সিনহা হত্যা মামলার রিভিশন আবেদন খারিজ
jugantor
সিনহা হত্যা মামলার রিভিশন আবেদন খারিজ

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭:১৯:৫২  |  অনলাইন সংস্করণ

নিহত অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলা বাতিল চেয়ে প্রধান আসামি বরখাস্ত হওয়া পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলীর পক্ষে করা রিভিশন আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আদালত। উভয়পক্ষের যুক্ততর্ক ও শুনানি শেষে আবেদনটির গ্রহণযোগ্যতা না থাকায় খারিজ করে দেন কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল।

লিয়াকত আলীর আইনজীবী মাসুদ সালাহ উদ্দীন জানান, মামলাটির আবেদনের পূর্ণাঙ্গ শুনানি শেষে রোববার কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল এই আদেশ দেন।

এদিকে সিনহা হত্যা মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করেছে র‍্যাব। কক্সবাজারের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আজ রোববার সকালে এ অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুরে এপিবিএন চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ।

এই ঘটনায় তার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ নয় জনকে আসামি করে আদালতে হত্যা মামলা করেন। ওই মামলার প্রধান আসামি বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সাবেক পরিদর্শক লিয়াকত আলী।

শারমিনের দায়ের করা এই মামলা ‘বেআইনি ও অবৈধ’ দাবি করে তা বাতিলের জন্য গত ৪ অক্টোবর রিভিশন আবেদন করেন লিয়াকত আলীর আইনজীবী মাসুদ সালাহ উদ্দিন। ওই দিন আদালত মামলাটির পূর্ণাঙ্গ শুনানির জন্য ২০ অক্টোবর দিন ধার্য করেন।

কিন্তু শুনানির ওই নির্ধারিত দিনে সিনহা হত্যার মামলার বাদী শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস অসুস্থতার কারণে আদালতে উপস্থিত থাকতে না পারায় পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেন ১০ নভেম্বর।

অন্যদিকে মামলাটি শুনানির ওই নির্ধারিত দিনে (১০ নভেম্বর) সিনহা হত্যার মামলাটি বেআইনি ও অবৈধ ঘোষণা চেয়ে আবেদনকারী পক্ষের আইনজীবী মাসুদ সালাহউদ্দিন অসুস্থ হয়ে পড়েন। এতে মামলাটির পূর্ণাঙ্গ শুনানির দিন আবারও পিছিয়ে যায়। ১০ নভেম্বর আদালত মামলাটির পূর্ণাঙ্গ শুনানির জন্য ১৩ ডিসেম্বর দিন ধার্য করেন।

সিনহা হত্যা মামলার রিভিশন আবেদন খারিজ

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৩ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নিহত অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ
নিহত অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ। ফাইল ছবি

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলা বাতিল চেয়ে প্রধান আসামি বরখাস্ত হওয়া পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত আলীর পক্ষে করা রিভিশন আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন আদালত। উভয়পক্ষের যুক্ততর্ক ও শুনানি শেষে আবেদনটির গ্রহণযোগ্যতা না থাকায় খারিজ করে দেন কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল।

লিয়াকত আলীর আইনজীবী মাসুদ সালাহ উদ্দীন জানান, মামলাটির আবেদনের পূর্ণাঙ্গ শুনানি শেষে রোববার কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল এই আদেশ দেন।

এদিকে সিনহা হত্যা মামলার অভিযোগপত্র দাখিল করেছে র‍্যাব। কক্সবাজারের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আজ রোববার সকালে এ অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন। 

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুরে এপিবিএন চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ।

এই ঘটনায় তার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ নয় জনকে আসামি করে আদালতে হত্যা মামলা করেন। ওই মামলার প্রধান আসামি বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের সাবেক পরিদর্শক লিয়াকত আলী।

শারমিনের দায়ের করা এই মামলা ‘বেআইনি ও অবৈধ’ দাবি করে তা বাতিলের জন্য গত ৪ অক্টোবর রিভিশন আবেদন করেন লিয়াকত আলীর আইনজীবী মাসুদ সালাহ উদ্দিন। ওই দিন আদালত মামলাটির পূর্ণাঙ্গ শুনানির জন্য ২০ অক্টোবর দিন ধার্য করেন।

কিন্তু শুনানির ওই নির্ধারিত দিনে সিনহা হত্যার মামলার বাদী শারমিন শাহরিয়ার ফেরদৌস অসুস্থতার কারণে আদালতে উপস্থিত থাকতে না পারায় পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেন ১০ নভেম্বর।

অন্যদিকে মামলাটি শুনানির ওই নির্ধারিত দিনে (১০ নভেম্বর) সিনহা হত্যার মামলাটি বেআইনি ও অবৈধ ঘোষণা চেয়ে আবেদনকারী পক্ষের আইনজীবী মাসুদ সালাহউদ্দিন অসুস্থ হয়ে পড়েন। এতে মামলাটির পূর্ণাঙ্গ শুনানির দিন আবারও পিছিয়ে যায়। ১০ নভেম্বর আদালত মামলাটির পূর্ণাঙ্গ শুনানির জন্য ১৩ ডিসেম্বর দিন ধার্য করেন।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : মেজর সিনহার মৃত্যু