‘লেখক মুশতাক রাষ্ট্রীয় হত্যাকাণ্ডের শিকার’
jugantor
‘লেখক মুশতাক রাষ্ট্রীয় হত্যাকাণ্ডের শিকার’

  ঢাবি প্রতিনিধি   

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫:০৩:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কারাবন্দি অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনাকে ‘রাষ্ট্রীয় হত্যাকাণ্ড’ বলে দাবি করেছেন বামপন্থি ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা। তারা এই মৃত্যুর সুষ্ঠু তদন্ত এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানিয়েছেন।


শুক্রবার বেলা ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন বাম ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা। মিছিলটি শাহবাগ ও পরীবাগ মোড় ঘুরে ফের শাহবাগে এসে অবস্থান নেয়। এ সময় তারা শাহবাগ মোড় অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে শুরু করেন। দেড় ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেন শিক্ষার্থীরা্।


শাহবাগ মোড়ে বিক্ষোভে বক্তৃতায় সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের (বাসদ) সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দীন অভিযোগ করেন, গত বছরের এপ্রিলে লেখনীর মাধ্যমে দুর্নীতি-লুটপাটের প্রতিবাদ করেছিলেন লেখক মুশতাক।


‘তার অপরাধ ছিল, তিনি সাধারণ মানুষের পক্ষে, অব্যবস্থাপনা-দুর্নীতির বিরুদ্ধে কলম ধরেছিলেন। তাই কারাগারে আটকে রেখে তাকে নির্মম নির্যাতন করা হয়েছে। তিনি ছয়বার জামিনের আবেদন করলেও তা নির্বিকারভাবে নাকচ করা হয়েছে। এটি নির্মম রাষ্ট্রীয় হত্যাকাণ্ড।’


বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক জাহিদ সুজন বলেন, লেখক মুশতাক ৯ মাস ধরে কারারুদ্ধ ছিলেন। মানুষের অধিকারকে অস্বীকার করার জায়গায় চলে গেছে বর্তমান সরকার।


বিক্ষোভে আরও বক্তব্য দেন গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিলের কেন্দ্রীয় সভাপতি আরিফ মঈনুদ্দীন, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের দপ্তর সম্পাদক রাজেন্দ্র চাকমা প্রমুখ।


পরে নেতারা আজ সন্ধ্যা ৬টায় মশাল মিছিল এবং ১ মার্চ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি ঘোষণা করেন। কর্মসূচি ঘোষণা করেন ছাত্রফ্রন্ট কেন্দ্রীয় সভাপতি আল কাদেরী জয়।
প্রসঙ্গত লেখক মুশতাক আহমেদ (৫৩) বৃহস্পতিবার রাতে মারা যান। তিনি গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগারে ছিলেন।

‘লেখক মুশতাক রাষ্ট্রীয় হত্যাকাণ্ডের শিকার’

 ঢাবি প্রতিনিধি  
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৩:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় কারাবন্দি অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনাকে ‘রাষ্ট্রীয় হত্যাকাণ্ড’ বলে দাবি করেছেন  বামপন্থি ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা।  তারা এই মৃত্যুর সুষ্ঠু তদন্ত এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানিয়েছেন।


শুক্রবার বেলা ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন বাম ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা। মিছিলটি শাহবাগ ও পরীবাগ মোড় ঘুরে ফের শাহবাগে এসে অবস্থান নেয়। এ সময় তারা শাহবাগ মোড় অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে শুরু করেন।  দেড় ঘণ্টা সড়ক অবরোধ করে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করেন শিক্ষার্থীরা্।

    
শাহবাগ মোড়ে বিক্ষোভে বক্তৃতায় সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের (বাসদ) সাধারণ সম্পাদক নাসির উদ্দীন অভিযোগ করেন, গত বছরের এপ্রিলে লেখনীর মাধ্যমে দুর্নীতি-লুটপাটের প্রতিবাদ করেছিলেন লেখক মুশতাক।  


‘তার অপরাধ ছিল, তিনি সাধারণ মানুষের পক্ষে, অব্যবস্থাপনা-দুর্নীতির বিরুদ্ধে কলম ধরেছিলেন। তাই কারাগারে আটকে রেখে তাকে নির্মম নির্যাতন করা হয়েছে। তিনি ছয়বার জামিনের আবেদন করলেও তা নির্বিকারভাবে নাকচ করা হয়েছে। এটি নির্মম রাষ্ট্রীয় হত্যাকাণ্ড।’


বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক জাহিদ সুজন বলেন, লেখক মুশতাক ৯ মাস ধরে কারারুদ্ধ ছিলেন। মানুষের অধিকারকে অস্বীকার করার জায়গায় চলে গেছে বর্তমান সরকার।


বিক্ষোভে আরও বক্তব্য দেন গণতান্ত্রিক ছাত্র কাউন্সিলের কেন্দ্রীয় সভাপতি আরিফ মঈনুদ্দীন, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের দপ্তর সম্পাদক রাজেন্দ্র চাকমা প্রমুখ।


পরে নেতারা আজ সন্ধ্যা ৬টায় মশাল মিছিল এবং ১ মার্চ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি ঘোষণা করেন। কর্মসূচি ঘোষণা করেন ছাত্রফ্রন্ট কেন্দ্রীয় সভাপতি আল কাদেরী জয়।
প্রসঙ্গত লেখক মুশতাক আহমেদ (৫৩) বৃহস্পতিবার রাতে মারা যান। তিনি গাজীপুরের কাশিমপুর হাই সিকিউরিটি কারাগারে ছিলেন। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : কারাগারে লেখক মুশতাকের মৃত্যু

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১