‘চলচ্চিত্র থেকে শিশুরাও যেন জীবন গড়ার অনুপ্রেরণা পায়’
jugantor
‘চলচ্চিত্র থেকে শিশুরাও যেন জীবন গড়ার অনুপ্রেরণা পায়’

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৭ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:১৮:০৬  |  অনলাইন সংস্করণ

শিশুদের জন্য শিক্ষণীয় চলচ্চিত্র নির্মাণের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, শিশুদের জন্য এমনভাবে চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে হবে, যাতে তারা সেখান থেকে ভবিষ্যৎ জীবন গড়ার অনুপ্রেরণা পায়।

রোববার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ২০১৯ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের শিশুদের জন্য সিনেমা তৈরি করা একান্তভাবে প্রয়োজন। এর মধ্য দিয়ে কিন্তু একটা শিশু তার জীবনটাকে দেখতে পারবে, জীবনটাকে তৈরি করতে পারবে, বড় হতে পারবে।

‘সেদিকে লক্ষ্য রেখেই শিশুদের জন্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করা, তার মধ্য দিয়ে তাদের শিক্ষণীয় বিষয়গুলো প্রতিফলিত করা, এটিও কিন্তু আমাদের করতে হবে।’

চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সিনেমাগুলো সেভাবেই তৈরি করতে হবে, যেন পরিবার-পরিজন নিয়ে দেখতে পারে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্প নষ্ট হয়ে যাক- সেটি সরকার কখনও চায় না। একসময় টেলিভিশন যুগের আবির্ভাবে সিনেমাশিল্প থমকে গেলেও এখন আবার সিনেমার যুগ ফিরে এসেছে।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, দেশের উন্নয়নের ক্ষেত্রে বা দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে সিনেমাশিল্প অনেক অবদান রাখতে পারে। সেভাবেই আপনারা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় মানুষকে আরও উদ্বুদ্ধ করা, প্রজন্মের পর প্রজন্ম যেন আমাদের ইতিহাসটা জানতে পারে, বিজয়ের ইতিহাস জানতে পারে এবং মানুষ যেন ভালোভাবে জীবনযাপন করতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রেখে আপনারা করবেন।

‘চলচ্চিত্র থেকে শিশুরাও যেন জীবন গড়ার অনুপ্রেরণা পায়’

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৭ জানুয়ারি ২০২১, ০৩:১৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

শিশুদের জন্য শিক্ষণীয় চলচ্চিত্র নির্মাণের ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, শিশুদের জন্য এমনভাবে চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে হবে, যাতে তারা সেখান থেকে ভবিষ্যৎ জীবন গড়ার অনুপ্রেরণা পায়।

রোববার গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ২০১৯ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের শিশুদের জন্য সিনেমা তৈরি করা একান্তভাবে প্রয়োজন। এর মধ্য দিয়ে কিন্তু একটা শিশু তার জীবনটাকে দেখতে পারবে, জীবনটাকে তৈরি করতে পারবে, বড় হতে পারবে।

‘সেদিকে লক্ষ্য রেখেই শিশুদের জন্য চলচ্চিত্র নির্মাণ করা, তার মধ্য দিয়ে তাদের শিক্ষণীয় বিষয়গুলো প্রতিফলিত করা, এটিও কিন্তু আমাদের করতে হবে।’

চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সিনেমাগুলো সেভাবেই তৈরি করতে হবে, যেন পরিবার-পরিজন নিয়ে দেখতে পারে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের চলচ্চিত্র শিল্প নষ্ট হয়ে যাক- সেটি সরকার কখনও চায় না। একসময় টেলিভিশন যুগের আবির্ভাবে সিনেমাশিল্প থমকে গেলেও এখন আবার সিনেমার যুগ ফিরে এসেছে।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, দেশের উন্নয়নের ক্ষেত্রে বা দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে সিনেমাশিল্প অনেক অবদান রাখতে পারে। সেভাবেই আপনারা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় মানুষকে আরও উদ্বুদ্ধ করা, প্রজন্মের পর প্রজন্ম যেন আমাদের ইতিহাসটা জানতে পারে, বিজয়ের ইতিহাস জানতে পারে এবং মানুষ যেন ভালোভাবে জীবনযাপন করতে পারে সেদিকে লক্ষ্য রেখে আপনারা করবেন।  

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন