কর্মজীবী নারীর ঘরের কাজে পুরুষের সহযোগিতা করা উচিত: প্রথম নারী সিজিডিএফ
jugantor
কর্মজীবী নারীর ঘরের কাজে পুরুষের সহযোগিতা করা উচিত: প্রথম নারী সিজিডিএফ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৯ মার্চ ২০২১, ১০:০৮:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

মনোয়ারা হাবীব

নারীরা ঘর থেকে শুরু করে সরকারি-বেসরকারি অফিস-আদালতে তার নিজ যোগ্যতার বলেই এগিয়ে আছে। নারীকে ছোট বা খাটো করে দেখার কিছু নেই। নারীদেরও পুরুষের মতো সমান মেধা, জ্ঞান ও চেষ্টা রয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিফেন্স ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের (ডিএফডি) প্রথম নারী কন্ট্রোলার জেনারেল ডিফেন্স ফাইন্যান্স (সিজিডিএফ) মনোয়ারা হাবীব।

সোমবার বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় সিজিডিএফ কার্যালয়ে ‘করোনাকালে নারী নেতৃত্ব, গড়বে নতুন সমতার বিশ্ব’—এ প্রতিপাদ্য সামনে রেখে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

মনোয়ারা হাবীব বলেন, আমি বিশ্বাস করি বছরের মাত্র একটি দিন নয়, প্রতিটি দিনই নারীর, প্রতিটি দিনই পুরুষের। নারী-পুরুষ একে অপরের পরিপূরক। কোনো কোনো ক্ষেত্রে নারী অনেক এগিয়ে, আবার কোনো ক্ষেত্রে পুরুষ এগিয়ে। মানুষ হিসেবে উভয়েই সমান মর্যাদা, সম্মান ও শ্রদ্ধার যোগ্য।

মনোয়ারা হাবীব আরও বলেন, নারীরা তার নিজ যোগ্যতার বলে ভালো অবস্থান তৈরি করে নিতে পারে। তাদের স্বপ্নকে বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় পরিবেশ তৈরি করতে পরিবার থেকে শুরু করে সবার সহযোগিতার প্রয়োজন রয়েছে। একজন কর্মজীবী নারীকে ঘর ও অফিস একসঙ্গে সামলানো অনেক কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। এ ক্ষেত্রে পরিবারের যেসব পুরুষ বা অন্যান্য সদস্য রয়েছেন, তাদের উচিত কর্মজীবী নারীর পাশে দাঁড়ানো, তার ঘরের কাজে একটু সহযোগিতা করা।

সিজিডিএফকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন অনুষ্ঠানের সভাপতি এসএফসি (ডিপি) ডা. তানজিনা ইসলাম ও বিভাগের ঊর্ধ্বতন নারী কর্মকর্তারা। এ সময় কেক কেটে দিবসটি উদযাপন করা হয়।

সভাপতিত্বের বক্তব্যে ডা. তানজিনা ইসলাম জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের কবিতার দুটি লাইন ‘কোন কালে একা হয়নি কো জয়ী, পুরুষের তরবারী; প্রেরণা দিয়েছে, শক্তি দিয়াছে, বিজয়ালক্ষী নারী’ দিয়ে শুরু করে বলেন, সৃষ্টির শুরু থেকে প্রতিটি কাজে নারীর অবদান রয়েছে। ধর্ম থেকে সমাজ এবং দেশের উন্নয়নেও নারীর ভূমিকা অনস্বীকার্য। দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীও নারী। নারী এখন আর অবহেলার নয়, পিছিয়ে পড়া জায়গায় নয়। দৃঢ় মনোবল এবং আত্মবিশ্বাস নিয়েই এগিয়ে যেতে হবে নারীকে।

আলোচনাসভায় জেসিজিডিএফ মোহাম্মদ আমীমূল এহসান কবীর, এফসি (আর্মি) পে-১ রওনক তাসলিমা, জেএফসি (এয়ার) সেলিনা খন্দকার, ডিএফসি (ডিপি) কাজী মাহেজাবিন ফাতেমাসহ বিভাগীয় অন্যান্য নারী কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত গত ১০ ফেব্রুয়ারি সিজিডিএফ কার্যালয়ে ডিফেন্স ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের (ডিএফডি) বিভাগীয় প্রধান কর্মকর্তা সিজিডিএফ হিসেবে যোগদান করেন মনোয়ারা বেগম। সিজিডিএফ হিসেবে যোগদানের আগেও তিনি প্রথম নারী হিসেবে অডিট অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস ডিপার্টমেন্টের বিভাগীয় প্রধান কর্মকর্তা (ডেপুটি সিএজি সিনিয়র) পদে কর্মরত ছিলেন।

কর্মজীবী নারীর ঘরের কাজে পুরুষের সহযোগিতা করা উচিত: প্রথম নারী সিজিডিএফ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৯ মার্চ ২০২১, ১০:০৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মনোয়ারা হাবীব
আন্তর্জাতিক নারী দিবসে বক্তব্য রাখছেন ডিফেন্স ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের (ডিএফডি) প্রথম নারী সিজিডিএফ মনোয়ারা হাবীব। ছবি-যুগান্তর

নারীরা ঘর থেকে শুরু করে সরকারি-বেসরকারি অফিস-আদালতে তার নিজ যোগ্যতার বলেই এগিয়ে আছে। নারীকে ছোট বা খাটো করে দেখার কিছু নেই। নারীদেরও পুরুষের মতো সমান মেধা, জ্ঞান ও চেষ্টা রয়েছে বলে জানিয়েছেন ডিফেন্স ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের (ডিএফডি) প্রথম নারী কন্ট্রোলার জেনারেল ডিফেন্স ফাইন্যান্স (সিজিডিএফ) মনোয়ারা হাবীব।

সোমবার বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় সিজিডিএফ কার্যালয়ে ‘করোনাকালে নারী নেতৃত্ব, গড়বে নতুন সমতার বিশ্ব’—এ প্রতিপাদ্য সামনে রেখে আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

মনোয়ারা হাবীব বলেন, আমি বিশ্বাস করি বছরের মাত্র একটি দিন নয়, প্রতিটি দিনই নারীর, প্রতিটি দিনই পুরুষের। নারী-পুরুষ একে অপরের পরিপূরক। কোনো কোনো ক্ষেত্রে নারী অনেক এগিয়ে, আবার কোনো ক্ষেত্রে পুরুষ এগিয়ে। মানুষ হিসেবে উভয়েই সমান মর্যাদা, সম্মান ও শ্রদ্ধার যোগ্য।

মনোয়ারা হাবীব আরও বলেন, নারীরা তার নিজ যোগ্যতার বলে ভালো অবস্থান তৈরি করে নিতে পারে। তাদের স্বপ্নকে বাস্তবায়নে প্রয়োজনীয় পরিবেশ তৈরি করতে পরিবার থেকে শুরু করে সবার সহযোগিতার প্রয়োজন রয়েছে। একজন কর্মজীবী নারীকে ঘর ও অফিস একসঙ্গে সামলানো অনেক কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। এ ক্ষেত্রে পরিবারের যেসব পুরুষ বা অন্যান্য সদস্য রয়েছেন, তাদের উচিত কর্মজীবী নারীর পাশে দাঁড়ানো, তার ঘরের কাজে একটু সহযোগিতা করা।

সিজিডিএফকে ফুল দিয়ে বরণ করে নেন অনুষ্ঠানের সভাপতি এসএফসি (ডিপি) ডা. তানজিনা ইসলাম ও বিভাগের ঊর্ধ্বতন নারী কর্মকর্তারা। এ সময় কেক কেটে দিবসটি উদযাপন করা হয়। 

সভাপতিত্বের বক্তব্যে ডা. তানজিনা ইসলাম জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের কবিতার দুটি লাইন ‘কোন কালে একা হয়নি কো জয়ী, পুরুষের তরবারী; প্রেরণা দিয়েছে, শক্তি দিয়াছে, বিজয়ালক্ষী নারী’ দিয়ে শুরু করে বলেন, সৃষ্টির শুরু থেকে প্রতিটি কাজে নারীর অবদান রয়েছে। ধর্ম থেকে সমাজ এবং দেশের উন্নয়নেও নারীর ভূমিকা অনস্বীকার্য। দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীও নারী। নারী এখন আর অবহেলার নয়, পিছিয়ে পড়া জায়গায় নয়। দৃঢ় মনোবল এবং আত্মবিশ্বাস নিয়েই এগিয়ে যেতে হবে নারীকে।

আলোচনাসভায় জেসিজিডিএফ মোহাম্মদ আমীমূল এহসান কবীর, এফসি (আর্মি) পে-১ রওনক তাসলিমা, জেএফসি (এয়ার) সেলিনা খন্দকার, ডিএফসি (ডিপি) কাজী মাহেজাবিন ফাতেমাসহ বিভাগীয় অন্যান্য নারী কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত গত ১০ ফেব্রুয়ারি সিজিডিএফ কার্যালয়ে ডিফেন্স ফাইন্যান্স ডিপার্টমেন্টের (ডিএফডি) বিভাগীয় প্রধান কর্মকর্তা সিজিডিএফ হিসেবে যোগদান করেন মনোয়ারা বেগম। সিজিডিএফ হিসেবে যোগদানের আগেও তিনি প্রথম নারী হিসেবে অডিট অ্যান্ড অ্যাকাউন্টস ডিপার্টমেন্টের বিভাগীয় প্রধান কর্মকর্তা (ডেপুটি সিএজি সিনিয়র) পদে কর্মরত ছিলেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন