সাজানো মামলায় যুগান্তরের সাংবাদিককে হয়রানির প্রতিবাদ পটুয়াখালীতে
jugantor
সাজানো মামলায় যুগান্তরের সাংবাদিককে হয়রানির প্রতিবাদ পটুয়াখালীতে

  দশমিনা দক্ষিণ (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি  

০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৫:১৮:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রতিবাদসভা

বন বিভাগের সাজানো মামলায় যুগান্তরের গাজীপুরের জয়দেবপুর থানা প্রতিনিধি এমএ কাসেমকে হয়রানির প্রতিবাদে পটুয়াখালীর দশমিনায় প্রতিবাদসভা হয়েছে।

শুক্রবার সকালে দশমিনা সাংবাদিক সমিতির আয়োজনে সমিতির কার্যালয়ে এ প্রতিবাদসভা হয়।

এতে বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান তিতাস, দৈনিক যায়যায়দিন প্রতিনিধি আজিমুর রাইহান শাহিন, সাংবাদিক সমিতির সহসভাপতি পিএম রায়হান বাদল, সাধারণ সম্পাদক ও যুগান্তরের দশমিনা দক্ষিণ প্রতিনিধি মো. মামুন তানভীর, দৈনিক আজকালের খবরের জায়েদ মোল্লা এবং দৈনিক আলোকিত সকালের মো. আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

এ সময় সাংবাদিকরা বলেন, যুগান্তরের সাংবাদিক এমএ কাসেম বন বিভাগের অনিয়ম নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছিলেন। আর সেই সংবাদ প্রকাশের জের ধরে তাকে হয়রানি করার জন্য তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করা হয়। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, স্থানীয় ওই চক্র এর আগেও সাংবাদিকদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে জেল খাটিয়েছে।

প্রতিবাদসভায় বক্তারা যুগান্তরের সাংবাদিক এমএ কাসেমের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান। সেই সঙ্গে সারা দেশে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মিথ্যা সব মামলা প্রত্যাহারের দাবিও জানান।

বনপ্রহরী (ভারপ্রাপ্ত বিট কর্মকর্তা) হোসেন আহমেদের করা একটি মামলায় জয়দেবপুর থানা পুলিশ গত মঙ্গলবার কাসেমকে গ্রেফতার করেন। পর দিন বুধবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহার তার জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান।

সাজানো মামলায় যুগান্তরের সাংবাদিককে হয়রানির প্রতিবাদ পটুয়াখালীতে

 দশমিনা দক্ষিণ (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি 
০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৩:১৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
প্রতিবাদসভা
ছবি-যুগান্তর

বন বিভাগের সাজানো মামলায় যুগান্তরের গাজীপুরের জয়দেবপুর থানা প্রতিনিধি এমএ কাসেমকে হয়রানির প্রতিবাদে পটুয়াখালীর দশমিনায় প্রতিবাদসভা হয়েছে। 

শুক্রবার সকালে দশমিনা সাংবাদিক সমিতির আয়োজনে সমিতির কার্যালয়ে এ প্রতিবাদসভা হয়। 

এতে বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান তিতাস, দৈনিক যায়যায়দিন প্রতিনিধি আজিমুর রাইহান শাহিন, সাংবাদিক সমিতির সহসভাপতি পিএম রায়হান বাদল, সাধারণ সম্পাদক ও যুগান্তরের দশমিনা দক্ষিণ প্রতিনিধি মো. মামুন তানভীর, দৈনিক আজকালের খবরের জায়েদ মোল্লা এবং দৈনিক আলোকিত সকালের মো. আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

এ সময় সাংবাদিকরা বলেন, যুগান্তরের সাংবাদিক এমএ কাসেম বন বিভাগের অনিয়ম নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছিলেন। আর সেই সংবাদ প্রকাশের জের ধরে তাকে হয়রানি করার জন্য তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করা হয়। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, স্থানীয় ওই চক্র এর আগেও সাংবাদিকদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়ে জেল খাটিয়েছে। 

প্রতিবাদসভায় বক্তারা যুগান্তরের সাংবাদিক এমএ কাসেমের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান। সেই সঙ্গে সারা দেশে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মিথ্যা সব মামলা প্রত্যাহারের দাবিও জানান।

বনপ্রহরী (ভারপ্রাপ্ত বিট কর্মকর্তা) হোসেন আহমেদের করা একটি মামলায় জয়দেবপুর থানা পুলিশ গত মঙ্গলবার কাসেমকে গ্রেফতার করেন। পর দিন বুধবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহার তার জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান।