ও মিন্টু মিয়া।  তারা সবাই বিদেশ আছেন।

এদের মধ্যে নজরুলের বাড়ি মাদারীপুরে, শাহাদাতের ঠিকানা ঢাকায়। বাকি চারজনই কিশোরগঞ্জের বলে ইন্টারপোলের নোটিসে উল্লেখ করা হয়েছে।  

ভালো চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে বিদেশে পাচার, আটকে রেখে মুক্তিপণ আদায় এবং হত্যার অভিযোগ রয়েছে তাদের সবার বিরুদ্ধে। 

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম ইউনিটের জ্যেষ্ঠ সহকারী পুলিশ সুপার জিসানুল হক। 

২৮ মে লিবিয়ার মিজদাহ শহরে ২৬ বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা করে একদল মানব পাচারকারী।  এ ঘটনায় চার আফ্রিকান অভিবাসীও নিহত হন।

এ ঘটনায় বেঁচে যাওয়া একজনের বরাত দিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল, উন্নত জীবিকার সন্ধানে ইউরোপ যাওয়ার জন্য লিবিয়ায় দুর্গম পথ পাড়ি দিচ্ছিলেন ৩৮ বাংলাদেশি। বেনগাজি থেকে মানবপাচারকারীরা তাদের ত্রিপোলি নিয়ে যাচ্ছিল।

লিবিয়ার মিলিশিয়া বাহিনীর সঙ্গে যোগসাজশে পাচারকারীরা মিজদাহ শহরে ওই দলটিকে জিম্মি করে এবং আরও টাকা দাবি করে।

এ নিয়ে বাগাড়ম্বরের মধ্যে আফ্রিকার মূল পাচারকারীকে হত্যা করা হয়। এ সময় তার পরিবার এবং বাকি পাচারকারীরা এলোপাতাড়ি গুলি চালিয়ে ৩০ জনকে হত্যা করে, আরও ১১ জন আহত হন।

এ ঘটনার পর ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বেশ কয়েকটি মামলা হয়।  রেড নোটিস জারি হওয়া ৬ জনই ওই মামলার আসামি এবং তারা বিদেশে আছেন বলে সিআইডি কর্মকর্তারা জানান।