বুড়িগঙ্গায় ২ লঞ্চের মুখোমুখি সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক
jugantor
বুড়িগঙ্গায় ২ লঞ্চের মুখোমুখি সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

  কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি  

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০০:৪৭:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

বুড়িগঙ্গা নদীর পোস্তগোলা এলাকায় দুই লঞ্চের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে। এতে অর্ধশতাধিক যাত্রী আহত হয়েছেন। আহতের বেশিভাগই চাঁদপুর থেকে আসা লঞ্চ ইমাম হাসানের যাত্রী।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহতদের রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন সদরঘাট নৌ থানার এসআই মো. শহীদ।

তিনি জানান, বরিশালগামী এমভি সুন্দরবন-১০ লঞ্চের সঙ্গে চাঁদপুর থেকে সদরঘাটগামী এমভি ইমাম হাসান লঞ্চের সংঘর্ষ ঘটে। এতে অনেক যাত্রী আহত হয়েছে। তবে ঠিক কতজন আহত হয়েছেন তা তিনি বলতে পারেননি।

এসআই শহীদ আরও জানান, সংঘর্ষে সুন্দরবন লঞ্চের তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। এটি অনেক বড় লঞ্চ। সংঘর্ষের পর সেটি গন্তব্যের দিকে রওয়ানা দিয়েছে। অন্যদিকে এমভি ইমাম হাসান তুলনামূলক ছোট। যার কারণে এই লঞ্চের সম্মুখভাগ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আহতদের মধ্যে প্রায় সবাই এই লঞ্চের যাত্রী।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হাসনাবাদ ঘাটের খেয়া মাঝি রইছুল ইসলাম বলেন, আমি ঘাটের কাছাকাছি ছিলাম। হঠাৎ বিকট শব্দে তাকিয়ে দেখি মাঝ নদীতে দুই লঞ্চে সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষের ফলে লঞ্চে থাকা কয়েকজন যাত্রী নদীতে পড়ে যায়। খেয়া নৌকার মাঝিরা তাদের উদ্ধার করে। ছোট লঞ্চের অনেক যাত্রী আহত হয়েছেন। তারা লঞ্চের ভেতর আর্তনাদ করছিলেন।

সদরঘাট নৌ- থানার ওসি গোলাম মোর্শেদ তালুকদার জানান, এবিষয়ে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বুড়িগঙ্গায় ২ লঞ্চের মুখোমুখি সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক

 কেরানীগঞ্জ (ঢাকা) প্রতিনিধি 
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২:৪৭ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বুড়িগঙ্গা নদীর পোস্তগোলা এলাকায় দুই লঞ্চের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়েছে। এতে অর্ধশতাধিক যাত্রী আহত হয়েছেন। আহতের বেশিভাগই চাঁদপুর থেকে আসা লঞ্চ ইমাম হাসানের যাত্রী।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে নয়টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহতদের রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। 

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন সদরঘাট নৌ থানার এসআই মো. শহীদ। 

তিনি জানান, বরিশালগামী এমভি সুন্দরবন-১০ লঞ্চের সঙ্গে চাঁদপুর থেকে সদরঘাটগামী এমভি ইমাম হাসান লঞ্চের সংঘর্ষ ঘটে। এতে অনেক যাত্রী আহত হয়েছে। তবে ঠিক কতজন আহত হয়েছেন তা তিনি বলতে পারেননি।

এসআই শহীদ আরও জানান, সংঘর্ষে সুন্দরবন লঞ্চের তেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। এটি অনেক বড় লঞ্চ। সংঘর্ষের পর সেটি গন্তব্যের দিকে রওয়ানা দিয়েছে। অন্যদিকে এমভি ইমাম হাসান তুলনামূলক ছোট। যার কারণে এই লঞ্চের সম্মুখভাগ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আহতদের মধ্যে প্রায় সবাই এই লঞ্চের যাত্রী।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হাসনাবাদ ঘাটের খেয়া মাঝি রইছুল ইসলাম বলেন, আমি ঘাটের কাছাকাছি ছিলাম। হঠাৎ বিকট শব্দে তাকিয়ে দেখি মাঝ নদীতে দুই লঞ্চে সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষের ফলে লঞ্চে থাকা কয়েকজন যাত্রী নদীতে পড়ে যায়। খেয়া নৌকার মাঝিরা তাদের উদ্ধার করে। ছোট লঞ্চের অনেক যাত্রী আহত হয়েছেন। তারা লঞ্চের ভেতর আর্তনাদ করছিলেন।  

সদরঘাট নৌ- থানার ওসি গোলাম মোর্শেদ তালুকদার জানান, এবিষয়ে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।