যে কারণে সাদা কাপড় পরতেন আবুল মকসুদ
jugantor
যে কারণে সাদা কাপড় পরতেন আবুল মকসুদ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০:৫৮:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশিষ্ট লেখক, গবেষক ও সাংবাদিক সৈয়দ আবুল মকসুদ মারা গেছেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত টানা ১৮ বছর এই গবেষক সাদা কাপড় পরেছেন।

প্রতিবাদের পোশাক হিসেবে বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও আন্দোলনে তিনি এই সাদা কাপড় পরতেন।

জানা গেছে, ২০০৩ সালের ১৯ মার্চ ইরাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হামলার পর প্রতিবাদ হিসেবে সৈয়দ আবুল মকসুদ পশ্চিমা পোশাক ত্যাগ করেন।

গান্ধীর সত্যাগ্রহ আন্দোলনের প্রতি অনুরক্ত এই সামাজিক ও পরিবেশ আন্দোলনের কর্মী সুতির সাদা কাপড়কে প্রতিবাদের পোশাক হিসেবে বেছে নেন।

এ ছাড়া রাজপথে নানা গণমুখী প্রতিবাদ ও আন্দোলনে সম্পৃক্ত হতেন আবুল মকসুদ। বাংলাদেশের পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) সহসভাপতি ছিলেন তিনি।

সুন্দরবন রক্ষা, নদী ও দূষণবিরোধী আন্দোলনে তিনি সামনের সারিতে থাকতেন। দেশের খনিজসম্পদ রক্ষার আন্দোলন তেল-গ্যাস-খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ–বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য হিসেবে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র বাতিল ও উপকূল রক্ষার আন্দোলনে অংশ নিয়েছেন আবুল মকসুদ।

এ ছাড়া নিরাপদ সড়ক আন্দোলনসহ নানা সামাজিক আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন তিনি।

প্রসঙ্গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শ্বাসকষ্ট শুরু হলে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর।

তিনি স্ত্রী সুলতানা মকসুদ, ছেলে সৈয়দ নাসিফ মকসুদ ও মেয়ে জিহাদ মকসুদসহ অসংখ্য স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

যে কারণে সাদা কাপড় পরতেন আবুল মকসুদ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০:৫৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিশিষ্ট লেখক, গবেষক ও সাংবাদিক সৈয়দ আবুল মকসুদ মারা গেছেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত টানা ১৮ বছর এই গবেষক সাদা কাপড় পরেছেন। 

প্রতিবাদের পোশাক হিসেবে বিভিন্ন অনুষ্ঠান ও আন্দোলনে তিনি এই সাদা কাপড় পরতেন।  

জানা গেছে, ২০০৩ সালের ১৯ মার্চ ইরাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হামলার পর প্রতিবাদ হিসেবে সৈয়দ আবুল মকসুদ পশ্চিমা পোশাক ত্যাগ করেন। 

গান্ধীর সত্যাগ্রহ আন্দোলনের প্রতি অনুরক্ত এই সামাজিক ও পরিবেশ আন্দোলনের কর্মী সুতির সাদা কাপড়কে প্রতিবাদের পোশাক হিসেবে বেছে নেন। 

এ ছাড়া রাজপথে নানা গণমুখী প্রতিবাদ ও আন্দোলনে সম্পৃক্ত হতেন আবুল মকসুদ। বাংলাদেশের পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) সহসভাপতি ছিলেন তিনি।

সুন্দরবন রক্ষা, নদী ও দূষণবিরোধী আন্দোলনে তিনি সামনের সারিতে থাকতেন। দেশের খনিজসম্পদ রক্ষার আন্দোলন তেল-গ্যাস-খনিজসম্পদ ও বিদ্যুৎ–বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য হিসেবে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র বাতিল ও উপকূল রক্ষার আন্দোলনে অংশ নিয়েছেন আবুল মকসুদ। 

এ ছাড়া নিরাপদ সড়ক আন্দোলনসহ নানা সামাজিক আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন তিনি। 

প্রসঙ্গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শ্বাসকষ্ট শুরু হলে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। 

তিনি স্ত্রী সুলতানা মকসুদ, ছেলে সৈয়দ নাসিফ মকসুদ ও মেয়ে জিহাদ মকসুদসহ অসংখ্য স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন