মতিয়া চৌধুরীকে জাবির আলটিমেটাম

  জাবি প্রতিনিধি ১০ এপ্রিল ২০১৮, ২৩:০৮ | অনলাইন সংস্করণ

জাবি

কোটা সংস্কার আন্দোলনে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ করে জাতীয় সংসদে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীর দেয়া বক্তব্য তিন দিনের মধ্যে প্রত্যাহার করার আলটিমেটাম দিয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

এর মধ্যে বক্তব্য প্রত্যাহার করে জাতির কাছে ক্ষমা না চাইলে তাকে জাবিতে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করার হুশিয়ারি দেয়া হয়েছে।

কোটা সংস্কার আন্দোলনে শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের হামলার প্রতিবাদে মঙ্গলবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির সামনে এক বিক্ষোভ সমাবেশে সাধারণ শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে এ আলটিমেটাম দেয়া হয়।

বিক্ষোভ সমাবেশে সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক খান মুনতাসির আরমান বলেন, ‘দেশের লাখ লাখ সাধারণ শিক্ষার্থীকে ‘রাজাকারের বাচ্চা’ বলে গালি দিয়ে তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে কলঙ্কিত করেছেন। আগামী তিন দিনের মধ্যে এই বক্তব্য প্রত্যাহার করে জাতির কাছে ক্ষমা না চাইলে তাকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হবে।’

এ সময় পুলিশের হামলার বিচার ও কোটা সংস্কার দাবিতে ঘোষিত টানা তিন দিনের সর্বাত্মক ছাত্র ধর্মঘট অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে শতাধিক শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে একটি মিছিল বের হয়। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি সড়ক, বিভিন্ন অনুষদ ও প্রশাসনিক ভবন প্রদক্ষিণ করে লাইব্রেরির সামনে গিয়ে শেষ হয়।

এদিকে তিন দিনব্যাপী সর্বাত্মক ছাত্র ধর্মঘটের ডাকে সাড়া দিয়ে সব ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করেছেন শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার বিভিন্ন অনুষদে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিভাগের ক্লাসরুম-অফিস খুললেও শিক্ষার্থীদের কোনো উপস্থিতি নেই। কোনো বিভাগে ক্লাস, টিউটোরিয়াল অথবা ফাইনাল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। তবে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষার্থীরা দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল করেছে।

এদিকে মহাসড়কে যে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রধান ফটকসহ তিনটি গেটে অবস্থান করছে দুই শতাধিক পুলিশ।

এর আগে সোমবার বিকালে জাবি ভিসির সংহতি প্রকাশের পর শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে একাত্মতা ঘোষণা করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতি। ওই দিন সন্ধ্যায় শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক নুরুল আলম ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক বশির আহমেদ স্বাক্ষরিত এক বিবৃতির মাধমে শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের হামলার প্রতিবাদ জানানো হয়।

বিবৃতিতে হামলার ঘটনায় গভীর উদ্বেগ ও নিন্দা প্রকাশসহ জড়িত পুলিশ সদস্যদের শাস্তি দাবি করা হয়। এছাড়া কোটা সংস্কার আন্দোলনের যৌক্তিকতা রয়েছে উল্লেখ করে শিক্ষার্থীদের দাবির প্রতি গুরুত্ব দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

উল্লেখ্য, গত সোমবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে সরকারি নিয়োগে বিদ্যমান কোটা পদ্ধতির সংস্কার দাবিতে আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ করে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘লজ্জা করে না? এটা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যারা শিক্ষার্থী আমি মনে করি, সত্যিকারের যারা জ্ঞানের চর্চা করছে, সবার জন্য এটা একটা কলঙ্কজনক অধ্যায়। যারা জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করেছিল, মুক্তিযুদ্ধ করেছিল, তাদের ছেলেমেয়ে বা বংশ, সেই আরেকটি সিঁড়ি, তারা সুযোগ পাবে না। ওই রাজাকারের বাচ্চারা সুযোগ পাবে? তাদের জন্য মুক্তিযোদ্ধা কোটা সংকুচিত করতে হবে?’

ঘটনাপ্রবাহ : কোটাবিরোধী আন্দোলন ২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter